বিকাল ৪:৫৩ বৃহস্পতিবার ১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

চীন ও ভারতের প্রভাব বিস্তারের লড়াই, সুবিধা লাভের চেষ্টা বাংলাদেশের

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ১০, ২০১৯ , ৩:১২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন সময় চারদিনের সফরে ভারত গেলেন, যখন বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের নিয়ে সঙ্কট তৈরি হয়েছে এবং একইসাথে ভারতের সাথে বাণিজ্য, নিরাপত্তা, জ্বালানি ও পরিবহন সংযোগকে এগিয়ে নিতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ। এই সফরকে হয়তো দক্ষিণ এশিয়ায় বেইজিংয়ের ক্রমবর্ধমান প্রভাব ঠেকানোর জন্য ভারতের প্রচেষ্টা হিসেবে দেখা যায়, তবে বাস্তবতা অনেক জটিল। বরং ঢাকা এখানে চীন-ভারতের প্রতিযোগিতা থেকে নিজেদের সুবিধা আদায় করে নেয়ার চেষ্টা করছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বৈঠক থেকে দুটো বিষয় বেরিয়ে এসেছে: প্রথমত, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ব্যাপারে বাংলাদেশকে সাহায্যের জন্য ভারতের অন্তর্ভুক্তি; দ্বিতীয়ত, পানি নিরাপত্তা ও অবকাঠামো উন্নয়নের ভিত্তিতে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি। রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বাংলাদেশের শরণার্থী ক্যাম্পে মানবিক সহায়তা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ভারত। নজিরবিহীন ঘটনা হিসেবে ভারত, বাংলাদেশ ও চীন সবাই মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে, যাতে তারা শরণার্থীদের একটা অংশকে অন্তত ফেরত নেয়, যে আহ্বানটি নেপিদো অগ্রাহ্য করে আসছে।

সফরের দ্বিতীয় প্রধান দিক হলো পানি নিরাপত্তা ও উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা। তিস্তা ও ফেনী নদীর পানি বণ্টন নিয়ে সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে সম্মত হয়েছে নয়াদিল্লী ও ঢাকা। দুই দেশেরই পানি সঙ্কট রয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তন, অব্যবস্থাপনা ও অবহেলার কারণে এই সঙ্কট আরও বেড়েছে। সে কারণে তিস্তা ও ফেনী নদীর পানি বণ্টন চুক্তির বিষয়টি দুই দেশেরই স্বার্থের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বাইরে থেকে দেখলে, এই কূটনৈতিক সফরকে চীনের সাথে প্রতিযোগিতার প্রেক্ষিতে ভারতের বিজয় বলে মনে হবে। অন্যদিকে অবশ্য নয়াদিল্লীর সামনে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে, যদি তারা দক্ষিণ এশিয়ায় নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে চায়। এই চ্যালেঞ্জটা হলো বাংলাদেশ খুব সুক্ষ্মভাবে দুই ক্ষমতাধর দেশের মধ্যে একটা ভারসাম্য রক্ষা করছে। বাংলাদেশের সাথে ভারতের অবকাঠামো চুক্তিগুলোর ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশিত হয়নি। কিন্তু চীনের সমকক্ষ হওয়া ভারতের জন্য কঠিন হবে কারণ বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়ন খাতে আগে থেকেই বেইজিংয়ের জোরালো অবস্থান রয়েছে। ঢাকা এরই মধ্যে জ্বালানি ও অবকাঠামো খাতের জন্য চীনের কাছ থেকে ৬০০ মিলিয়ন ডলারের তহবিল পেয়েছে। বাংলাদেশে তাই চীনের বিরুদ্ধে নয়াদিল্লীর প্রতিযোগিতা করার সক্ষমতা রয়েছে কি না, সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ। আর তাছাড়া বাংলাদেশ বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের সাথেও সক্রিয়ভাবে জড়িত।

এটা সত্য যে, শেখ হাসিনার সফরের অর্থ এটা নয় যে, বাংলাদেশ ভারতের পেছনে লাইন ধরছে। বরং এটা বলাটাই বেশি সঠিক হবে যে, ভারত-চীনের প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়টি নিয়ে ঢাকা খেলছে এবং এখান থেকে সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করছে, কারণ উদীয়মান এই দুই দেশ কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশে নিজেদের প্রভাব বাড়ানোর জন্য প্রতিযোগিতায় নেমেছে। ভারতের ‘অবৈধ অভিবাসী’ বিরোধী প্রচারণার কারণে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কের বিষয়টি জটিল হয়ে উঠেছে এবং একটা ক্ষতিকর উত্তেজনা তৈরি করেছে। দুই দেশের মধ্যে শ্রমবাজার নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও রয়েছে। যদিও আকারের দিক থেকে ভারতের শ্রমবাজার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক বড়, কিন্তু বাংলাদেশের শ্রমবাজার চীনের সহায়তার কারণে অনেক বেশি সফল ও সমন্বিত হয়ে উঠেছে।

একইভাবে, ভারত ৩০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় বাংলাদেশে এর তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। সেখানে পেঁয়াজ সরবরাহের বিষয়টি রাজনৈতিকভাবে স্পর্শকাতর, কারণ খাবারে এটা ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এটা হাস্যকর শোনালেও পেঁয়াজ রফতানি নিষিদ্ধের রাজনৈতিক পরিণতি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে, যদি এর কারণে পেঁয়াজের চাহিদা পূরণের জন্য চীনের দ্বারস্থ হতে হয় বাংলাদেশকে।এর অর্থ এটা নয় যে, ভারত আর বাংলাদেশের সম্পর্কে টানাপড়েন তৈরি হয়েছে। বাস্তবতা হলো ভারত ও চীন উভয়ের সাথেই বাংলাদেশের আন্তরিক সম্পর্ক রয়েছে এবং উভয় দেশ থেকেই সুবিধা পাওয়া উচিত তাদের।সাউথ এশিয়ান মনিটর

Comments

comments