সংকট মোকাবেলায় ফলাতে হবে অধিক খাদ্য

0
124

এম এ মাসুদ: বাংলাদেশ একটি কৃষি প্রধান দেশ। কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির এদেশে বৈদেশিক মুদ্রার একটি বিরাট অংশ আসে কৃষিখাত থেকে। তাছাড়া কৃষি উৎপাদনের ওপর অনেকাংশে নির্ভর করে দেশের খাদ্য উৎপাদন ও শিল্পোন্নয়ন।

গত ২৭ জুলাই বিবিএস- এর প্রকাশিত তথ্য বলছে, স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম শুমারিতে দেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ১৫ লাখ। সাত বছর পর ১৯৮১ সালে জনশুমারিতে মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ কোটি ৭১ লাখ ১৯ হাজার ৯৬৫ জনে। ১৯৯১ সালের আদমশুমারিতে দেশে মোট জনসংখ্যা দাঁড়ায় ১০ কোটি ৬৩ লাখ। ২০০১ সালে চতুর্থ আদমশুমারি ও গৃহগণনায় সময় জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১২ কোটি ২৪ লাখ। ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত প ম জনশুমারিতে দেখা যায়, দেশের জনসংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৪ কোটি ৪০ লাখ। ষষ্ঠ ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ এ বাংলাদেশের জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন।
১ লাখ ৪৭ হাজার ৫৭০ বর্গকিলোমিটার আয়তন ভূখÐের দেশটির যে হারে জনসংখ্যা বাড়ছে সে হারে বাড়ছে না খাদ্য উৎপাদন। ফলে কৃষিপ্রধান অর্থনীতির দেশ হলেও বিশাল জনগোষ্ঠির খাদ্য সংস্থানে প্রতিবছর কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয়ে খাদ্য শস্য আমদানি করতে হয়। অথচ নিজ নিজ উদ্যোগে অব্যবহৃত ভূমির ব্যবহার নিশ্চিত করতে পারলে উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে খাদ্য আমদানি কমানো যেত। আর খাদ্য আমদানি বাবদ বেঁচে যাওয়া বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে শিল্পপণ্যসহ অন্যান্য পণ্য আমদানি করতে পারলে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগতো, ঘটতো শিল্পোন্নয়ন।

সে যাই হোক, করোনা মহামারি, রাশিয়া- ইউক্রেন যুদ্ধ, জলবায়ুর পরিবর্তন নাড়া দিয়েছে ছোট, বড় অনেক দেশকেই। প্রভাব পড়েছে খাদ্য উৎপাদন, জ্বালানি ও সার আমদানির ওপর। দেখা দিয়েছে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা। এ মন্দা যেন ১৯৩০ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রুজভেল্টের আমলের সেই মহামন্দাকেই স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে।

বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তা এবং যোগান পরিস্থিতি নিয়ে গত সেপ্টেম্বরে প্রকাশিত জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্য বলছে, বিশ্বের ৪৫টি দেশে খাদ্য সংকটের আশঙ্কা রয়েছে সবচেয়ে বেশি। যার মধ্যে এশিয়ার দেশ হলো ৯টি। খাদ্য নিরাপত্তার ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশও।

গত ১৪ অক্টোবর আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের প্রধান কার্যালয় ওয়াশিংটন ডিসির বার্ষিক সম্মেলনে বিশ্বব্যাংক প্রধান ও আইএমএফ এমডি আগামী ২০২৩ সালের জন্য বিশ্বকে খাদ্য, জ্বালানি তেলসহ মহামন্দার বিষয়ে সতর্ক করেছেন।

বৈশ্বিক মন্দার কবলে পড়লে বিশ্বের ৩৫ কোটি মানুষ খাদ্যসংকটে পড়বে। বর্তমানে বিশ্বে ৪৮টি দেশের প্রায় চার কোটি মানুষ রয়েছে চরম খাদ্যসংকটে।

শিল্পোন্নত দেশসমূহ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা না হলেও অথবা খাদ্যঘাটতি থাকলেও উদ্বৃত্ত শিল্পপণ্য রপ্তানি করে তারা খাদ্য আমদানির মাধ্যমে খাদ্যের চাহিদা পূরণ করতে পারে, দূর করতে পারে খাদ্য সমস্যা। কিন্তু আমাদের দেশ যেহেতু কৃষি প্রধান আর শিল্পে অনগ্রসর, তাই অন্যান্য খাতের উন্নয়নের পাশাপাশি জাতীয় জীবনে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির লক্ষ্যে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন একান্ত অপরিহার্য।

