সন্ধ্যা ৭:১৭ মঙ্গলবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

মির্জাপুরে আজগানা ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে সভাপতি মোক্তার, সম্পাদক শহিদুল | নাটোরে “টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন ও সমন্বয়” বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত | রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের মৃত্যু | টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিলেন ক্যানসারজয়ী নারী | বান্দরবানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এপেক্স ক্লাব | বান্দরবানে যে বিদ্যালয়ে এ ভর্তির আগে সাঁতার শিখতে হয়! | ঝালকাঠিতে নদী ভাঙ্গনের কবলে দোকনঘর, নদীগর্ভে ফেরি | আবারও একসঙ্গে রণবীর-ক্যাটরিনা | লভ্যাংশ ঘোষণার পর দুই কোম্পানির দরপতন | আট বিভাগীয় শহরে হবে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র |

গরিবদের জন্য বন্ধ হচ্ছে আমেরিকার দুয়ার

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ১৭, ২০১৯ , ৬:০৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : প্রবাস
পোস্টটি শেয়ার করুন

গরিবদের জন্য বন্ধ হচ্ছে আমেরিকা যাওয়ার পথ এমনটাই ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। সেই সাথে বৈধভাবে আমেরিকায় অবস্থানকারী দরিদ্র অভিবাসীদের স্থায়ী বাসিন্দা লাভের পথও বন্ধ হবে। বিশেষ করে যারা মেডিকেউড, ফুড স্ট্যাম্প, হাউজিং সুবিধাসহ অন্যান্য সুবিধা গ্রহণ করছেন। গত ১২ আগস্ট সোমবার ‘ইউনাইটেড স্টেস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন’(ইউএসসিআইএস)এর পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

এই ঘোষণার ফলে ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্ম নিয়েছে। ঘোষিত আইনের আওতায় কোন বৈধ অভিবাসী কখনও ওয়েলফেয়ার (কল্যাণভাতা) গ্রহণ করে থাকলে তবে তার পক্ষে পারমানেন্ট স্ট্যাটাস (গ্রিনকার্ড বা স্থায়ী মর্যাদা) লাভ অত্যন্ত কষ্টকর হবে। তাছাড়া উক্ত আইনের আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী বা অস্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য প্রবেশ করতে চাইলে প্রার্থীকে সরকারি সাহায্য সহযোগিতার ওপর নির্ভরশীল না হয়ে অবশ্যই স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে হবে এবং ব্যক্তিগত সামর্থ্য এবং পরিবারের সদস্যবর্গ, স্পন্সরগণ এবং প্রাইভেট অর্গানাইজেশনের ওপর নির্ভরশীল হতে হবে।

১৫ অক্টোবরের মাঝামাঝি এই নীতিমালা বাস্তবায়িত হতে পারে।

চূড়ান্ত রুলটি ইউনাইটেড স্টেটস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশনের বিদ্যমান আইন-কানুনের ব্যাপক সংশোধন আনয়ন করেছে। ইমিগ্রেশন অ্যান্ড ন্যাশানেলিটি অ্যাক্টে প্রদত্ত নিয়ম-কানুন অনুযায়ী ভবিষ্যতে কোনো অভিবাসী পাবলিক চার্জের আওতায় আসার আশঙ্কা রয়েছে কিনা তার সম্ভাব্যতার ভিত্তিতে কোন কোন ভিনদেশি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অযোগ্য, ইউনাইটেড স্টেটস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেস তা কীভাবে নির্ধারণ করবে তার দিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সংশোধনীতে।

যে সব অস্থায়ী নাগরিক যুক্তরাষ্ট্রে বাড়তি অবস্থান এবং স্ট্যাটাস পরিবর্তনে সাধারণত সুনির্দিষ্ট সুবিধা লাভের অযোগ্য হওয়া সত্ত্বেও সুনির্দিষ্ট সুবিধা গ্রহণ করছেন তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতাও ইউনাইটেড স্টেটস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেসকে প্রদান করেছে।

