করোনা সঙ্কট

সাধারণ ঠাণ্ডাজ্বর কোভিড প্রতিরোধে কাজ করবে: গবেষণা


করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা পেতে কিছুটা ভূমিকা রাখতে পারে সাধারণ ঠাণ্ডাজ্বর এবং সর্দি-কাশি। সম্প্রতি যুক্তরােজ্যর এক গবেষণায় উঠে এসেছে এই তথ্য।

সোমবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাজ্যের ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের একটি গবেষক দল ৫২ জন স্বেচ্ছাসেবীর নমুনা ও তথ্য পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।

২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এই গবেষণা শুরু করেন ইম্পেরিয়াল কলেজের বিজ্ঞানীরা। গবেষণায় যাদের নমুনা ও তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে, তাদের কেউই তখনও করোনা টিকার কোনও ডোজ নেননি কিন্তু কোভিড রোগীর সঙ্গে পাশাপাশি বসবাস করছিলেন।

২৮ দিন ধরে চলা এই গবেষণা শেষে দেখা যায়, এই ৫২ জনের মধ্যে অর্ধেক, অর্থাৎ ২৬ জন পরবর্তিতে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন এবং বাকি অর্ধেক শনাক্ত হয়েছেন নেগেটিভ হিসেবে।

যারা নেগেটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন, তাদের নমুনা পরীক্ষা করে দেখা গেছে তারা সম্প্রতি সাধারণ ঠাণ্ডাজ্বর থেকে সেরে উঠেছেন। এর ফলে তাদের দেহে থাকা উচ্চসংখ্যক টি সেল করোনা সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা দিয়েছে তাদের।

টি সেল হলো একপ্রকার কোষ, যা মানবদেহে অনুপ্রবেশকারী ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে একে নিষ্ক্রিয় করে। বর্তমানে বাজারে যেসব করোনা টিকা পাওয়া যায়, তাদের মূল কাজ দেহে টি সেলের উৎপাদন বাড়ানো।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেহে কোনও ভাইরাস ঢুকলে প্রায় সঙ্গে সঙ্গে প্রতিরোধ ব্যবস্থার কাছে তার খবর পৌঁছে যায় এবং ভাইরাসটিকে নিষ্ক্রিয় করতে দেহ টি সেল উৎপাদন করা শুরু করে। নিষ্ক্রিয় করার পর প্রতিরোধ ব্যবস্থার ‘মেমোরি ব্যাঙ্কে’ জমা থাকে এই ভাইরাসটির তথ্য।

‘এ কারণে, যখন কেউ ঠাণ্ডাজ্বর থেকে সেরে ওঠেন, সে সময় একদিকে তার দেহে যেমন টি সেলের উপস্থিতি বেশি থাকে, তেমনি ভাইরাসটির সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য জমা থাকে প্রতিরোধ ব্যবস্থার মেমোরি ব্যাঙ্কে। ফলে করোনাভাইরাস ওই সময় মানবদেহে প্রবেশ করলেও টিকতে পারে না।’

‘যেহেতু করোনাভাইরাস ঠাণ্ডাজ্বর বা সাধারণ ইনফ্লুয়েঞ্জার সমধর্মী একটি ভাইরাস, তাই মেমোরি ব্যাঙ্ক তার টি সেলকে সেভাবেই নির্দেশনা দেয়।’

গবেষকরা বলছেন, এর মানে এই নয় যে, আপনি সম্প্রতি সর্দি-কাশি ও ঠাণ্ডাজ্বর থেকে সেরে উঠেছেন তাই আপনি করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত। সূত্র: বিবিসি


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button