রাত ১০:৩৮ রবিবার ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

পলাশবাড়ীতে বজ্রপাতে শুকর পালনকারী নিহত | কালীগঞ্জে ৪০০ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক | কালীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র মরহুম মকছেদ আলী বিশ্বাসের মৃত্যুবার্ষিকী পালন | গাইবান্ধা সরকারি কলেজে ছাত্র ইউনিয়নের বিক্ষোভ সমাবেশ | ঝিনাইদহের বাদপুকুরিয়ার সিরাজের অপকর্ম ফাঁস; দুর্বলতার সুযোগে দেহ ব্যবসা | ফুলছড়িতে ৪ দিনব্যাপী কৃষি মেলার উদ্বোধনে ডেপুটি স্পিকার | ৪ হাত ও ৩ পা নিয়ে বিস্ময়কর এক শিশুর জন্ম! | ঝালকাঠিতে আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষে জেলা পুলিশের মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত | ঝালকাঠির রাজাপুরে আলোচিত শুভ হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার | রাবিতে তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কুশপুত্তলিকা দাহ |

মির্জাপুরের সেই দশ যুবক পাবে কি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ১৪, ২০১৭ , ৪:৪৩ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ঢাকা
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাব্বি ইসলাম, টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ  ১৯৭১’র বীরগাথা’র কিছু কথা বলছি। বলছি সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধাদের কথা। তারা ছিলেন ১০ যুবক। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় তারা থামিয়ে দিয়েছিলেন  এক নির্মম রাজাকারকে। যার নেতৃত্বে মির্জাপুরে চলেছে হত্যাযজ্ঞ ও জ্বালাও-পোড়াও, লুটপাট। শান্তি কমিটির ওই চেয়ারম্যান মাওলানা ওয়াদুদকে (ওদুদ মওলানা নামে পরিচিত) খতমকারী দশ যুবকের মধ্যে এত দিনে সাতজন না ফেরার দেশে চলে গেছেন। বেঁচে আছেন তিনজন।

 জীবন বাজি রেখে কুখ্যাত রাজাকার মাওলানা ওয়াদুদকে হত্যা করার মাধ্যমে হত্যাযজ্ঞ ও জ্বালাও পোড়াও লুটপাত থেকে মির্জাপুরকে রক্ষা করলাম কিন্তু স্বাধীনতার ৪৬ বছর পরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলাম না। এসকল কথাগুলো তরঙ্গ নিউজকে বললেন মির্জাপুরের পোষ্টকামুরী গ্রামের মৃতঃ চান্দু মিয়ার ছেলে মোঃ হেলাল উদ্দিন।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে জীবন বাজি রাখা সেই দশ যুবক কি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাবেন? এ প্রশ্ন এখন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, এলাকাবাসী ও দশ যুবকের পরিবারের।

মির্জাপুর পৌর সদরের বাইমহাটি গ্রামের বাসিন্দা ওয়াদুদের নেতৃত্বে ৭১’র ওই সময়ে মির্জাপুরে সংঘটিত হতে থাকে একের পর এক হত্যাযজ্ঞ ও জ্বালাও-পোড়াও লুটপাত। সেই দিনের সেই অসহায় অবস্থা থেকে স্থানীয়দের জানমাল রক্ষায় জীবন বাজি রেখে এগিয়ে আসেন দশ যুবক। তারা পরিকল্পনা করেন কুখ্যাত রাজাকার মাওলানা ওয়াদুদকে খতম করার। পরিকল্পনা মাফিক তারা সফলও হন।

তবে ৭৫ পরবর্তী সময়ে মাওলানা ওয়াদুদের বড় ছেলে রাজাকার মাহাবুব হয়ে ওঠেন প্রশাসনের খুব কাছের লোক। তার ক্ষমতার কাছে স্থানীয়রা সহ ঐ দশ যুবক ও তাদের পরিবার হয়ে পড়েন অসহায়। মাহাবুবের ক্ষমতায় একের পর এক মিথ্যা অভিযোগে বহুবার জেল-জুলুমের শিকারও  হয় দশ যুবক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

জানা যায়, সেদিনের সেই জীবনবাজি রাখা ১০ যুবকের সাতজনই এখন না ফেরার দেশে চলে গেছেন। আবার যে তিনজন বেঁচে রয়েছেন তারাও ভুগছেন নানা শারীরিক অসুস্থতায়।