তবে, খাদ্য উৎপাদনকারী দেশসমূহের পরমুখাপেক্ষী না হয়ে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে খাদ্য উৎপাদনে সর্বাধিক গুরুত্ব আরোপ করেছে সরকার। এজন্য কৃষির সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে সার, বীজসহ বিভিন্ন কৃষি উপকরণের মূল্য হ্রাস করেছে।

কৃষির যান্ত্রিকীকরণে কৃষকদের ভর্তুকি, ঋণ সুবিধা, উপজেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীনে কৃষকদের মাঝে বিভিন্ন মৌসুমে বিনামূল্যে সার, বীজসহ বিভিন্ন কৃষি উপকরণ বিতরণ ও পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে খাদ্য উৎপাদনে প্রসংশনীয় ভূমিকা পালন করছে কৃষি মন্ত্রণালয়। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করে খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে উদ্ভাবিত হয়েছে বন্যা ও খরা সহিষ্ণু বিভিন্ন জাতের ধান। কৃষিবিদদের নিরলস পরিশ্রম ও প্রচেষ্টায় কৃষি উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন এক অনন্য উদাহরণ।

বর্তমানে বাংলাদেশ পৃথিবীতে ধান, সবজি এবং পেঁয়াজ উৎপাদনে তৃতীয়, আম এবং আলু উৎপাদনে সপ্তম, পেয়ারা উৎপাদনে অষ্টম, পাট এবং কাঁঠাল উৎপাদনে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে প্রায় ৭০ প্রকার সবজি আর ফলমূল। পাটসহ বিভিন্ন কৃষিপণ্য রপ্তানি করে প্রাপ্ত আয় ছাড়িয়েছে প্রায় ১০০ কোটি ডলার।

করোনা মহামারির ধকল, রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধ, বৈরী জলবায়ুর প্রভাবে সৃষ্ট বৈশ্বিক মন্দার প্রভাব কাটিয়ে উঠতে ‘কাউকে পশ্চাতে রেখে নয়। ভালো উৎপাদনে উত্তম পুষ্টি, সুরক্ষিত পরিবেশ এবং উন্নত জীবন’- এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্ব খাদ্য দিবস- ২০২২ পালিত হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী খাদ্য সংকট ও দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা রয়েছে। পরিস্থিতি এড়াতে এবং এর আঁচ যেন দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা বিঘিœত করতে না পারে সেজন্য খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে দেশের ১ ইি জমিও যেন অনাবাদি না থাকে তার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে তাঁর (প্রধানমন্ত্রীর) এ আহবানে সাড়া দিয়ে খাদ্য উৎপাদনে এগিয়ে আসতে হবে সবাইকে।

আর এজন্য- ময়মনসিংহ ও সিলেট অঞ্চলের হাওড়গুলো থেকে দূর করতে হবে জলাবদ্ধতা , দক্ষিণাঅঞ্চলের অনাবাদী জমিগুলো থেকে দূর করতে হবে লবণাক্ততা, করতে হবে সেচ ব্যবস্থার সম্প্রসারণ, অবিরাম চাষ পদ্ধতির প্রবর্তন করে পরিকল্পনা মাফিক একই জমিতে বছরে ৩-৪ বার ধরণের ফসল উৎপাদন করতে হবে।

কীটপতঙ্গের আক্রমণ থেকে ফসলকে রক্ষা করতে হবে, নদীগুলো সংস্কারের মাধ্যমে বন্যা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। মুনাফাখোর অসাধু ব্যবসায়ীরা সব সময়েই সুযোগ খোঁজে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের। এই অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে বেআইনিভাবে সার ও খাদ্যশস্য গুদামজাত করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে উৎপাদনে ব্যঘাত ও খাদ্য সংকট সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য চলমান অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। আর এর মাধ্যমে ১৬ কোটি ৫১ লাখ বিশাল জনগোষ্ঠীর খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত হবে, ক্ষুধামুক্ত হবে মানুষ। কমবে খাদ্য আমদানি প্রবণতা, বাঁচবে বৈদেশিক মুদ্রা। দেশে ঘটবে উন্নয়ন। সুখী ও সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠবে দেশ। বিশ্ব খাদ্য দিবসে সেটাই আমাদের কাম্য।