রাত ৪:১৮ সোমবার ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

হায় আবরার! হায় খুনী!

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ২০, ২০১৯ , ১২:১৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : মুক্তমত
পোস্টটি শেয়ার করুন

মুন্না। আমার একমাত্র ছেলের ডাক নাম। কেজি স্কুলের প্লে ক্লাস থেকেই অপু তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু। মানে ছেলে বেলার বন্ধু । অপু খুব মেধাবী। মুন্না অতটা না । তবে অপুর বন্ধু হওয়ার মত যোগ্যতা ছিল। অপুকে নিয়ে মুন্না মাঝে মধ্যেই বাড়িতে আসতো । মুন্নার মা এমনিতেই অতিথী পরায়ন । আর ছেলের বন্ধুরা আসলে তো কথায় নাই । হাতের কাছে যা পেত তাই খাওয়াতো। আদর স্নেহ করতো সন্তানের মত। আমি ও কতবার যে অপুর মাথায় হাত বুলিয়েছি তার হিসাব নাই। অপু ক্যাডেট কলেজে ভর্তি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে টাংগাইল শাহীন ক্যাডেট কোচিং এ ভর্তি হলো । বন্ধুহারা মুন্না হতাশ। বাবা মার স্নেহে যেন মন ভরেনা। অপুর সংগে থাকা চাই। বায়না ধরলো, আমিও শাহীন ক্যাডেট কোচিং এ ভর্তি হবো। শাহীন ক্যাডেট কোচিং তো ভালো, আপত্তি করলাম না। ওর মা সহ ওকে নিয়ে রওনা দিলাম টাংগাইলে ক্যাডেট কোচিং এ ভর্তি করাতে ছেলেকে। দূরে রাখার দুশ্চিন্তায় ওর মা সারা রাস্তা কাঁদতে কাঁদতে গিয়েছিল। আমারও মন খারাপ । মা কাদেঁ, ছেলে হাসে । ভর্তি নীতিমালায় হলোনা । উচ্চতা বেশি। অপুর সংগে থাকার সুযোগ হলো না মুন্নার। ফেরার পথে মা হাসে, ছেলে কাঁদে। যা হোক শেষ পর্যন্ত অপু ক্যাডেট কলেজে ভর্তির সুয়োগ পাইনি। ফিরে এলো মোহনপুর। মোহনপুর সরকারি হাই স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় সে ১ম হয়েছিল। পরে সকল ক্লাসেও প্রথম এবং এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডন এ প্লাস।
অপু কাউকে না জানিয়ে ইন্টানেট ওয়েব সাইডে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি দেখে রাত্রের ট্রেন ধরে ঢাকা নটরমেড কলেজে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে পাশ করে। সেখানে ভর্তি হয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেয়। কৃতিত্বের সংগে এইচ,এস,সি পাশ করে বুয়েটে ভর্তি।মুন্না রাজশাহীর নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজ হয়ে রুয়েটে। সন্ধ্যায় মুন্নার বাড়ি আসার কথা। মুন্না বাড়ি আসেনা। ফোন করি, তুমি কোথায় বাবা, এখনো বাড়ি এলেনা? আব্বু আজ অপু আসবে, তাই ষ্টেশনে অপেক্ষা করছি। অপুর যাওয়া আসার অভ্যার্থনা আর বিদায়ে তার থাকা চাইই। সে কি বন্ধুত্ব । ভালোই লাগে ভালো ছেলের সাথে বন্ধুত্ব। অপুর বাড়ি গেলেও অপুর মা-বাবা তাকে নিজ সন্তানের মতই আদর যত্ন করে । এই তো বছর দুয়েক পূর্বে অপু এবং তার বন্ধুদের সামনেই মুন্না মটর সাইকেলে এক্সিডেন্ট করলো। অপুরা মুন্নাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলো । যে কয়দিন অপু বাড়ি ছিল প্রতিদিন সে আমার বাড়ি এসে মুন্নার ক্ষতস্থানে ড্রেসিং করে দিতো। অপুর আচরণ ব্যবহার কোথাও কোন ত্রুটির কথা এলাকাবাসীর জানা নাই। অপু আমার রক্তের সম্পর্কের কেউ না । তবু তাকে সন্তানের মতই স্নেহ করি। আমার বিশ্বাস মেধাবী অপুকে আমার মতই এলাকার অনেকেই সন্তানের মতই স্নেহ করে। এতক্ষণ যে অপুর কথা বললাম, এই সেই অনিক সরকার। আবরার ফাহাদের খুনীদের একজন।

