রাত ৪:২৩ শনিবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

টঙ্গীতে শেষ মুহুর্ত্বে ঈদ মার্কেট বেশ জমে উঠেছে

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ২২, ২০১৭ , ৫:৪৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ঢাকা
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস, এম মনির হোসেন জীবন : পবিত্র ঈদ উল ফিতর এর আর বাকী কয়েক দিন। আরইে ঈদকে সামনে রেখে শেষ মুহুর্ত্বে টঙ্গীতে ঈদের মার্কেট গুলোতে বেচাঁ কেনা বেশ জমে উঠেছে। গাজীপুর মহানগরী শিল্পনগরী টঙ্গী এলাকার ভিভিন্ন নামীদামী মার্কেট, বিপনী বিতান, ঈদ মেলা সহ ফুটপাত গুলোতেও ঈদের কেনাকাটা বেশ সরগরম হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে জামা কাপড়ের দোকান গুলো প্রতিনিয়তই শিশু,মহিলা ও পুরুষ ক্রেতাদের প্রচন্ড ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। দিনের চেয়ে এসব মার্কেটে সন্ধ্যার পর বেচাকেনা বেশি হচ্ছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। বিক্রেতারা বলেছেন, দু-একদিনের মধ্যে বেচাকেনা আর ও ভাল হবে। বিশেষ করে জামা কাপড়ের দোকান গুলোতে প্রচন্ড ভিড়। কোথাও কোথাও পা ফেলার জায়গা নেই। কাপড়ের দোকান গুলোতে শিশু- মহিলা ও পুরুষের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। সন্ধ্যার পর থেকে মার্কেটগুলো ক্রেতাদের আনাগোনায় জমজমাট হয়ে ওঠে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিন টঙ্গীর বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, সর্বত্রই ভারতীয় ডিজাইনের কাপড় ও শাড়ির কালেকশনই বেশি। পাশাপাশি ভারত, সিঙ্গাপুর, মালেশিয়া ও চায়না থেকে আসা ঈদ ফ্যাশন পোশাক ও রয়েছে বিভিন্ন দোকানে। ভারতের মুম্বাই, কাশ্মীরি ডিজাইন, সিকোয়েন্সের কাজ, জরি-সুতোর বাহারি নকশার শাড়ি ঝলমলে কাপড়ে বাহারি সুতোর কাজ করা কাপড়, উজ্জ্বল রঙের জর্জেট, টিস্যু প্রভৃতি কাপড়ে জরি, চুমকি, সুতি কাপড়ে দেশীয় আলপনার সুতো, অ্যাপলিক ও স্ক্রিন-ব¬ক-বাটিকের পোশাক সম্ভার দারুণ আকর্ষণ করেছে ক্রেতাদের। আর পুরুষদের ক্ষেত্রে দেশী ব্র্যান্ডের মধ্যে শীতল, রঙ, সপুরা সিল্ক প্রভৃতির সঙ্গে ভারত-চায়না থেকে আনা নানা ডিজাইনের পাঞ্জাবি সহ দেশীয় বিভিন্ন ডিজাইনের শার্ট-প্যান্ট ও টি-শার্টের সমাহার উলে­¬খ করার মতো। উত্তরার নামীদামী মার্কেট গুলো মেয়েদের শাড়ি, সালোয়ার-কামিজের জন্য একটি বিশেষ মার্কেট। এখানকার দোকানগুলো মূলত মেয়েদের পোশাককেন্দ্রিক। সে কারণে এখানে মহিলা ক্রেতাদের আনাগোনা বেশি।

