অর্থনীতি

চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য উঠানো-নামানোর মাশুল হঠাৎ দ্বিগুণ


চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ থেকে পণ্য নামানো এবং জাহাজে পণ্য উঠানোর মাশুল বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। করোনায় সাধারণ ছুটি অজুহাতে বাংলাদেশ শিপ হ্যান্ডলিং অ্যান্ড বার্থ অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের ব্যয় বেড়ে গেছে। বিশেষ করে এই দুর্যোগকালে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বেড়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

উল্লেখ, দেশে করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় গত ২৪ মার্চ সরকার ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। পরবর্তীতে তা কয়েক দফা বাড়ানো হয়, যা ১৬ মে পর্যন্ত চলবে। সাধারণ ছুটির মাঝখানে গত ৮ এপ্রিল হঠাৎ করে বাংলাদেশ শিপ হ্যান্ডলিং অ্যান্ড বার্থ অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন জাহাজ থেকে পণ্য উঠানো-নামানোর বিল (তাদের ভাষায় শিপ হ্যান্ডলিং বিল) দ্বিগুণ করে দেয়।

প্রথম দিকে ব্যবসায়িরা বিষয়টি নিয়ে তেমন আপত্তি করেননি। তাদের ধারণা ছিল, কয়েক দিনের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে, তাই অল্প কয়েকদিন বাড়তি মাশুল দিলেও তারা সামলে নিতে পারবেন। কিন্তু দেশে করোনা পরিস্থিতির অবনতি ও সাধারণ ছুটি দীর্ঘায়িত হওয়ার কারণে তাদের পক্ষে এখন এই বাড়তি মাশুল বড় ধরনের বোঝা হয়ে গেছে। এ যেন গোদের উপর বিষ ফোঁড়া।

এমন পরিস্থিতিতে আজ শনিবার (৯ মে) বাংলাদেশ সিমেন্ট ম্যানুফেক্চারার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিসিএমএ) স্টিভিডোরিং বা শিপ হ্যান্ডলিং বিল দ্বিগুণ না করে আগের হার বহালে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও চট্টগ্রাম চেম্বারের হস্তক্ষেপ চেয়ে চিঠি দিয়েছে।

বিসিএমএর সভাপতি ও এমআই সিমেন্ট ফ্যাক্টরির (ক্রাউন সিমেন্ট) ভাইস-চেয়ারম্যান মোঃ আলমগীর কবির চিঠিতে লিখেছেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে দেশেলকডাউন চলছে। এ কারণে দেশে নির্মাণ কাজ নেই বললেই চলে। ফলে দেশে সিমেন্টের উৎপাদন প্রায় ৯০ শতাংশ কমে গেছে। এ কারণে এমনিতেই ইন্ডাস্ট্রি পরিচালনা করে শ্রমিক-কর্মচারিদের বেতন-ভাতা চালিয়ে যাওয়াই দুরুহ হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে শিপ হ্যান্ডলিং বিল দ্বিগুণ করে দেওয়ায় সিমেন্ট খাতের প্রতিষ্ঠানগুলো প্রচণ্ডভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। এটি প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, এই সংকটময় মুহূর্তে যেখানে প্রধানমন্ত্রী সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন উৎপাদন চালু রাখতে, সেখানে শিপ হ্যান্ডলিং বিল বৃদ্ধি শিল্পের উপর বড় আঘাত।এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি গ্রুপ অব কোম্পানির দায়িত্বশীল কর্মকর্তা অর্থসূচককে বলেন, আমরা চাল ছাড়া বাকী প্রায় সব নিত্য পণ্যে অনেকাংশে আমদানির উপর নির্ভরশীল। তাই জাহাজ থেকে পণ্য নামানোর বিল বাড়লে পণ্য মূল্যের উপর তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

এদিকে আজ আগামী অর্থবছরের বাজেট নিয়ে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডি এক সংবাদ সম্মেলনে করোনার প্রভাবে মানুষের আয়-রোজগার কমে যাওয়ায় পণ্য মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে সরকারকে। বাজটে অগ্রাধিকার দিতে বলেছে কর্মসংস্থানমূলক খাতকে।

এমন অবস্থায় পণ্য মূল্য সহনীয় রাখার স্বার্থেই জাহাজ থেকে পণ্য খালাসের বাড়তি বিল প্রত্যাহার খুবই জরুরি। তাছাড়া কর্মসংস্থানের বিবেচনায়ও বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ নির্মাণ খাতের বিপুল পরিমাণ মানুষের কর্মসংস্থান জড়িত। নির্মাণ উপকরণের মূল্য যত সহনীয় হবে, নির্মাণ কাজে তত গতি ফিরবে, আর তত বেশি সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হবে সেখানে।(অর্থ সূচক)


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button