রাত ১:৪৯ শুক্রবার ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ডেঙ্গুর প্রকোপে হারিয়ে গেছে ম্যালেরিয়া কালাজ্বরের আলোচনা

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৯ , ৫:২১ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : স্বাস্থ্য
পোস্টটি শেয়ার করুন

ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপের মধ্যেই ম্যালেরিয়া ও কালাজ্বর আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। অ্যানোফিলিস জাতীয় স্ত্রী মশার কামড়ে সৃষ্ট প্রাণঘাতী ম্যালেরিয়া ১৩ জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে। তবে পার্বত্য তিন জেলায় ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। একই সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে নিয়ন্ত্রণে থাকা স্যান্ডফ্লাই বা বেলেমাছির মাধ্যমে ২৬ জেলায় কালাজ্বরের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। চলতি বছর ম্যালেরিয়ায় সাড়ে সাত হাজারের মতো আক্রান্ত ও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। কালাজ্বরেও প্রায় দেড়শ’ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে দু’জনের। অথচ ম্যালেরিয়া ও কালাজ্বরে আক্রান্ত ও মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে কোনো আলোচনা নেই। একের পর এক রেকর্ড সৃষ্টি করে ডেঙ্গুই সব আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, গতকাল সোমবার পর্যন্ত প্রায় ৭২ হাজার মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। ২০০০ সালে এই জ্বর দেখা দেওয়ার পর এক বছরে এটিই সর্বোচ্চ সংখ্যক আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া রোগীর সংখ্যা। এ বছর মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২০০ মানুষের। তবে সরকারিভাবে এখন পর্যন্ত ৫৭ জনের মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। চলতি বছরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকারি সংস্থাগুলো হিমশিম খাচ্ছে। ঢাকাকেন্দ্রিক এই রোগটি এবার গ্রামেও ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। এই রোগের সঙ্গে ম্যালেরিয়া ও কালাজ্বরের প্রকোপও বাড়ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ  বলেন, ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই কমছে। গত তিন দিন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা হাজারের নিচে নেমেছে। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নেওয়া রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। এ চিত্র থেকে বলা যায়, ডেঙ্গু পরিস্থিতি ধীরে ধীরে ভালো হতে শুরু করেছে। একই সঙ্গে ম্যালেরিয়া ও কালাজ্বরে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা অন্যান্য বছরের তুলনায় হ্রাস পেয়েছে।

পার্বত্য তিন জেলায় ম্যালেরিয়া আতঙ্ক : শেরপুর, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, কুড়িগ্রাম, সিলেট, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, চট্টগ্রাম, খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজার জেলায় ম্যালেরিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত ৭ হাজার ৭৭৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ছয়জনের। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে পার্বত্য তিন জেলায়। শতকরা ৯১ ভাগ আক্রান্ত রোগীই পার্বত্য তিন জেলার বাসিন্দা। বান্দরবানে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৩৯৯ জন, রাঙামাটিতে ২ হাজার ৫৫৫ এবং খাগড়াছড়িতে ৪২৩ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এরপরই কক্সবাজার জেলায় ৩০৪, চট্টগ্রামে ৭৩, সিলেটে ৭, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জে ২ জন করে এবং কুড়িগ্রাম ও নেত্রকোনায় ১ জন করে আক্রান্ত হয়েছেন। এ অবস্থায় ২০৩০ সালের মধ্যে দেশ থেকে চিরতরে ম্যালেরিয়া নির্মূলের যে লক্ষ্যমাত্রা সরকার নির্ধারণ করেছে তা অর্জন নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে। কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা বলেছেন, দেশের ১৩ জেলার ৭১ উপজেলায় বসবাসকারী ১ কোটি ৭৫ লাখ মানুষ এখনও ম্যালেরিয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। পর্যায়ক্রমে ম্যালেরিয়া আক্রান্তের সংখ্যা কমলেও তিন পার্বত্য জেলায় এখনও প্রকোপ বেশি। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত ও মিয়ানমার অত্যন্ত ম্যালেরিয়া ঝুঁকিপ্রবণ। এই দুই দেশের সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চলগুলোয় লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ম্যালেরিয়া নির্মূল করা কঠিন হয়ে পড়বে। একই সঙ্গে কীটনাশকযুক্ত দীর্ঘস্থায়ী মশারির কার্যকারিতা হারানো, প্রশিক্ষিত জনবল বিশেষ করে কীটতত্ত্ববিদের অভাবসহ কয়েকটি সমস্যার কারণে ম্যালেরিয়া নির্মূল লক্ষ্যমাত্রা ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে।