এ মার্কেটে রয়েছে রঙ, চৈতি, বি প¬াস, ময়ূরী, মুনলাইট প্রভৃতি স্বনামধন্য পোশাক প্রতিষ্ঠানের শোরুম। এছাড়া কালেকশনও ভালো। সে কারণে এ মার্কেটে কেনাকাটা করতে ভালো লাগে। এখানে দেশীয় খাদি ও সুতির পোশাকের রয়েছে বেশকিছু বিক্রয়কেন্দ্র। এছাড়া শিশু ও ছেলেদের পোশাকের বিক্রি ভালো বলে জানালেন এ মার্কেটের বিক্রেতারা। ভারতীয় ও অন্যান্য ডিজাইনের সালোয়ার-কামিজও পাওয়া যাচ্ছে। ছেলেদের পোশাকের কালেকশন ও রয়েছে ভাল। ঈদের পোশাকাদির কথা বলতে গেলে মার্কেটে মূলত শাড়ি ও বাচ্চাদের পোশাক, শার্ট-প্যান্ট, থানকাপড় থেকে শুরু করে লুঙ্গি-গামছাÑ সবই রয়েছে ঈদ মেলা মার্কেট গুলোতে। মূলত দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় এসব দ্রব্য মেলে সহজ ও নিয়ন্ত্রিত দামেই। এই দুই মার্কেটে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, থানকাপড় ইত্যাদির পসরা সাজিয়েছেন বিক্রেতারা।

টঙ্গী বাজারের হাজী সুপার মার্কেট,ভাওয়াল বিপনী,সুলতান মার্কেট ও চেরাগআলী মার্কেটের ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, প্রথম রোজার দিন থেকেই তাদের বেচাকেনা ভালো। মার্কেটের দ্বিতীয়,তৃতীয়,চতুর্থ তলায় অবস্থিত মেয়েদের সালোয়ার-কামিজ ও শাড়ির দোকানে দুপুরের পর অসংখ্য ক্রেতার ভিড় চোখে পড়েছে। এছাড়া বাটার মার্কেটের জুতার দোকানগুলোতেও ছিল ক্রেতাদের ভিড়। এ মার্কেটে মেয়েদের সালোয়ার-কামিজ পাওয়া যাচ্ছে ৫শ’ থেকে ৬০ হাজার টাকা। বেশি চলছে ৭/৮ হাজার থেকে ২০/২৫ হাজার টাকা মূল্যের পোশাকগুলো। এই মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে জরি, চুমকি ও কারচুপির কাজ করা শাড়ি, জামদানি শাড়ি, মসলিন, সিল্ক, তসরসহ আরও নানা আইটেম। শাড়ি বিক্রেতারা বলেছেন, কয়েকদিন পর আরও মূল্যবান শাড়ি ওঠানো হবে। এই মার্কেটে দক্ষিণ ভারতের পোশাক লেহেঙ্গাও তুলেছেন অনেক দোকানি। ছোটদের লেহেঙ্গা ৩ হাজার থেকে ৬ হাজার এর মধ্যে এবং বড়দের লেহেঙ্গা সাড়ে ৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

এছাড়া মেয়েদের গহনা, পোশাক, শাড়ি, কসমেটিকস্ ইত্যাদির রয়েছে বিশাল সম্ভার। পোশাকগুলো। মার্কেটের গহনার দোকানগুলোতেও ভিড় পরিলক্ষিত হয়েছে ব্যাপক আকারে। এ মার্কেটে ছেলেদের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের শার্ট বিক্রি হতে দেখা গেছে ৫০০ থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে। প্যান্ট বিক্রি হতে দেখা গেছে ১২০০ থেকে ৭০০০ টাকার মধ্যে।
শাহনাজ আক্তার, মিতা আক্তার ও সুমি আক্তার নামে জৈনক তিন মহিলা ক্রেতা এই প্রতিনিধিকে জানান, টঙ্গীর এসকল মার্কেটে ভালমানের জামা কাপড় পাওয়া যায়। তাই এখানে শিশু,মহিলা ক্রেতাদের ভিড় একটু বেশি। তাই এখানে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছি। ব্যবসায়ীরা জানান, ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে বেঁচাকেনা ও বাড়ছে।

Comments

comments