খুশকিমুক্ত চুল কালো করার স্থায়ী সমাধান

0
29

মানুষের সৌন্দর্যের অন্যতম আকর্ষণ হল মাথার চুল। অনেকেই খুব অল্প বয়সে স্টাইলের জন্য চুলে সাদা রঙ করে নেন। আবার অনেকে কীভাবে চুল কালো করা যায় সে নিয়ে থাকেন চিন্তায়। অনেকেই পাকা চুলের হাত থেকে মুক্তি পেতে বাজার থেকে নানা ক্যামিকাল মেশানো রঙ বা কলপ কিনেও চুলে ব্যবহার করেন। যা সাময়িক ভাবে চুলকে কালো করে ঠিকই , তবে তা বেশি দিন থাকে না।

কয়েকবার শ্যাম্পু করার পরেই ফের সাদা চুল বেরিয়ে আসতে থাকে। এর ফলে বার বার বাজার থেকে কেনা রঙ চুলে করতে হয়। আবার অনেকে হাজার হাজার টাকা খরচা করে প্রায় প্রতি মাসেই সেলুনে গিয়ে চুলে কালার করান। কিন্তু জানেন কী এতে চুলের ভয়ঙ্কর ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। বার বার চুলে রঙ করলে, চুলের ঘনত্ব কমে যায়। চুল পড়া বেড়ে যায়। চুলের স্বাভাবিক ঔজ্বল্য চলে যায়। খুব কম বয়সেই চুলের কারণে বুড়োটে দেখতে লাগে।

তাই কালো ঝলমলে, স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে নির্ভর করুন প্রাকৃতিক উপাদানে। পাকা চুল কালো করতে পারেন ঘরোয়া উপায়ে। আসুন জেনে নেই কীভাবে সাদা চুল প্রাকৃতিক উপায়ে ঘরেই কালো করবেন।

নারিকেল তেল এবং কালোজিরা

রোদে কালোজিরা ভাল করে শুকিয়ে গুঁড়া করে নিন। হালকা গরম করে নারকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে লাগিয়ে ফেলুন। নারিকেল তেলের অ্যান্টি-ফাঙ্গাল এবং অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান মাথার ত্বকের ছত্রাক সংক্রমণ রুখতে সাহায্য করে। কালোজিরা, চুলের ফলিকল মজবুত করে। অকালে ঝরে যাওয়ার আশঙ্কা অনেকটাই কমে যায়।

অলিভ অয়েল এবং কালোজিরা

নারিকেল তেলের মতোই কার্যকারিতা। তবে স্পর্শকাতর ত্বকের একটু বেশি যত্নের প্রয়োজন। তাই কালোজিরার সঙ্গে মিশিয়ে নিন অলিভ অয়েল। হালকা গরম করে, সপ্তাহে তিন দিন ব্যবহার করুন এই তেল। আধ ঘণ্টা রেখে মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

আমলকি ও হেনা

চুলের যত্নে যে প্রশাধনী ব্যবহার করা হয়, তার বেশির ভাগেরই প্রধান উপাদান হলো আমলকি। ঘরোয়া উপায়ে পাকা চুল কালো করতে চুলের লেন্থ অনুযায়ী হেনা পাউডার গরম পানিতে ভিজিয়ে পেস্ট করে নিন। এবার পেস্টে আমলকি পাউডার ও অল্প কফি মিশিয়ে মিশ্রণটি ভালো করে চুলে লাগিয়ে নিন। ১ ঘণ্টা রেখে চুল ভালো করে শ্যাম্পু করে ধুয়ে নিন।

মেথি ও নারিকেল তেল

অ্যামিনো অ্যাসিড ও লিকিথিন সমৃদ্ধ মেথি আমাদের চুল সাদা হওয়া রোধ করে। নারিকেল তেল গরম তাতে মেথি দানা দিয়ে ১০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। এবার উষ্ণ গরম অবস্থায় মেথি ছেঁকে নিয়ে স্কাল্প ও চুলের গোঁড়ায় ভালো করে মালিশ করুন। রাতে ঘুমানোর আগে মালিশ করে পরদিন সকালে উঠে শ্যাম্পু করে নিলে সব থেকে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

চা পাতা

এছাড়াও চা পাতার পাউডার – ২ চামচ, মেহেদি পাউডার – ২ চামচ, মধু – ১ চামচ , লেবুর রস – ১ চামচ। বাটিতে সব উপকরণ একসাথে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার পরিমাণমতো গরম পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। পুরো চুলে মিশ্রণটি ভালো করে লাগিয়ে আধাঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন।

