আইন ও আদালত

সাইবার ট্রাইবুনালে ইসলামী আন্দোলনের দুই নেতার জামিন মঞ্জুর


ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন আসলে কন্ঠরোধ আইন। যে আইনের দোহাই দেখিয়ে দেশের বিরোধীদল, মত, সাংবাদিক, আইনজীবি সহ নানান শ্রেণী পেশার মানুষকে হয়রানির সম্মুখীন করা হচ্ছে। ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত একটি মামলা দেখিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার গিয়াস উদ্দিন পরশ ও ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরামের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে আরেকটি নোংরা রাজনীতির ইতিহাস তৈরি করেছ।

১৩ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার গিয়াস উদ্দিন পরশ ও ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম সাইবার ট্রাইবুনাল আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালতের বিচারক জগলুল হোসেন অন্তবর্তীকালীন জামিন পরবর্তী তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, আমরা বিজ্ঞ আইনজীবিদের মাধ্যমে মহামান্য বিচারক মহদোয়কে এ ভিত্তিহীন মামলার বিষয়টি বুঝাতে সক্ষম হয় এবং তিনি দুইজনকেই অন্তবর্তীকালীন জামিন প্রদান করেন। শুধু জামিন নয়, হয়রানীমূলক এ মিথ্যা মামলা থেকে দুইজনেরই নিঃশর্ত অব্যাহতি দিতে হবে।
এ সময় আদালত চত্ত্বর ও আশপাশের এলাকায় ইসলামী আন্দোলনের প্রায় সহ¯্রাধিক নেতাকর্মী অবস্থান নে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১৩ মার্চ রমনা মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে ৫৭(২) ধারায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করেন। সম্প্রতি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ৬ জনকে আসামী করে বিজ্ঞ সাইবার ট্রাইবুনালে চার্জশিট দাখিল করেন।

গিয়াস উদ্দিন পরশের গ্রামের বাড়ি নাটোর জেলার লালপুর থানার রামকৃষ্ণপুর গ্রামে এবং নূরুল করীম আকরামের গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার ফুলগাজী থানার পূর্ব বসিকপুর গ্রামে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button