ম্যালেরিয়া কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত বিশেষজ্ঞ এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এম এ ফয়েজ বলেন, ২০৩০ সালে ম্যালেরিয়া চিরতরে নির্মূলের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন অত্যন্ত কঠিন। কারণ ওই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে পরপর তিন বছর অর্থাৎ ২০২৭ সাল থেকে পরবর্তী তিন বছর ম্যালেরিয়া আক্রান্তের সংখ্যা শূন্য দেখাতে হবে। এরপরই কেবল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সার্টিফিকেট মিলবে।

ম্যালেরিয়া নির্মূল কর্মসূচি সূত্রে জানা গেছে, মোট ম্যালেরিয়া রোগীর ৯১ শতাংশই পার্বত্য তিন জেলা বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ির সীমান্তবর্তী পাহাড় ও বনাঞ্চলবেষ্টিত এলাকার বাসিন্দা। দুর্গম ও বনাঞ্চল হওয়ায় এই তিন জেলার অনেক উপজেলায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা প্রদান করা কষ্টসাধ্য। এছাড়া সেখানে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অপর্যাপ্ত এবং সেবাদান প্রক্রিয়াও অনুন্নত। একই সঙ্গে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে পার্বত্য এই তিন জেলা এবং সিলেটের কিছু অংশের সঙ্গে ক্রস বর্ডার ইস্যু রয়েছে। ভারতের ত্রিপুরা, মিজোরাম, মেঘালয় ও আসাম সীমান্ত এবং মিয়ানমারের কিছু এলাকা অত্যন্ত ম্যালেরিয়াপ্রবণ। ওইসব এলাকা থেকে সীমান্তে অতি সহজেই ম্যালেরিয়া জীবাণুবাহিত মশা প্রবেশ করতে পারে। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে ম্যালেরিয়ামুক্ত করতে চাইলেও তা সম্ভব হবে না।

তবে ম্যালেরিয়া নির্মূল কর্মসূচির ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. এম এম আক্তারুজ্জামান বলেন, ২০১৭ সালে ২৯ হাজার ২৪৭ জন আক্রান্ত এবং ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল। গত বছর ১০ হাজার ৫২৩ জন আক্রান্ত এবং ৭ জনের মৃত্যু হয়। সে তুলনায় এ বছর কিছুটা কম। চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত ৭ হাজার ৭৭৫ আক্রান্ত এবং ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ চিত্র থেকে দেখা যায়, ধারাবাহিকভাবে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কমছে।

ম্যালেরিয়ার লক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণে করণীয় : জ্বরের সঙ্গে রোগীর অজ্ঞান হওয়া, হঠাৎ করে অস্বাভাবিক বা অসংলগ্ন আচরণ, বারবার খিঁচুনি, দুর্বলতা, বারবার বমি হওয়া এবং শিশুর ক্ষেত্রে মায়ের বুকের দুধ খেতে না পারা ইত্যাদি উপসর্গ দেখা গেলে ম্যালেরিয়া আক্রান্ত বলে সন্দেহ করতে হবে। ম্যালেরিয়া প্লাজমোডিয়াম প্রজাতির এক ধরনের পরজীবী দ্বারা সংঘটিত সংক্রামক রোগ। অ্যানোফিলিস জাতীয় স্ত্রী মশা ম্যালেরিয়া জীবাণুর বাহক। এই মশার কামড়ে এই রোগ ছড়ায়। জাতীয় ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ইভালুয়েটর ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, কীটনাশকযুক্ত মশারি প্রতিদিন সন্ধ্যা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টানানো, তিন বছর পর পর সাধারণ মশারি কীটনাশকে চুবিয়ে ব্যবহার করা, বাড়ির আশপাশের ঝোপঝাড়, ডোবা, নর্দমা, পুকুর, গর্ত পরিস্কার রাখতে হবে, যাতে অ্যানোফিলিস মশা বংশবিস্তার করতে না পারে।

