দেশজুড়ে

নড়াইল হাইব্রিড ঘাস চাষে জুই বেগম সাবলম্বী

কামরুজ্জামান অন্তর,নড়াইল,কালিয়াঃ নড়াইল জেলার অন্তর্গত কালিয়া উপজেলার প্রত্যান্ত একটি গ্রাম মল্লিকপুর।উক্ত গ্রামে ব্রাক ২০১৯ কোহর্টের তাদের সবচেয়ে স্বনামধন্য কর্মসূচি ইউ পি জি আল্ট্রা পুওর গ্রাজুয়েশন কর্মসূচি চালু করে।এই গ্রামেরই এক হতদরিদ্র পরিবারের সদস্য এই জুই বেগম। তিনি ২০১৯ কোহর্টের ব্রাক মাউলি কালিয়া নড়াইল শাখা অফিসের আল্ট্রা পুওর গ্রাজুয়েশন কর্মসূচির চুড়ান্তভাবে নির্বাচিত একজন সদস্য।

উক্ত কর্মসূচির সদস্য হিসাবে  জুই বেগম ব্রাক থেকে দুই দিনের গবাদি প্রাণী পালনের উপর প্রশিক্ষন গ্রহন শেষে ব্রাক থেকে একটি বকনা গরু পায়। ঐ বকনা গরুটি পালনের জন্য নিয়মিতভাবে ব্রাক বিভিন্ন সহযোগিতা প্রদান করে।এরই ধারাবাহিকতায় ব্রাক মাউলি কালিয়া শাখা কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ তাকে হাইব্রিড নেপিয়ার ঘাস চাষে উদ্বুদ্ধ করেন।কিন্তুু নিজের কোন জমি না থাকায় জুই বেগম সমস্যার সম্মুক্ষিন হন।কিন্তুু ব্রাকের সহযোগিতা অব্যহত থাকার কারনে সে তার বাড়ীর পাশে দশ শতাংশ পতিত জমি লিজ নেয় এবং প্রাথমিকভাবে সেখানে সে ঘাস চাষ শুরু করে।

প্রথম অবস্হায় ব্রাক প্রদত্ত বকনা গরুটির খাদ্যর অভাব পূরন হতে থাকে চাষকৃত এই ঘাসে।পরবর্তিতে ঘাস একটি লাভজনক ব্যবসা বিধায় তিনি এই ঘাস চাষ বাড়ানোর পরিকল্পনা করেন এবং আরও পনের শতক জমিতে উক্ত   ঘাস চাষ করেন যা বর্তমানে তার দুইটি গরুর খাবারের চাহিদা পূরনের পর তিনি পাশে এরেন্দা বাজারে অতিরিক্ত ঘাস বিক্রি করে মাসে তিন থেকে চার হাজার টাকাও আয় করছেন।বর্তমানে তার দিন মজুর স্বামী তার এই ষাস চাষে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন।তাদের তিনটি সন্তানের লেখাপড়ার খরচও এই ঘাস চাষ করে ভালভাবেই চলিয়ে যাচ্ছে।তার বর্তমানে দুইটি গরু, একটি ছাগল ও দশটি হাঁস মুরগি রয়েছে এবং বিশ শতাংশ জমি লিজ নিয়ে  মূসরির ডাল চাষ করেছে তারা।জুই বেগমের এই ঘাস চাষে উদ্বুদ্ধ হয়ে তার এলাকায় অনেকে ঘাস চাষ শুরু করেছে।তাই উক্ত এলাকায় জুই বেগমের নেপিয়ার ঘাস চাষ একটি রোল মডেল হিসাবে বিবেচিত।

Comments

comments