সেদিনের সেই দশ বীর যুবক হলেন পৌর সদরের  পোষ্টকামুরী গ্রামের মোঃ হেলাল উদ্দিন (জীবিত), আলেপ মিয়া (জীবিত), মোঃ আমজাদ হোসেন (মৃত) বড় ছেলে বুরজু মুন্সী (মৃত), সেজু ছেলে আয়নাল হক (মৃত), ছোট ছেলে নুরু মিয়া (জীবিত), মোঃ  নোয়াব আলী (মৃত), আবুল কাশেম কাচ্ছেদ সাবেক (ইউপি) চেয়ারম্যান (মৃত), মোঃ শাজাহান মিঞা (মৃত), মোঃলাল মিয়া সাবেক কাউন্সিলর (মৃত), ।

অভিযোগ রয়েছে,স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর এদেশীয় অনুচর কুখ্যাত রাজাকার মাওলানা ওয়াদুদ ও তার দুই ছেলে মাহবুব হোসেন ও আব্দুল মান্নান মির্জাপুরে দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা, তার ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহা রবি, মাজম আলী শিকদারসহ প্রায় অর্ধশত ব্যক্তিকে নির্বিচারে হত্যা করে। বাসায় আওয়ামী লীগের অফিস থাকার অপরাধে পুষ্টকামুরী গ্রামের জয়নাল সরকারকে ঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এভাবে একের পর এক চলা হত্যা ও জ্বালাও-পোড়াও’র ঘটনায় মির্জাপুরের মানুষ হয়ে পড়ে অসহায়।

সেই অসহায় অবস্থা থেকে রক্ষা পেতে মাওলানা ওয়াদুদকে খতম করেন দশ যুবক। তারা পরিকল্পনা মাফিক হামলা চালিয়ে পৌর সদরের কলেজ রোডে মাওলান ওয়াদুদকে খতম করেন। ফলে মির্জাপুরবাসী আরও ভয়ঙ্কর ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পায়।

সেই জ্বালাও- পোড়াও, লটপাতের মূল হোতা মাওলানা ওয়াদুদকে যেসব দেশপ্রেমিক বাঙ্গালি হত্যা করেছে তারা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পাবে কি না তা নিয়ে মির্জাপুরে চলছে ব্যাপক আলোচনা।

বর্তমান সরকার সারাদেশে চিহ্নিত রাজাকারদের বিচারের ব্যবস্থা করায় দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা ও তার ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহা হত্যা মামলায় মাওলানা ওয়াদুদের বড় ছেলে রাজাকার মাহাবুব গত প্রায় ছয় মাস ধরে জেল হাজতে রয়েছেন।

জানা গেছে, স্বাধীনতা যুদ্ধে সরাসরি অংশ নেয়া ও বিভিন্নভাবে অবদান রাখা ব্যক্তিদের নতুন করে যাচাই-বাছায়ের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান সরকার।

নতুন করে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার সরকারি উদ্যোগের পরিপ্রেক্ষিতে অনেকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেতে অনলাইনে আবেদন করেছেন। কিন্তু ওই দশ যুবকের অধিকাংশের পরিবার সে খবর জানে না। জীবিত তিনজনের দুজন আবেদন করেছেন অনলাইনে। ইতিমধ্যে তারা যাচাই-বাছাই কমিটির কাছে সাক্ষাৎকারও দিয়েছেন। কিন্তু মৃত সাতজন ও জীবিত একজনের পরিবার বাদ পড়েছেন এই সুবিধা থেকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নানা কারণে দুই দফা পিছিয়ে অনলাইনে আবেদনকারীদের প্রথম দফা সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে তারিখ নির্ধারণ করে পুনরায় যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শুরু করা হবে।

“ওই ১০ জনের একজন জীবিত সদস্য মোঃ হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘কী পাব কী পাব না সেই আশায় রাজাকার ওয়াদুদকে খতম করিনি। মির্জাপুরের মানুষকে এবং দেশের শত্রুকে খতম করেছি সেটাই ছিল ‘বড়’ কথা।”

অপারেশনে অংশ নেয়া সদস্য মৃত মোঃ নোয়াব আলীর বড় ছেলে মোঃ মাসুদ রানা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের সরকার যদি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করতে পারে তাহলে বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার কেন একজন চিহ্নিত রাজাকার হত্যাকারীদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিতে পারবে না। তিনি সেদিনের সেই দশ যুবককে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেয়ার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক দুর্লভ বিশ্বাস বলেন, মাওলানা ওয়াদুদ সহযোগিতা না করলে যুদ্ধের সময় মির্জাপুরে এত গণহত্যা ও জ্বালাও-পোড়াও হতো না। এ ছাড়া তার পরিকল্পনাতে দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা ও তার পুত্র ভবানী প্রসাদ সাহাকে হত্যা করা হয়। মাওলানা ওয়াদুদকে খতমকারীরা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তবে নির্ধারিত সময়ে অনলাইনে আবেদন না করায় স্থানীয়ভাবে তাদের জন্য কিছু করার নেই বলে জানান তিনি।

Comments

comments