সৈয়দ আশরাফের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ

0
48

আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ। দলের পক্ষ থেকে কোনো কর্মসূচি না থাকলেও পারিবারিকভাবে প্রয়াত এ নেতার মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হবে।

মঙ্গলবার সকালে পরিবারের পক্ষ থেকে বনানী কবরস্থানে তার কবরে শ্রদ্ধা জানানো হবে। সৈয়দ আশরাফের বোন ও কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি বনানী কবরস্থানে সকালে শ্রদ্ধা জানাবেন। এ ছাড়াও সৈয়দ আশরাফের বাড়ি কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

জাকিয়া নূর লিপি বলেন, “আশরাফ ভাই আড়ম্বর পছন্দ করতেন না, তাই তার মৃত্যুবার্ষিকী যতটা সম্ভব অনাড়ম্বরভাবে পালন করা হবে।”

২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬৮ বছর বয়সে মারা যান সৈয়দ আশরাফ।

১/১১-পরবর্তী সময়ে সৈয়দ আশরাফ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৯ সালের সম্মেলনে দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১২ সালের সম্মেলনে ফের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ২০১৬ সালের সম্মেলনে তাকে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য করা হয়।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারে পিতা সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ জাতীয় চার নেতার হত্যাকাণ্ডের পর যুক্তরাজ্য চলে যান সৈয়দ আশরাফ। যুক্তরাজ্যে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। ১৯৯৬ সালে দেশে ফিরে আসেন এবং কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সৈয়দ আশরাফ। সৈয়দ আশরাফ ছাত্ররাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ ছাড়া তিনি ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ভারতের দেরাদুনে প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন সৈয়দ আশরাফ।