খেলাধুলা

পিএসজিকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ম্যানসিটি


তারকায় ঠাসা পিএসজিকে হারিয়ে দিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। যদিও প্রথম দেখায় পিএসজির কাছে পাত্তা পায়নি দলটি। সেই সিটি নিজেদের মাঠে মেসি-নেইমার-এমবাপেদের জিততে দেয়নি। তাতে গ্রুপ পর্ব থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েই উয়েফা লিগের পরের রাউন্ডে উঠেছে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

বুধবার রাতে শক্তিশালী পিএসজিকে ২-১ গোল ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। দলের হয়ে একটি করে গোল করেন রাহিম স্টার্লিং এবং গ্যাব্রিয়েল জেসুস। অন্যদিকে পিএসজির একমাত্র গোলটি কিলিয়ান এমবাপের।

হারলেও গ্রুপ রানারআপ হয়ে পরের পর্বে উঠেছে পিএসজি।

মেসি-নেইমারদের পরাজয় বরণ করতে হয়েছে আরেক ব্রাজিলিয়ান তারকা গ্যাব্রিয়েল হেসুসের কাছে। ম্যাচের শেষ গোলটি এসেছে তার পা থেকেই। যেটাকে আর শোধ করতে পারেনি ফরাসি ক্লাবটি।

ঘরের মাঠে খেলা হলেও বল দখলে পিএসজির সমানে সমান ছিল ম্যানসিটি। তবে স্বাগতিক সুবিধা পাওয়ায় আক্রমণে মেসি-নেইমারদের চেয়ে ঢের এগিয়ে ছিল সিটি। এরপরও পাচ্ছিলো না কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা। ফলে প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয় শূন্যতেই।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে অনেকটা গোছালো ফুটবল খেলতে থাকে সফরকারীরা। এরই সুবাদে ৫০তম মিনিটের মাথায় গোল পেয়ে যায় পিএসজি। ডি-বক্সের বাইরে আন্দের এররেরার সঙ্গে ওয়ান-টু-ওয়ান খেলে ভিতরে ঢুকে ডান দিকে পাস দেন মেসি। প্রতিপক্ষের একজনের পা ছুঁয়ে বল চলে গেল অরক্ষিত এমবাপের পায়ে। ঠাণ্ডা মাথায় কাছের পোস্ট দিয়ে গোলটি করলেন ফরাসি ফরোয়ার্ড।

তবে বেশিক্ষণ লিড ধরে থাকতে পারেনি পিএসজি। ম্যাচের ৬৩তম মিনিটে বাঁ থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে বাইলাইনের কাছ থেকে লাফিয়ে নেওয়া ভলিতে গোলমুখে বল বাড়ান কাইল ওয়াকার। আলতো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন স্টার্লিং।

এরপর চাপ ধরে রেখে ম্যাচের ৭৬তম মিনিটে জেসুসের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। বার্নার্ডো সিলভার পাস থেকে বল পেয়ে ডান পায়ের শটে পিএসজির জালে বল জড়ান এই ব্রাজিলিয়ান তারকা। তার খানিক আগেই গোল করার দারুণ এক সুযোগ ছিল নেইমারের। ১৮ গজ দূর থেকে তার নেয়া জোরালো শট চলে যায় গোল পোস্টের বাইরে।

পাঁচ ম্যাচে চার জয়ে ১২ পয়েন্ট সিটির। দুটি করে জয় ও ড্রয়ে ৮ পয়েন্ট পিএসজি। ক্লাব ব্রুজের সমান ৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে উঠেছে লাইপজিগ।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button