রাত ৩:৫৭ মঙ্গলবার ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

মোহনপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জানুয়ারি ১৫, ২০১৯ , ৮:৫৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজশাহী
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাজশাহী ব্যুরো: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পর এবার মোহনপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তবে এই তোড়জোড় আপাতত সরকারি দল আওয়ামীলীগের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে এরই মধ্যে আওয়ামী লীগ দলীয় একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম শোনা যাচ্ছে। কর্মী সমর্থকরা নিজ নিজ পছন্দের নেতাকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চান বলে দাবি উত্থাপন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা ও আলোচনা শুরু করেছেন। চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান উভয় পদেই অনেক আগ্রহী প্রাথী নাম শোনা যাচ্ছে। বিএনপি বা অন্য কোনো দলের প্রার্থীদের আগ্রহ এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি। তবে এখনও পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দলের কেন্দ্রীয় কোনও নির্দেশনা নেই বলে জানিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, যারা উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে ইচ্ছুক তারা অনেকটা আগে থেকেই মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে শেষ হওয়ার পর সারাদেশের মতোই মোহনপুর উপজেলা নির্বাচনের বাতাস বইতে শুরু করেছে। বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনের নির্বাচনী আভাস ঘোষণার পর দলীয় লবিং শুরু করে মোহনপুর উপজেলার আনাচে কানাছে পোস্টার, ব্যানার সাঁটিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের আগাম জানান দিচ্ছেন।

এখন পর্যন্ত মোহনপুর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক যাদের নাম আলোচনায় এসেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন-মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড আব্দুস সালাম পি.পি, সিনিয়র সহ-সভাপতি দিলীপ কুমার সরকার তপন, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলফোর রহমান, সহ-সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর রুস্তম আলী প্রাং, সাবেক চেয়ারম্যান সোহরাব আলী খাঁন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য এনামুল হক জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আলমগীর মোরশেদ রনজু, মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড আব্দুস সালাম পি.পি বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে দলের নীতি আদর্শ মেনে দলের জন্য কাজ করছি। আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আমি একজন প্রার্থী। তৃণমূলের নেতাকর্মীরাও চাইছেন যেন আমি নির্বাচন করি।

দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী সিনিয়র সহ-সভাপতি দিলীপ কুমার সরকার তপন বলেন, ‘যেহেতু এবারের উপজেলা নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হবে, সেহেতু মনোনয়ন পাওয়ার ওপরই নির্ভর করছে নির্বাচন করা না করা। দল যদি তৃণমূলের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে মনোনয়ন দেয় তাহলে বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ও আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রাজশাহী জেলা শাখা আহবায়ক আলমগীর মোরশেদ রনজু, বলেন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কেন্দ্রীয় কোনও নির্দেশনা জেলা আওয়ামী লীগ পায়নি। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় অব্যাহত রেখেছি। উপজেলার নির্বাচনে তিনিই মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য এনামুল হক, বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে দলের একজন কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি সবদিক বিবেচনা করে দল আমাকেই মনোনয়ন দেবেন। জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলফোর রহমান জানান,উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি দলের ত্যাগী হিসাবে দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য সোহরাব আলী খান বলেন মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ও সাবেক চেয়ারম্যান ছিলাম সবদিক বিবেচনা করে দল আমাকে মনোনয়ন দিবেন ।

উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মফিজ উদ্দিন কবিরাজ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ উন্নয়নের রাজনীতি দিয়ে দেশের মানুুষের প্রবল আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এখন চারিদিকে আওয়ামী লীগের জয়জয়কার। এতে দলের নেতারাও বেশ চাঙ্গা। সেই প্রেক্ষাপটে দলের মনোনয়ন পেতে একাধিক আগ্রহী নেতা রয়েছেন। তিনি বলেন কে কে প্রার্থী হচ্ছেন সে বিষয়ে জ্ঞাত নন, তবে দলীয় নিদের্শনা অনুসারে প্রার্থীতা সিন্ধান্ত নেওয়া হবে।

Comments

comments