অনিক কে আমি কখনো তুই সম্বোধন করিনি। কিন্তু এখন করছি, এজন্য যে অনিক এখন সারা দেশে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য আর ঘৃনার প্রতীকে পরিণত হয়েছে। অনিক, স্কুল জীবনে তোর কানে এ বার্তা পৌছে দেওয়া হয়েছিল যে, পথ ভ্রষ্টদের সংগী হতে নেই। সহপাঠীসহ তোর হাতে ধুমপান মাদক বিরোধী লিফলেট ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তুই কি করে এসব ভূলে গেলি! তুইতো খারাপ ছিলিনা অনিক। এক বছর পূর্বেও তুই ভাল ছিলি। তোর বাবা-মাকে এলাকার লোকেরা এমনকি তোর বন্ধুরাও ফেসবুকে অনেক গালি গালাজ করছে। আমি সবার উদ্দেশ্যে বলতে চাই ওর বাবা মার কোন দোষ নাই। পরিবেশ আর অসুস্থ রাজনীতিই অনিককে পথ ভ্রষ্ট করেছে।

দেখ অনিক, আমার বয়স যখন ঠিক তোর বয়সের সমান ১৯৮৬ সাল। স্বৈরাচার এরশাদের শাসন আমলে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে কয়েকজন ছাত্রসহ সাধারণ মানুষ নিহত হয়। তখন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের ছাত্রদের উদ্যোগে একটি দেওয়াল পত্রিকা বের হয়। সেই পত্রিকায় “অমর আত্মা” নামে আমারও একটি কবিতা প্রকাশ পেয়েছিল। (কবিতাটির স্মৃতি স্বরুপ আমার রাগ অনুরাগ কাব্যের অন্তর্ভুক্ত করে রেখেছি) কবিতাটির শেষ অংশটি ছিল এই রকম-
“এই যে এখানে দেখছো এত মানুষ
এদের আত্মা আমারই আত্মার অংশ
এরা সবাই আমারই ভাই, আমারই বোন
এদের বুকে গুলি ছুডবে!
সাবধান! এক আত্মার বিস্ফোরণে
আবারও জন্ম নেবে লক্ষ আত্মা
দেশের সব জঙ্গল কেটে করে দিবে সাফ
তখন হে মানুষ খেকো বুনো বাঘ
কোথায় লুকোবে! ভেবে দেখেছো।”

তোরাতো অনেক মেধাবী। তোর মেধার কাছে আমিতো ছাই । তারপরেও আমি সেই বয়সেই সবাইকে আমার আত্মার অংশ, আমার ভাই বোন হিসেবে উপলদ্ধি করেছিলাম। আর তুই সেই একই বয়সে তোর ভাইকেই পিটিয়ে মেরে ফেললি! আবরারের আত্মার বিস্ফোরণে লক্ষ আবরারের জন্ম হলো। তোরা কোন পালবার পথ পেলিনা।তোরা যখন আবরারকে মার শুরু করলি তখন কি একবারও মাথায় এলোনা এই আবরার কত শক্তিশালী? তোদের তো তখনই বোধদয় হওয়া উচিত ছিল যে এক আবরারকে মারতে তোদের ২২ জনের প্রয়োজন হয়। তোরা না অনেক মেধাবী! ওহ! তোদের মেধায় বা কাজ করবে কি করে, তোরা তো ঐ সময় মদ খেয়ে মাতাল ছিলি! হায়রে মেধা! মেধাবীরা আবার মদও খায়! তোরা ভেবেছিলি তোদের মত ক্ষমতাধর আর কেউ নেই। এখন দেখ এক আবরার তোদের ২২ জনকে একাই হাতে হাত কড়া পরিয়ে জেলে ঢুকিয়েছে। এক আবরার লক্ষ লক্ষ আবরার কে জাগ্রত করেছে। সারাদেশকে প্রকম্পিত করেছে। আবরার শুধু তোদের কে জেলে পুরেই ক্ষান্ত হয়নি । হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তোদের মত ক্ষমতাধর সন্ত্রাসীদের পায়ের নীচের মাটিতে কম্পন ধরিয়েছে। সবাই লেজ গুটিয়ে গর্তে ঢুকেছে। শাসক গোষ্ঠীর টনক নড়িয়েছে। আবরারের শক্তি আজ দেশের সীমা ছাড়িয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। সারা দেশের সব বাবারাই আজ আবরারের বাবা। সব মায়েরাই আজ আবরারের মা । সব ছেলে মেয়েরাই আজ আবরারের ভাই বোন। আবরারের নাম এখন ১৬ কোটি মানুষের চোখের জলের সংগে মিশে গেছে। ব্যথিত হৃদয়ে খোদিত এক অবিস্মরণীয় নাম আবরার।

আবরারকে মারার সময় তোদের কি একবারও মনে হলো না, তোদের মতই এই আবরারের মা আছে, বাবা আছে। সহপাঠীর বাবা মা তো তোদেরই বাবা মা। নিশ্চয়ই তোরা তোদের সহপাঠীর বাবা মা’র বাড়িতে বেড়াতে গেছিস। তারা কি তোদেরকে সন্তানের মত আদর স্নেহ করেনি? মাথায় হাত বুলায়নি? কি ভয়ানক তোরা। তোদের কাছে তো ইবলিসও ফেল।

আবরারের জন্য চোখের পানি ঝরছেতো ঝরছেই। মুন্না কাঁদছে আমিও কাঁদছি। কেঁদে কেঁদে আবরারের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। অনিক, তোর জন্যও আমরা কাঁদছি, কেঁদে কেঁদে তোর অপরাধের শাস্তি দাবী করছি। শাস্তি তোর হতেই হবে। তুই কোটি মানুষের হৃদয় ভেঙ্গেছিস । তুই বংশকে কলংকিত করেছিস। দেশের মানচিত্রে কলংকের কালি লেপন করেছিস । তোর শাস্তি হতেই হবে।
একটা সুস্থ তরতাজা টগবগে তরুণের দেহ থেকে কি পরিমাণ নির্যাতন হলে প্রান বের হয় তা সহজেই অনুমান কর যায়। বাবা, আবরার ওপারে সুখে থেকো। হে মহান প্রভু কোটি কোটি মানুষের চোখের জল মিশ্রিত প্রার্থনা তুমি কবুল কর। তুমি আবরারকে বেহেস্তের উত্তম অংশে স্থান দিও।

শেকড়ের সন্ধানঃ প্রাচীন কবিতার একটি চরণ “নানান বরন গাভীরে ভাই একই বরণ দুধ। জগত ভ্রমিয়া দেখলাম একই মায়ের পুত”। আর আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম লিখলেন, “হিন্দু না মুসলিম ঐ জিজ্ঞাসে কোন জন কান্ডারি! বল ডুবিছে মানুষ সন্তান মোর মা’র”।

যতদিন আমাদের অভিভাকরা সব সন্তানকে এক মায়ের সন্তান হিসাবে না দেখবে ততদিন সমস্যার সমাধান হবে না। শীর্ষ পর্যায় থেকে যখন প্রতিনিয়ত কথায় কর্মে প্রতিপক্ষের প্রতি ঘৃণা হিংসা বিদ্বেষ ছড়ানো হয়, তখন তরুণ প্রজন্মের নিকট এই ম্যাসেজটিই পৌছায় যে তাদের মারলে বা মেরে ফেললে কিছু হবে না। মাসের পর মাস বছরের পর বছর প্রতিনিয়ত তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এত বেশি হিংসা বিদ্বেষ বিভক্তি ছড়ানো হয়েছে যে, তারা নীতি নৈতিকতা বিবর্জিত হয়ে পড়েছে। শিক্ষা ব্যবস্থায় নীতি নৈতিকতার বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দেওয়া হয়নি। নৈতিক শিক্ষার একটা বড় মাধ্যম ধর্মীয় শিক্ষাকে দূরে রেখে তরুণ সমাজকে ধর্মের প্রতি নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। পরিকল্পিত ভাবেই অমানুষ বা মনুষত্বহীন বানানো হয়েছে। ও প্রক্রিয়াটি বর্তমানে ফুলে ফলে ষোলকলা পূর্ণ করেছে। ফল পেকে পচে এমন দুর্গন্ধ ছুটেছে যে, তা এখন সহ্য করা কঠিন। এইতো পুরো জাতি প্রত্যক্ষ করলো রাষ্ট্রীয় পাহারায় কিভাবে তরুণদের মাথায় হেলমেট পরিয়ে সন্ত্রাসের ট্রেনিং দেওয়া হলো। এখন তাদের ঘরে ফেরানো কঠিনতো হবেই। আসলেই বাংলাদেশ এখন বিপদগ্রস্থ। যারা শিকড় উপড়াবে তারাই শিকড়। অনিক এমন ছিল না। অনিক এবং অনিকদের এ পরিণতির জন্য পরিবেশ এবং অসুস্থ রাজনীতি সম্পূর্ণরূপে দায়ী।