মেথি ও গুড়

গবেষকদের মতে, চুল কালো করতে দারুণ সহায়ক গুড় ও মেথি। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে গুড় মেথি খেতে পারলেই সব সমস্যার সমাধান। চুল গোড়া থেকে মজবুত তো হবেই সেই সঙ্গে কালো হতে শুরু করবে পাকা চুলও। আগের দিন রাতে মেথি ভিজিয়ে রেখে সকালে ভালো করে মেথি বেঁটে নিয়ে তাতে একটু গুড় মিশিয়ে খালি পেটে খান। এভাবে তিন মাস করলেই ফল পেয়ে যাবেন হাতে নাতে। যদি ডায়াবেটিসের সমস্যা থাকে, তাহলে সকালে গুড় মেথি না খাওয়াই ভাল। সে ক্ষেত্রে রয়েছে আরও এক পথ। রাতে কিছুটা মেথি পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে প্রথমে মেথি ভেজানো পানি খেয়ে নিন। শরীরের জন্য বেশ ভাল। এর পর মেথি ভাল করে বেঁটে নিয়ে সারা মাথায় ভাল করে লাগিয়ে ফেলুন। গোড়া থেকে চুলের শেষ প্রান্ত পর্যন্ত লাগান। এভাবে মিনিট ৪০ মাথায় রাখুন। তারপর ভাল করে শ্যাম্পু করে নিন। এভাবে সপ্তাহে তিনি দিন করলেই হাতে নাতে ফল পাবেন। তবে মনে রাখতে হবে মেথি কিন্তু ঠাণ্ডা লাগায়। তাই ঠাণ্ডা লাগার ধাত থাকলে মাথায় বেশিক্ষণ না রাখলেও চলবে।

নারিকেল তেল আর লেবু

দু’টেবিলচামচ নারিকেল তেলের সঙ্গে এক টেবিলচামচ লেবুর রস মিশিয়ে চুলে মেখে নিন। সমস্ত চুলে আর স্ক্যাল্পে ঘষে ঘষে মাখতে হবে। হয়ে গেলে আধ ঘণ্টা রাখুন। তারপর সালফেট বিহীন শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে দু’বার করলে পাকা চুলের পরিমাণ আর বাড়বে না।

কারিপাতা

একমুঠো কারিপাতা ধুয়ে পরিষ্কার করে সসপ্যানে দিয়ে তাতে তিন টেবিলচামচ নারিকেল তেল যোগ করুন। এবার সসপ্যান আঁচে বসান। একটু পরেই সসপ্যানে একটা কালো আস্তরণ জমা হতে দেখবেন। আঁচ থেকে নামিয়ে তেলটা ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হয়ে গেলে তেলটা স্ক্যাল্পে আর পুরো চুলে ভালো করে ঘষে ঘষে মেখে নিন। হয়ে গেলে এক ঘণ্টা রাখুন। তারপর সালফেট মুক্ত শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। কারিপাতা আপনার চুলের ফলিকলে মেলানিনের পরিমাণ অটুট রাখে, ফলে পাকাচুল বাড়তে পারে না। তা ছাড়া চুলের বাড়বৃদ্ধিও ভালো হয়।

কালো কফি

চুল রং করতে কফির ব্যবহার অনেকেরই জানা। কড়া করে এক পট কালো কফি তৈপি করুন। ঠান্ডা হয়ে গেলে কফিটা চুলে ঢেলে মাসাজ করুন। হয়ে গেলে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ঠান্ডা পানিতে চুল ধুয়ে নিন। শ্যাম্পু করবেন না। নিয়মিত ব্যবহার করলে চুলে একটা গাঢ় বাদামি শেড পাবেন, সমস্ত সাদা চুলও ঢেকে যাবে।

আলুর খোসা

ছ’টা মাঝারি মাপের আলুর খোসা ছাড়িয়ে নিন। এবার দু’কাপ পানিতে আলুর খোসাগুলো দিয়ে আঁচে বসান। পানি ফুটতে শুরু করলে একটু পরেই একটা ঘন স্টার্চের মতো মিশ্রণ তৈরি হবে। মিশ্রণটা আঁচ থেকে নামিয়ে ঠান্ডা হতে দিন, তারপর ছেঁকে খোসা থেকে তরলটা আলাদা করে নিন। এবার আগে চুলে শ্যাম্পু আর কন্ডিশনিং করুন। চুল ধুয়ে নিয়ে আলুর খোসা সেদ্ধ করা পানি চুলে ধীরে ধীরে ঢেলে নিন। এরপর আর চুল ধোওয়ার দরকার নেই। স্টার্চের মতো দেখতে মিশ্রণটা চুলে পিগমেন্টের পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে, ফলে চুল সাদা হয় কম।