সন্ধ্যা ৬:১৩ সোমবার ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

চীন সীমান্তের কাছে যুদ্ধ মহড়া চালাবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর মাউন্টেন স্ট্রাইক কর্পস

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯ , ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আন্তর্জাতিক
পোস্টটি শেয়ার করুন

ভারতের অরুণাচল প্রদেশে আগামী মাসে দেশটির সেনাবাহিনীর মাউন্টেন স্ট্রাইক কর্পস ১০ হাজার ফুটেরও বেশি উচ্চতায় তাদের প্রথম যুদ্ধ মহড়া ‘হিমবিজয়’-এ অংশ নেবে। ১৫,০০০ সেনার সাথে মহড়ায় থাকবে ট্যাঙ্ক, মাঝারি সাঁজোয়া, হেলিকপ্টার ও পরিবহন বিমান।চীনের সাথে ভারতের নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে কিছু দূরে এই মহড়া অনুষ্ঠিত হবে। আগামী মাসে ভারতে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের একই সময়ে এই মহড়া অনুষ্ঠিত হবে।

এই মহড়াকে বিশেষ গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে, কারণ সেনাবাহিনী প্রথমবারের মতো এই মহড়ায় ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটল গ্রুপসের (আইবিজি) কর্মক্ষমতা দেখতে পারবে। সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াতের পরামর্শ থেকেই এই আইবিজিগুলো গঠিত হচ্ছে।

সূত্র জানিয়েছে পানাগড়-ভিত্তিক ১৭ কর্পস (মাউন্টেন স্ট্রাইক কর্পস) ৫৯ মাউন্টেন ডিভিশান ভেঙ্গে যে তিনটি মাউন্টেন আইবিজি গঠন করা হয়েছে, তারা এই মহড়ায় অংশ নেবে।নরেন্দ্র মোদি সরকারের শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং সেনাবাহিনী প্রধান এই মহড়ার উপর গভীর নজর রাখবেন কারণ এই আইবিজিগুলোকে ভবিষ্যতে ওয়েস্টার্ন, নর্দার্ন ও ইস্টার্ন থিয়েটারে অভিযানে মূল শক্তি হিসেবে ব্যবহারের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

মহড়ায় বিমান বাহিনী, ১৫,০০০ সেনা অংশ নেবে

অপারেশান ‘হিমবিজয়’-এ ১৫,০০০ সেনা অংশ নেবে। প্রতিটি আইবিজিতে প্রায় ৫,০০০ সেনা রযেছে এবং তাদের সাথে রয়েছে ট্যাঙ্ক, সাঁজোয়া যানসহ অন্যান্য সরঞ্জাম। বিমান বাহিনী এখানে কৌশলগত সেনা ও সরঞ্জাম পরিবহনে বিমান নিয়ে অংশ নেবে।মহড়ায় সেনাবাহিনী ডিভিশান ও বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার ছাড়াও এএন৩২, সি১৩০জে সুপার হারকিউলিস ও সি১৭ বিমানগুলোকে দেখা যাবে।

সূত্র জানিয়েছে, তেজপুর-ভিত্তিক ৪ কর্পসের সরঞ্জামাদি এই মহড়ায় ব্যবহার করা হবে, তবে সেনারা থাকবে পুরোটাই মাউন্টেন স্ট্রাইক কর্পসের। সেনাবাহিনীর সূত্রগুলো এই মহড়া সম্পর্কে সম্পূর্ণ মুখ বন্ধ রেখেছে। তবে তারা ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, এই মহড়ার একাধিক উদ্দেশ্য রয়েছে এবং বেশ কয়েক মাস ধরে মহড়ার পরিকল্পনা চলছে।

একটি সেনাসূত্র দ্য প্রিন্টকে বলেছে, “অরুণাচল প্রদেশে এই মহড়া অনুষ্ঠিত হবে এবং তিনটি আইবিজি এতে অংশ নেবে। প্রতিটি আইবিজির সেনা সংখ্যা ৫০০০”। চীনকে এ ব্যাপারে অবগত করা হয়েছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সূত্রটি জানায়, “নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে কিছুটা দূরে এই মহড়া অনুষ্ঠিত হবে”।সূত্র জানিয়েছে, একমাত্র যে অস্ত্রটি মহড়ায় ব্যবহার করা হবে না, সেটি হলো ব্রাহ্মস মিসাইল।

ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটল গ্রুপ

দ্রুত আগ্রাসী ও আত্মরক্ষামূলক অভিযান চালানোর কথা মাথায় রেখে আইবিজিগুলো গঠনের কথা পরিকল্পনা করেন জেনারেল রাওয়াত। এই আইবিজিগুলো আকারে ব্রিগেডের সমান এবং অস্ত্র সম্ভারের দিক থেকে এগুলো স্বয়ংসম্পূর্ণ।ভারতীয় সেনাবাহিনীকে পুনর্গঠন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এই আইবিজিগুলো গঠন করা হয়েছে। এবং এর মাধ্যমে বর্তমানে কোল্ড স্টার্ট ডকট্রিনটির পরিবর্তন করা হবে।

Comments

comments