দেশজুড়ে

আগামীকাল বিআরটিএ’র প্রজ্ঞাপন জারি: ছাত্রলীগ

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী জানিয়েছেন, হালনাগাদ ড্রাইভিং লাইসেন্স, ইন্স্যুরেন্স, রোড পারমিট ও ফিটনেসবিহীন কোনও সরকারি বা বেসরকারি যানবাহন রাস্তায় নামতে পারবে না। আগামীকাল রবিবার (৫ আগস্ট) এ বিষয়ে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।আজ শনিবার (৪ আগস্ট) বিকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি।গোলাম রাব্বানী স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। হালনাগাদ ড্রাইভিং লাইসেন্স, ইন্স্যুরেন্স, রোড পারমিট ও ফিটনেসবিহীন কোনও সরকারি বা বেসরকারি যানবাহন রাস্তায় নামতে পারবে না, এই মর্মে আগামীকাল সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। প্রজ্ঞাপনে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হালনাগাদ করার সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। সকলের সহযোগিতা একান্ত কাম্য।’

 

 

প্রসঙ্গত, রবিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে কালশি ফ্লাইওভার থেকে নামার মুখে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে ১৫-২০ জন শিক্ষার্থী দাঁড়িয়ে ছিল। জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস ফ্লাইওভার থেকে নামার সময় মুখেই দাঁড়িয়ে যায়। তখন পেছন থেকে আরেকটি দ্রুতগতি সম্পন্ন জাবালে নূরের বাস ওভারটেক করে সামনে আসতেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। নিমিষেই বাসটি ওঠে পড়ে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ওপর। চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় দুইজন। এ ছাড়া আহত হয় আরও ১৩ জন শিক্ষার্থী।নিহত দুজন হলো- শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব।

 

 

ওই ঘটনায় গত রবিবার রাতেই নিহত মিমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৩৩। এ ঘটনায় জাবালে নূরের তিনটি বাসের তিন চালক ও দুই হেলপারকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।আন্দোলনে নেমে নৌমন্ত্রীর পদত্যাগসহ ৯ দফা দাবি করে শিক্ষার্থীরা। দাবিগুলো হলো- দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় দায়ী বেপরোয়া ড্রাইভারকে ফাঁসি দিতে হবে, নৌ-পরিবহনমন্ত্রীকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে, শিক্ষার্থীদের চলাচলে এমইএস ফুটওভার ব্রিজ বা বিকল্প নিরাপদ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, প্রত্যেক সড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকায় স্প্রিড ব্রেকার দিতে হবে, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ছাত্র-ছাত্রীদের দায়ভর সরকারকে নিতে হবে, শিক্ষার্থীরা বাস থামানোর সিগন্যাল দিলে- থামিয়ে তাদের নিতে হবে, শুধু ঢাকা নয়, সারা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়ার ব্যবস্থা করতে হবে, ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় চলাচল বন্ধ ও লাইসেন্স ছাড়া চালকরা গাড়ি চালাতে পারবেন না এবং বাসে অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া যাবে না।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.