‘এক শতাব্দীর বেশি সময় ধরে, অগ্রহণযোগ্যতার পাবলিক চার্জ গ্রাউন্ডটি আমাদের দেশের অভিবাসন আইনের অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প আমেরিকান জনগণকে দীর্ঘকাল ধরে অভিবাসন আইন কার্যকর করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, যা বছরের পর বছর ধরে বইগুলিতে রয়েছে এমন পাবলিক চার্জ অনাবশ্যকতার ক্ষেত্রটিকে সংজ্ঞায়িত করে, ইউএসসিআইএসের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক কেন কুকিনেল্লি বলেছিলেন। ‘আমাদের পুরো ইতিহাস জুড়ে, স্বনির্ভরতা আমেরিকান স্বপ্নের মূল লক্ষ্য ছিল। স্বনির্ভরতা, পরিশ্রম এবং অধ্যবসায় আমাদের জাতির ভিত্তি স্থাপন করেছিল এবং ১৯৯০ সাল থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুযোগ চাইছেন এমন পরিশ্রমী অভিবাসীদের প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করেছেন। পাবলিক চার্জ অগ্রহণযোগ্যতা আইন প্রয়োগের মাধ্যমে, আমরা এই দীর্ঘস্থায়ী আদর্শ এবং অভিবাসী সাফল্যের প্রচার করব।’

প্রাপ্ত নাগরিক সুবিধাকে অন্তর্ভুক্ত করার নিমিত্তে ‘ইউনাইটেড স্টেটস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেস পাবলিক চার্জের’ সংজ্ঞার পুনঃসংশোধন করেছে। সংশোধিত সংজ্ঞানুযায়ী যে সব লোক ১২ মাসের বেশি বা সর্বমোট ৩৬ মাসের মধ্যে এক বা একাধিক বিদ্যমান নাগরকি সুবিধা যেমন ক্যাশ বেনিফিট, সাপ্লিমেন্টাল সিকিউরিটি ইনকাম (এসএসআই- সম্পূরক নিরাপত্তা আয়), টেম্পরারী অ্যাসিস্ট্যান্স টু নিডি ফ্যামিলিজ (টিএএনএফ- অভাবী পরিবারের জন্য অস্থায়ী সাহায্য), সাপ্লিমেন্টাল নিউট্রিশনাল অ্যাসিস্ট্যান্স প্রোগ্রাম (স্ল্যাপ- সম্পূরক পুুষ্টি সাহায্য কর্মসূচি) অধিকাংশ মেডিকেইড এবং কতক ধরনের হাউজিং কর্মসূচিও পাবলিক চার্জের আওতায় আনা হয়েছে।

ফেডারেল রেজিস্ট্রারে তালিকাভুক্ত আইনটি কোনো ধরনের আইনি চ্যালেঞ্জ ছাড়া ২ মাসের মধ্যে কার্যকর হবে। এর ফলে গ্রিনকার্ড ও সিটিজেনশিপের জন্য আবেদনকারীদের অবশ্যই প্রদর্শন করতে হবে যে তাদের আর্থিক পর্যাপ্ত সক্ষমতা রয়েছে। বর্তমানে মেডিকেইড, ফুড স্টাম্পস বা ফেডারেল হাউজিং অ্যাসিস্ট্যান্সও পাবলিক চার্জ অভিযোগ হিসেবে গণ্য হতে পারে এবং পারমেনেন্ট স্ট্যাটাসের জন্য আবেদনকারীদের অযোগ্যতার কারণ হবে। সংশোধিত আইনে শিক্ষা, বয়স, সম্পদ এবং ইংরেজিতে দক্ষতাও সম্ভাব্য পাবলিক চার্জ অফেন হিসেবে গণ্য হবে।

এক কথায় বলা যায়: আর্থিক অসচ্ছলদের জন্য আমেরিকার দুয়ার বন্ধ হতে চলেছে।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন ১০ মাস আগেই জানিয়েছিল এ রকম নীতিমালা চালু হবে। সে সময় বিভিন্ন মহলে আপত্তি ওঠে।

