রাত ৩:০৮ মঙ্গলবার ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

প্রযুক্তিবিদ মোস্তফা জব্বারকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বাংলাদেশ অনলাইন মিডিয়া এসোসিয়েশন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জানুয়ারি ৪, ২০১৮ , ১২:৫৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ অনলাইন মিডিয়া এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী প্রযু্ক্তিবিদ মোস্তফা জব্বারকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বাংলাদেশ অনলাইন মিডিয়া এসোসিয়েশন (বোমা) । এ সময় উপস্থিত ছিলেন  দেলোয়ার হোসেন (ব্যবস্থাপনা সম্পাদক, তরঙ্গ নিউজ), একেএম শরিফুল ইসলাম খান, অয়ন আহমেদ, সাদাত স্বপন, রেজা চৌধুরী, মোঃ সজিব খান, আবিরুল সালেকিন, আশরাফুল ইসলাম সহ বোমার অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বুধবার (০৩ জানুয়ারি) বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) কারওয়ান বাজারে নিজস্ব কার্যালয়ে এ সংবর্ধনার আয়োজন করে।

আইসিটি ও টেলিকম সেক্টরকে নিয়ে তিনি বলেন এই সেক্টরের বাজে অবস্থার কথা সম্পর্কে জানতাম, তবে যা জানি অবস্থা তার চেয়েও আরো খারাপ। এই সেক্টরে আরো বহু সমস্যা আছে। টেলিকমে সমস্যাগুলো ক্যান্সারের মতো বাসা বেঁধে আছে মনে করেন তিনি। এই সমস্যা সমাধানের জন্য তাদের কোনো উদ্যোগ বা পরিকল্পনা চোখে পড়েনি। শুধুমাত্র এটা আমার একটি রাতের অভিজ্ঞতা।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়ার পর এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেছে নবনিযুক্ত মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

টেলিকমের ভিতরটা ঘুণে ধরা অবস্থায় ছিলো বলেই প্রধানমন্ত্রী এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, বলে মনে করেন নতুন দায়িত্ব পাওয়া মন্ত্রী। যার কারণেই হয়তো আগের প্রতিমন্ত্রীকে পরিবর্তন করা হয়েছে। এ বিষয়ে আমি আর কিছু বলতে চাই না। এটা আমার জন্য চ্যালেঞ্জ। ট্রাডিশনাল মন্ত্রীর যে ধারণা, সেটা আমি মানি না। আমি কাজে বিশ্বাসী।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার ছাত্র মোস্তাফা জব্বার টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমার সৌভাগ্য আমি বেসিস-এর সভাপতি হিসেবে সরকারি পতাকা ওড়ানো গাড়িতে চড়ে এখানে এসেছি। তিনি বলেন আমি প্রথমে ট্রাভেল এজেন্সির ব্যবসা শুরু করি। কিন্তু সবাই আদম ব্যাপারি বলায় সেটা ছেড়ে দেই।

তিনি বলেন, আমি কম্পিউটারের কেউ না। আমি বাংলাভাষা ও সাহিত্যের ছাত্র। ১৯৮৬ সালে আমি প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটারের একটি কোর্সে ভর্তি হই। প্রথম দিনের এক ঘণ্টার ক্লাস শেষে আমি তা ছেড়ে দেই। ১৯৮৭ সালের ২৮ এপ্রিল আমি একটি কম্পিউউটার কিনি। এটা বাসায় নিয়ে এসে চালাতে শুরু করি। কিছুদিন পর বুঝতে পারি আগের বছর ক্লাসে স্যার কম্পিউটার সম্পর্কে যে জটিল জ্ঞান দিয়েছিলেন, তা আসলে সত্য নয়!

মোস্তাফা জব্বার বলেন, তথ্য-প্রযুক্তিতে পড়া আন্ডার গ্রাজুয়েট যে ছেলেটি এক বুক স্বপ্ন নিয়ে পড়তে এসেছে, তার স্বপ্নপূরণে সহায়তা করাই মন্ত্রী হিসেবে আমার কাজ। এই সেক্টরে যত জটিলতা আমি বাইরে থেকে দেখেছি, এই সেক্টরের মন্ত্রী হিসেবে তা সমাধান করাই আমার কাজ।

আন্ডার গ্রাজুয়েট করা একটি ছেলে ফেসবুকে আমাকে ট্যাগ করে লিখেছে, ‘আমি কম্পিউটার সাইন্স’র স্টুডেন্ট। টেলিভিশনে দেখছি মোস্তফা জব্বার মন্ত্রী হিসাবে শপথ নিচ্ছেন। মনে হচ্ছে যেন আমিই শপথ নিচ্ছি’।

শুভাচ্ছার্থীদের আনা কয়েকশ’ বাহারি ফুলের তোড়ায় সয়লাব হয়ে যাওয়া বেসিস অফিসে আপ্লুত মোস্তফা জব্বার তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘মানুষের জীবনে এর চেয়ে বড় কমপ্লিমেন্টস বোধহয় আর নেই। আমার মন্ত্রিত্বের খবরে আমার গ্রামের মেয়েরা মিছিল বের করে। অনেকে ফোন করে খুশিতে কেঁদে ফেলেছে।

 

Comments

comments