দুর্ঘটনারোধে গতি নিয়ন্ত্রণ ও সাবধানতা জরুরি

0
109

সড়ক, মহাসড়ক এখন যেন অনেকটাই দুর্ঘটনার আকর। স্বস্তি নেই গ্রামীণ জনপদের ছোট ছোট রাস্তাগুলোতেও। সর্বত্রই যান্ত্রিকযানগুলো যেন দ্রæতগতিতে ছুটে চলছে ঘাতক দৈত্যের মতো। ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই জীবন-জীবিকার তাগিদে বাইরে বের হতে হয় পৃথিবীর কর্মজীবি মানুষকে। কিন্তু সুস্থ শরীরে ঘরে ফিরতে পারবে কি না তা জানা নেই কারো। কেননা প্রতিদিন সড়কে ঘটছে দুর্ঘটনা আর সেই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছেন অসংখ্য মানুষ। দুর্ঘটনায় মৃত্যু এখন প্রতিদিনের সংবাদ শিরোনাম। পত্রিকার পাতা খুললেই চোখে পড়ছে সড়ক দুর্ঘটনার নানান সব চিত্র। কখনো বাস, ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ; কখনো বাসে বাসে মুখোমুখি সংঘর্ষ; কখনো বাস, ট্রাক, কাভার্ড ভ্যানের সাথে কার, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ বা পিছন থেকে ধাক্কা দেওয়া; মটরসাইকেল-মটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘষের্র মতো নানান দুর্ঘটনা ঘটছে অহরহ।

আর এসব দুর্ঘটনায় কেউ আহত হচ্ছেন, কেউ বা হচ্ছেন সারাজীবনের তরে পঙ্গু, আবার কেউ বা হারাচ্ছেন অকালে তার মূল্যবান জীবন।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের করা এক প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছে ৪০৭টি। এতে নিহত হয়েছেন ৪৭৬ জন আর আহত হয়েছেন ৭৯৪ জন। নিহতদের মধ্যে ৬২ জন নারী ও ৭৭ জন শিশু। ৪০৭টি দুর্ঘটনার মধ্যে ১৮২টিই হচ্ছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা এবং এতে নিহত হয়েছেন ১৬৯ জন, যা মোট নিহতের ৩৫ দশমিক ৫০ শতাংশ। সড়ক দুর্ঘটনায় পথচারী নিহত হয়েছেন ১০৩ জন, যা মোট নিহতের ২১ দশমিক ৬৩ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৬৩ জন, অর্থাৎ ১৩ দশমিক ২৩ শতাংশ। এছাড়া ঢাকায় ২৯টি দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৩ জন ও আর আহত হয়েছেন ৩৭ জন। দুর্ঘটনায় দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৬২ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন আর শিক্ষক নিহত হয়েছেন ১৪ জন। এছাড়া দুর্ঘটনায় ১৯ থেকে ৬৫ বছর বয়সি কর্মক্ষম মানুষ নিহত হয়েছেন ৩৮৪ জন, অর্থাৎ ৮০ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ বলছে, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৩৪টি (৩২ দশমিক ৯২ শতাংশ) জাতীয় মহাসড়কে, ১৫৮টি (৩৮ দশমিক ৮২ শতাংশ) আ লিক সড়কে, ৭৩টি (১৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ) গ্রামীণ সড়ক এবং ৩৬টি (৮ দশমিক শতাংশ) শহরের সড়কে এবং অন্য স্থানে ৬টি অর্থাৎ ১ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

চলতি বছরের ৯ জানুয়ারিতে রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দেওয়া তথ্য বলছে, ২০২১ সালে ৫৩৭১ টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে ৬২৮৪ জন এবং আহত হয়েছে ৭৪৬৮ জন। নিহতদের মধ্যে ৮০৩ জন শিক্ষার্থী। যাদের অধিকাংশ নিহত হয়েছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায়। যানবাহনের বেপরোয়া গতি এবং কিশোর ও যুবকদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো ও আইন না মানা দুর্ঘটনায় মৃত্যুর অন্যতম কারণ।

তবে একথা অনস্বীকার্য যে, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে সাথে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে যাতায়াত ব্যবস্থার। মহাসড়কগুলো হচ্ছে ফোর লেন এবং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের রাস্তাগুলো হচ্ছে প্রশস্তকরণ। তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন রাস্তাও। সব মিলিয়ে যেন নান্দনিক হয়ে উঠছে দেশের সড়ক, মহাসড়কগুলো।

কিন্তু দুঃখজনক হলো তারপরেও থামছে না সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা। রাস্তায় বের হলে মৃত্যু ভয় যেন তাড়া করছে মানুষকে। আইনশৃংখলা বাহিনী রীতিমতো যুদ্ধ করেও হিমসিম খাচ্ছেন সড়কে প্রাণহানী ঠেকাতে। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ সংহার হচ্ছে তাদেরও অনেকের। সড়ক দুর্ঘটনার নানাবিধ কারণ এবং কারণগুলো বিচ্ছিন্ন নয়, বরং একটির সাথে অন্যটি জড়িত। এটি যেহেতু নগর সভ্যতার ভয়াবহ চিত্র, তাই দুর্ঘটনার সাথে নাগরিক সমস্যা জড়িত। সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ গাড়ি চালকদের বেপরোয়া মনোভাব। তারা যখন স্টিয়ারিংটা ধরেন তখন যেন রাজা বনে যান। গতির নির্দিষ্ট সীমারেখা থাকলেও তারা মানতে চান না সেই গতিসীমা। এমন কী মদ্যপ অবস্থায়ও গাড়ি চালান কেউ কেউ। ফলে জরুরি অবস্থায় তাৎক্ষণিকভাবে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না তাদের পক্ষে। আবার প্রতিযোগিতামূলক গাড়ি চালানোর জন্যও ঘটে অনেক দুর্ঘটনা। ওভার টেক করে আগে যাওয়ার প্রবণতাও সড়ক দুর্ঘটনার কম দায়ী নয়।

আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হওয়াও সড়ক দুর্ঘটনার আরেকটি কারণ। আইন থাকলেও কী পথচারী, কী চালক কেউই মানতে চায় না সেই আইন। যত্রতত্র গাড়ি দাঁড় করানো, পার্কিং, সড়কের মাঝপথ দিয়ে গাড়ি চালানো, রাস্তার ধারে আড্ডা দেওয়া, রাস্তার ধারে হাট বা দোকান বসানোসহ নানাবিধ কারণে ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। আবার, দেখা যায় চালকের আসনে হেলপারকেও বসতে। এমন অদক্ষ লোকও যদি গাড়ি চালায় তবে দুর্ঘটনা রুখবে কে?

সড়ক দুর্ঘটনায় কেউ আহত হচ্ছেন, কেউ পঙ্গু হচ্ছেন। আবার কেউ বা প্রাণটাই হারাচ্ছেন অকালে। এর সুদূরপ্রসারী ফল গিয়ে পড়ছে গোটা পরিবারের ওপর। নেমে আসছে সীমাহীন দুঃখ। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সন্তাদের পড়াশোনা ও চিকিৎসা। হিমসিম খাচ্ছে আহার ও বস্ত্র জোটাতে। মানুষের মৃত্যু অনিবার্য। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় অকাল মৃত্যু মেনে নেওয়া বেশ কষ্টকর। তাই সড়ক দুর্ঘটনা রুখতে- উৎকোচের বিনিময়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদানে অনিয়ম ও হয়রানিটা বন্ধ করতে হবে সবার আগে, মেনে চলতে হবে ট্রাফিক আইন, শ্রদ্ধাশীল হতে হবে আইনের প্রতি, কঠোর করতে হবে ট্রাফিক আইনের যথাযথ প্রয়োগ, নিশ্চিত করতে হবে আইন অমান্যকারীদের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা ও হেলমেট পরিধান করা। বন্ধ করতে হবে কিশোরদের বাইক চালানো, মোবাইলে কথা বলা ও হেডফোন লাগিয়ে গান শোনা। এছাড়া পরিহার করতে ওভারটেকিং ও রাস্তা ফাঁকা থাকলেও মাঝপথ দিয়ে গাড়ি চালানো।

প্রচার চালাতে হবে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য। কীভাবে রাস্তায় হাটতে হয় বা রাস্তা পার হতে হয় তাও অনেকে জানে না। তা জানানোর ব্যবস্থা করতে হবে। রাস্তায় গাড়ি বা বাইক চালাতে গিয়ে নিজেকে যেন রাজা না ভাবি। বাসায় প্রিয়জনরা যে অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে তাদের কথা অন্তত একবার ভাবি।

সে যাই হোক, ‘আইন মেনে সড়কে চলি, নিরাপদে ঘরে ফিরি’ এ প্রতিপাদ্য নিয়ে পালিত হচ্ছে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস-২০২২। জীবন বাঁচাতে, দুর্ঘটনায় পঙ্গুত্ব থেকে রক্ষা পেতে, নিরাপদ থাকতে সর্বোপরি পরিবারের সদস্যদের কথা ভেবে আইন মানা, গতি নিয়ন্ত্রণ রাখা এবং সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি। হয়তো তবেই নিরাপদ হবে সড়ক। কমবে মৃত্যুর মিছিল আর বন্ধ হবে পরিবারের সদস্যদের আজীবনের চোখের অশ্রু।

লেখকঃ এম এ মাসুদ
সাংবাদিক ও কলামিস্ট