ট্রাম্প প্রশাসনের অভিবাসনবিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা কেন কুচিনেলি গত ১২ আগস্ট সোমবার নতুন নিয়ম ঘোষণার প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে বলেন, ‘আমরা চাই এমন মানুষ এ দেশে স্থায়ী বসবাসের জন্য আসুন, যাঁরা নিজেদের খরচ বহন করতে পারে। আগাগোড়াই এই নিয়মের ভিত্তিতে এ দেশে অভিবাসননীতি পরিচালিত হয়েছে।’ ১৫ অক্টোবরের মাঝামাঝি এই নীতিমালা বাস্তবায়িত হবে বলে তিনি জানান। যারা ইতিমধ্যে গ্রিন কার্ড পেয়েছেন বা মার্কিন নাগরিকত্ব পেয়েছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে এই নীতিমালা প্রযোজ্য হবে না। তবে তাঁদের পরিবারের সদস্যদের ক্ষেত্রে তা কার্যকর হতে পারে। অন্তঃসত্ত্বা মায়েরা যারা সরকারি স্বাস্থ্যসেবা পান সন্তান জন্ম দেয়ার সময় তাদের ক্ষেত্রে এই নীতিমালা কার্যকর হবে না। মার্কিন সেনাবাহিনীর সদস্য, উদ্বাস্তু ও আশ্রয় প্রার্থনা করেছেন এমন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেও এই নীতিমালা কার্যকর হবে না।

অভিবাসন অধিকার নিয়ে কাজ করেন এমন বিভিন্ন সংস্থা নতুন এই নীতিমালার কঠোর সমালোচনা করেছে। তারা বলেছে, এই ঘোষণার ফলে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে দরিদ্র মানুষেরা। বৈধ হওয়া সত্ত্বেও শুধু আইনি ঝামেলা এড়াতে ও ভয়ে তাদের অনেকেই খাদ্য, স্বাস্থ্য বা শিক্ষার মতো সরকারি অনুদান নিতে চাইবে না। ফলে, যাদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, যেমন শিশুরা, তারাই সাহায্য থেকে বঞ্চিত হবে।

প্রতিক্রিয়া হিসেবে বিভিন্ন নাগরিক অধিকার সংস্থা জানিয়েছে, তারা এই নীতিমালার বিরুদ্ধে আদালতে আবেদন করবে। নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেলও জানিয়েছেন, তিনি এই নীতিমালার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন। নতুন নীতিমালার ফলে যেসব অভিবাসী বা বহিরাগত ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে চিন্তিত নিউইয়র্ক সিটির মেয়রের অফিস থেকে তাদের আইনি সাহায্যের জন্য ৩১১ নম্বরে ফোন করতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যারা ফোন করবে তাদের ‘অ্যাকশন নিউইয়র্ক’ কথা উল্লেখ করতে বলা হয়েছে। এতে সঠিক দপ্তরে তাদের প্রশ্ন পাঠানো সহজ হবে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবছর প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ মানুষ গ্রিন কার্ডের জন্য আবেদন করে থাকে। তাদের মধ্যে ৩ লাখ ৮২ হাজার আবেদনকারী নতুন নীতিমালার আওতায় পড়তে পারে। জানা গেছে, গ্রিন কার্ডের জন্য আবেদন করেছেন- এমন ব্যক্তিদের নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণের জন্য অন্তত তিন বছরের কর প্রদানের হিসাব ও এই সময়ে চাকরির প্রমাণ দেখাতে হবে। যাদের বেসরকারি স্বাস্থ্যবিমা আছে তাদের ক্ষেত্রে গ্রিন কার্ডের অনুমোদন সহজ হবে।

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের এমন কঠোর সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিশেষজ্ঞেরা বলছেন- ট্রাম্প প্রশাসন এ দেশে অভিবাসীদের সংখ্যা কমানোর লক্ষ্যে নানা রকম ফন্দিফিকির খুঁজছে, এই নতুন নীতিমালা তারই অংশ। এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে মেক্সিকো ও দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আগত দরিদ্র বহিরাগতরা। এ ছাড়াও পারিবারিক সূত্রে যারা নাগরিকত্বের সুযোগ পেত, তারাও এই নিয়মের আওতায় আসতে পারে। এর আগে হোয়াইট হাউস থেকে জানানো হয়েছে, পারিবারিক সূত্রে অভিবাসনব্যবস্থা পরিবর্তন করে মেধাভিত্তিক নিয়ম চালু করতে তারা আগ্রহী। এই নিয়মে শিক্ষিত, আর্থিকভাবে সচ্ছল ও ইংরেজি ভাষায় অভিজ্ঞ আবেদনকারীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। কবে এই মেধাভিত্তিক নিয়ম চালু হবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়। এমন নীতিমালার খবর পেয়ে ইতোমধ্যে অভিবাসীদের মধ্যে নানা ভীতি ও জল্পনাকল্পনার সৃষ্টি হয়েছে

সূত্র: ইউনাইটেড স্টেস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন

Comments

comments