২৬ জেলায় কালাজ্বরের ঝুঁকি : টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, নাটোর, ফরিদপুর, ঠাকুরগাঁও, জামালপুরসহ দেশের ২৬ জেলার শতাধিক উপজেলায় এখনও কালাজ্বরের ঝুঁকি রয়েছে। চলতি বছর এ পর্যন্ত ১২৯ জন এই জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কালাজ্বর নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন। সংশ্নিষ্টরা বলেছেন, কালাজ্বরের জীবাণুবাহী বেলেমাছি নিধন সঠিকভাবে না হওয়ায় এই রোগের ঝুঁকি কমছে না। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হওয়া রোগীরা আবারও কালাজ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন। রক্ত পরীক্ষার রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে কালাজ্বরের জীবাণু রয়ে গেছে। সখীপুর, গোপালপুর, মধুপুর, হরিপুর, গরহাট, বরাইগ্রাম, তেরখাদা, দৌলতপুর, ফুলবাড়িয়া, ত্রিশাল, ভালুকা, মুক্তাগাছা ও গফরগাঁও উপজেলায় এবার সবচেয়ে বেশি রোগী পাওয়া গেছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে সবচেয়ে বেশি ২৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। এরপর পর্যায়ক্রমে ফেব্রুয়ারিতে ১৭ জন, মার্চে ১৬, এপ্রিলে ১৪, মেতে ১৩, জুনে ২১, জুলাইয়ে ১০, আগস্টে ৬ এবং সেপ্টেম্বরের এ পর্যন্ত ৭ জনসহ মোট ১২৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। তবে চলতি বছর এ পর্যন্ত দু’জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। দেশে প্রথম কালাজ্বরের প্রকোপ দেখা যায় ১৯৯৪ সালে। ওই বছর ৩ হাজার ৯৬৫ জন আক্রান্ত হয়। ২০০৬ সালে সর্বোচ্চ সংখ্যক ৯ হাজার ৩৭৯ জন আক্রান্ত হয়েছিল। ২০০৮ সাল থেকে কালাজ্বরবাহী বেলেমাছি নিধন প্রক্রিয়া শুরু করে সরকার। এরপর পর্যায়ক্রমে এই রোগের প্রকোপ কমে আসে। সর্বশেষ তিন বছর ২০১৬ সালে ৪৪৭, ২০১৭ সালে ৩৮০ এবং ২০১৮ সালে ২৯০ জন আক্রান্ত হয়। এবার এ পর্যন্ত ১২৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত এ সংখ্যা আরও বাড়বে বলে সংশ্নিষ্টরা ধারণা করছেন।

কালাজ্বর কী এবং যেভাবে ছড়ায় : কালাজ্বর লিশম্যানিয়া ডোনোভানি নামে আন্তঃকোষীয় ফ্লাজেলাবিশিষ্ট প্রোটোজোয়াঘটিত সংক্রামক ব্যাধি। গ্রীষ্ফ্মকালীয় ও উপ-গ্রীষ্ফ্মকালীয় বিভিন্ন দেশের গ্রামাঞ্চলে এ রোগের প্রাদুর্ভাব অধিক। এই রোগটি ভিস্যার‌্যাল লেশম্যানিয়াসিস নামেও পরিচিত। এ রোগে যকৃত ও প্লীহার রেটিকুলো এন্ডোথিলিয়াল তন্ত্রে প্রদাহ সৃষ্টি করে। শিশুরাই এ রোগে বেশি আক্রান্ত হয়। কালাজ্বরের জীবাণুবাহী স্ত্রী বেলেমাছির কামড়ে এ রোগের সংক্রমণ ঘটে। এ রোগের সুপ্তিকাল ২ থেকে ৬ মাস।

তবে কালাজ্বর নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. আবু নাঈম বলেন, ঝুঁকিপুর্ণ জেলা ও উপজেলায় কালাজ্বর নির্মূল কর্মসূচি জোরালোভাবে চালানো হচ্ছে। ২০২২ সালের মধ্যে দেশ থেকে কালাজ্বর পুরোপুরি নির্মূলের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সেই লক্ষ্য পূরণে কাজ করে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

সূত্রঃ সমকাল

Comments

comments