ধর্ম ও জীবন

একাদশীতে কি কি খাবেন কি কি খাবেন না, জেনে নিন শ্রাস্ত্রীয় তথ্য

  • 33
    Shares

রনজিত কুমার পাল( বাবু), ঢাকা জেলা প্রতিনিধি: একাদশীতে কিছু — সবজি , ফলমূলাদি গ্রহণ করতে পারেন। যেমন — গোল আলু , মিষ্টি আলু ,মিস্টি কুমড়ো , পেঁপে , টমেটো, , ফুলকপি ইত্যাদি সবজি ঘি অথবা বাদাম তৈল দিয়ে রান্না করে ভগবানকে উৎসর্গ করে আহার করতে পারেন । হলুদ, মরিচ, ও লবণ ব্যবহার্য ।
আবার অন্যান্য আহায্য যেমন — দুধ ,কলা , আপেল , আঙ্গুর, আনারস, আখঁ, আমড়া শস্য, তরমুজ, বেল, নারিকেল, মিষ্টি আলু , বাদাম ও লেবুর শরবত ইত্যাদি ফলমূলাদি খেতে পারেন ।

□ একাদশীতে পাচঁ প্রকার রবিশস্য গ্রহণ করতে নিষেধ করা হয়েছেঃ—

□ ১। ধান জাতীয় সকল প্রকার খাদ্য যেমন – চাউল,মুড়ি, চিড়া, সুজি, পায়েশ, খিচুড়ি, চাউলের পিঠা, খৈ ইত্যাদি

□ ২। গম জাতীয় সকল প্রকার খাদ্য যেমন – আটা,ময়দা, সুজি , বেকারীর রূটি , বা সকল প্রকার বিস্কুট ,হরলিকস্ জাতীয়
ইত্যাদি ।

□ ৩। যব বা ভূট্টা জাতীয় সকল প্রকার খাদ্য যেমন — ছাতু ,
খই , রূটি ইত্যাদি ।

□ ৪। ডাল জাতীয় সকল প্রকার খাদ্য যেমন — মুগ মাসকলাই ,খেসারী , মসুরী, ছোলা অড়রহ , ফেলন, মটরশুটি,
বরবঢী ও সিম ইত্যাদি ।

□ ৫। সরিষার তৈল , সয়াবিন তৈল, তিল তৈল ইত্যাদি । উপরোক্ত পঞ্চ রবিশস্য যেকোন একটি একাদশীতে গ্রহণ করলে
ব্রত নষ্ট হয় ।

□ উল্লেখ্য যারা সাত্ত্বিক আহারী নন এবং চা , বিড়ি / সিগারেট পান কফি ইত্যাদি নেশা জাতীয় গ্রহণ করেন, একাদশী ব্রত
পালনের সময়কাল পর্যন্ত এগুলি গ্রহণ না করাই ভালো ।
□ একাদশী করলে যে কেবলমাত্র নিজের জীবনের সদ্গতি হবে তা নয় । একাদশী ব্যক্তির প্রয়াত পিতা / মাতা নিজ কর্ম
দোষে নরকবাসী হন , তবে সেই পুত্র ই (একাদশী ব্রত ) পিতা – মাতাকে নরক থেকে উদ্ধার করতে পারে ।
একাদশীতে অন্ন ভোজন করলে যেমন নরকবাসী হবে , অন্যকে ভোজন করালেও নরক বাসী হবে ।

কাজেই একাদশী পালন করা আমাদের সকলেরই কর্তব্য ।


  • 33
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন