বরিশাল

হিজলায় যুবদল নেতা জহির খান যুবককে বেঁধে মলমূত্র খাওয়ানো খলনায়ক

হিজলা প্রতিনিধি।। বরিশালের হিজলা উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নের টুমচর গ্রামের মহিউদ্দিন বেপারির ছেলে আজম বেপারিকে বেধে মলমূত্র খাওয়ানোর খল নায়ক হচ্ছেন হরিনাথপুর ইউনিয়ন যুবদলের সহ সভাপতি জহির খান। জহির খান ও আজম বেপারি উভয় ৩/৪ বছর যাবত যৌথ ব্যবসা করে। ব্যবসার মূলধন সহ প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা জহির আতœসাৎ করে। ঐ টাকা চাওয়ার কারনে এ ঘটনার সৃষ্ঠি। গত ৩০ সেপ্টেম্বর মেমানিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে ধরে নিয়ে হাত পা বেধে মলমূত্র খাওয়ানো হয় আজমকে। মলমুত্র খাওয়ানোর ভিডিও গত ৭ অক্টোবর ফেইজবুলে ভাইরাল হয়। এর পর পরই হিজলা থানা পুলিশ ভিডিও ফুটেজ দেখে মাহবুব সিকদার, কবির সরদার ও রশিদ মাতুব্বর কে আটক করে।

৮ অক্টোবর রাতে ভুক্তভুগী আজমের বাবা মহিউদ্দিন বেপারি বাদী হয়ে ১০ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।
আজমের বাবা মহিউদ্দিন বেপারী বলেন আজম ও মামলার আসামী জহির ৩/৪ বছর যৌথ ব্যবসা করে। ব্যবসার মূলধন সহ প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা জহির আতœসাৎ করে। ঐ টাকা চাওয়ার কারনে এ ঘটনার সৃষ্ঠি। এলাকাবাসীর দাবী এ ঘটনার সাথে জড়িত সকলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানায়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান বলেন আজম ও জহিরের মধ্যে ব্যবসায়িক লেনদেন ছিল, এমনকি তারের ব্যবসায়ে ইদানিং হিসাব নিকাশে ঝামেলা রয়েছে। তবে এ ঘটনা ছাড়াও আজমের কিছু মেয়েলি ঘটনা রয়েছে। এই মামলা জড়িতদের রাজনৈতিক পরিচয় জানতে চাইলে তিনি বলেন যারা আটক হয়েছে তাদের কোন দলিয় পদ পদবি ইেন। কিন্তু আওয়ামিলীগ সমর্থিত।
উপজেলা যুবদলের যুগ্ন আহবায়ক রিমন দেওয়ান এর কাছে জহির খান এর রাজনৈতিক পরিচয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, জহির খান হরিনাথপুর ইউনিয়ন যুবদলের সহ সভাপতি ছিল, কিন্তু আমরা কমিটি ভেঙ্গে দিয়েছি।

সহকারী পুলিশ সুপার সুকুমার রায় বলেন এ ঘটনার সাথে জড়িত ও মামলার এজাহার ভুক্ত আসামির ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের ও আটক করা হবে।

Comments

comments