আবরার, তোমাকে ওরা মেছে ফেললো। এই পৃথিবীর রূপ, রস, গন্ধ, শব্দ তোমাকে স্পর্শ করতে দিলনা। তুমি মৃত্যুর সময় ওদেরকে বলেছিলে “আমার নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে।” তোমার মিনতি ওরা শোনেনি। ওরা তোমার নিঃশ্বাস বন্ধ করে দিল। বিশ্বাস কর আবরার, সত্যিই বিষাক্ত হাওয়াই এপারে আমাদের নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। আমরা এপারে ভালো নেই আবরার। তোমাকে হারিয়ে, তোমাদেরকে হারিয়ে, তোমাদেরকে যারা হারিয়ে দিচ্ছে তাদের ভবিষ্যত অন্ধকার জীবনের আশংকায় আমরা ভালো নেই। হয়তো ভালোই হয়েছে। তুমি এপারের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেয়ে। ওপারে ভালোই আছ। এখানকার আদালতের প্রতি আস্থা নাই। আস্থাবান বিচারকও নাই। এপারে যাই হোক ওপারে বিচার পাবে। তোমার নির্যাতনের ভিডিও ফুটেজ এপারে নাই কিন্তু ওপারে নিঁখুত ভিডিও ফুটেজ জমা আছে। একজন শ্রেষ্ঠ বিচারক আছেন। তিনি ঠিকই বিচার করবেন। তুমি অপেক্ষা কর। সময় হলে তোমার হত্যাকারিরাও তোমার সামনে উপস্থিত হবে। তখন প্রতিশোধ নিও।

অনিক! কবি কাজী নজরুল ইসলাম মনে হয় তোদের উদ্দেশ্যেই লিখেছিলেন, “তুই কালনাগ, জন্ম তোর বেদনার দহে”। অনিক! সত্যিই তোরা কালনাগ। তোদের বিষে আজ মানবজাতি যন্ত্রণায় জর্জরিত। পবিত্র কুরআনে ঘোষণা করা হয়েছে যে, “যে একজন মানুষকে হত্যা করলো, সে পুরো মানবজাতিকে হত্যা করলো” তোরা পুরো মানব জাতিকে হত্যা করেছিস। এ পৃথিবীতে তোদের বেঁচে থাকার কোন অধিকার নাই।

অনিক, তুই মরে যা! তোরা মরে যা! আমরাও মরে যাই। আমরাইতো তোকে, তোদেরকে তৈরী করেছি। তোরা মরে যাবি আর আমরা বেঁচে থাকবো! তাই কি হয়? আমরাও মরে যাব!। তুই ভাল মন্দ যাই হ আমাদেরই তো ফসল। অপরাধী মরবে আর অপরাধীর গুরুরা বেঁচে থাকবে। তাই কি হয়! আয়! মরে যাই।! তোর সাথে তোদের সাথে যাদের রক্তের বন্ধন, আত্মার বন্ধন, তারা তোকে ছেড়ে, তোদের ছেড়ে বেঁচে থাকতে পারে? পারে না। তুই অপরাধী! তোরা অপরাধী আমরাও অপরাধী। আয় মরে যাই। রোমিও জুলিয়েটের মত মরে এক কবরে যাই। মরে গিয়ে নতুন প্রজন্মকে বাঁচাই।

 

মোঃ গিয়াস উদ্দিন
অধ্যক্ষ
কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ
মোহনপুর, রাজশাহী।

Comments

comments