ভোর ৫:১৭ সোমবার ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

উল্লাপাড়ায় জেডিসি পরীক্ষা কেন্দ্রে ৪ শিক্ষক ও ১ পরীক্ষার্থী বহিস্কার

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ৭, ২০১৯ , ৭:৩৯ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজশাহী
পোস্টটি শেয়ার করুন

উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ উল্লাপাড়ায় বুধ ও বৃহস্পতিবার এই দু’দিনে কয়ড়া ফাজিল ডিগ্রী সিনিয়র মাদ্রাসার জেডিসি ও নবম (ভোক) ফাইনাল পরীক্ষা কেন্দ্রে ৪জন শিক্ষককে পরীক্ষা কক্ষে অনিয়মের জন্য এবং কেন্দ্র সচিবকে অব্যাহতি ১জন পরীক্ষার্থীকে অসুদপায় অবলম্বনের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

পরীক্ষা কেন্দ্রে অনিয়ম অব্যবস্থাপনার কারণে জেডিসি ও নবম (ভোক) পরীক্ষা কেন্দ্র-২ এর সচিব এই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা শাহজাহান আলীকে দায়িত্বে থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে সেই সাথে ৩ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার মোসলেম উদ্দীনকে এই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বৃহস্পতিবার পরীক্ষার শুরুর পূর্বে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে তিন বস্তা নকল উদ্ধার করেছেন ইউএনও মোঃ আরিফুজ্জামান।

বহিস্কৃত শিক্ষার্থী হলেন, নুপুর খাতুন এবং শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন, ভাদালিয়াকান্দী দাখিল মাদ্রাসার আব্দুর রউফ, দহকুলা মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মোঃ শাহাদৎ হোসেন, রাউতান দাখিল মাদ্রাসার খুরশিদ আলম এবং গয়হাট্টা বারো আউলিয়া মাদ্রাসার সহকরী শিক্ষক মোঃ খায়রুল ইসলাম । এই ৪ শিক্ষককে বুধবার আরবি ২য় পত্রের পরীক্ষায় পরীক্ষা কক্ষে অনিয়মের কারণে বহিষ্কার করা হয়।

এবং নুপুর খাতুনকে নবম শ্রেণির (ভোক) কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করা হয় বৃহস্পতিবার।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আরিফুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১২ কিলেমিটার দুরে কয়ড়া ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসায় প্রতিষ্ঠিত নবম শ্রেণির (ভোক) পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে তিনি দেখতে পান অধিকাংশ পরীক্ষার্থী নকল নিয়ে পরীক্ষা কক্ষে ঢুকছে। এসময় সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মাহবুব হাসান ও একাডেমিক সুপারভাইজার মোসলেম উদ্দীনের সহযোগিতায় শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে তিন বস্তা নকল উদ্ধার করা হয়।

নির্বাহী কর্মকর্তা আরো জানান, এই মাদ্রাসা কেন্দ্রে এর আগেও শিক্ষার্থীদেরকে পরীক্ষায় নকল করানো হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া ম্যাজিস্ট্রেট পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢোকার খবরটি আগে পাবার জন্য রাস্তায় লোক নিয়োগ করে রাখা হয় বলেও তিনি জানতে পেরেছেন। এসব কারণে তিনি কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব অব্যাহতি দিয়ে ৩দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর চিঠি দিয়েছেন বলে জানান।

Comments

comments