রাজধানী

মোহাম্মদপুরের শীর্ষ সন্ত্রাসী পিচ্চি হেলালের সহযোগী মফিসহ তিনজন গ্রেফতার


এস,এম,মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর মোহাম্মদপুরের অন্যতম শীর্ষ সন্ত্রাসী পিচ্চি হেলালের সহযোগী মফিজ উদ্দিন ওরফে মফি সহ তিনজনকে বিদেশী অস্ত্র, গুলি, দেশীয় অস্ত্র ও মাদকসহ আটক করেছে এলিট ফোর্স র‌্যাব-২ এর একটি দল।

আজ রোববার এলিট ফোর্স র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার (এসপি) মুহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী গনমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, শনিবার দিবাগত রাত ৭টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে চাঁদ উদ্যান হাউজিং এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন- মফিজউদ্দিন মফিজ, আনোয়ার ও আরিফ।

গ্রেফতারের সময় তাদের টর্চার সেল আস্তানা থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, ছয় রাউন্ড বন্দুকের গুলি ও ১৪ বোতল ফেনসিডিল বেশ কয়েকটি অস্ত্র, রামদা, হকিস্টিক, চাপাতি জব্দ করা হয়েছে।

এসপি মুহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, তাদেরকে জিঞ্জাসাবাদ শেষে ডিএমপি মোহাম্মদপুর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। এঘটনায় সংশ্লিস্ট থানায় অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দু’টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় পুলিশ ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আজ রোববার তিন আসামী ঢাকার চীফ মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমএম) আদালতে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একজন মাদক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পাওয়ার তথ্যের ভিত্তিতে মফির অফিসে অভিযান চালানো হয়। এসময় একটি বিদেশি পিস্তল পাওয়া যায়। তার লাইসেন্স করা পিস্তলের সঙ্গে উদ্ধার করা অস্ত্রের কোনো মিল পাওয়া যায়নি। এর কোনো ব্যাখাও তিনি দিতে পারেননি। অভিযানে যে গুলি উদ্ধার করা হয়েছে সেটি তার বন্দুকের।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, আটক মফিজ উদ্দিন মফি সন্ত্রাসী কার্যক্রমের পাশাপাশি মোহাম্মদপুর এলাকায় ভূমিদখল, মাদকব্যবসার গদফাদার ছিল। সন্ত্রাসী পিচ্চি হেলাল জেলে যাবার পর থেকে মফিজ পিচ্চি হেলালের সহযোগী হিসেবে এলাকায় চাঁদাবাজি, ভূমি দখল ও মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতেন।

এসপি মহিউদ্দিন ফারুকী আরও বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের সময় মফিজউদ্দিনের কোমরে অস্ত্র পাওয়া গেছে। অস্ত্রের লাইসেন্স থাকলেও ৫০ রাউন্ড গুলির মধ্যে ২৫ রাউন্ড ব্যবহার করেছেন। তবে, ব্যবহৃত গুলির কোনো হিসাব তিনি দেখাতে পারেননি। এছাড়া এসএমজির ছয় রাউন্ড গুলিও পাওয়া গেছে।

তিনি আরও জানান, কার্যালয়টি তারা টর্চার সেল হিসেবে ব্যবহার করতেন। মফিজউদ্দিন মফিজ মূলত অস্ত্র ভাড়া দিয়ে থাকেন। চাঁদ উদ্যান, ঢাকা উদ্যানসহ বিভিন্ন এলাকায় অস্ত্র ব্যবহার করে চাঁদাবাজি করতেন মফিজউদ্দিন ও তার সহযোগীরা। প্রাথমিক জিঞ্জা্সাবাদে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।তার বিরুদ্বে আ্ইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button