করোনা সঙ্কট

একদিনে আরও ২৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১৪৪১


গত একদিনে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু কমেছে তার আগের দিনের তুলনায়। এসময় মারা গেছেন ২৫ জন। একই সময়ে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে আরও ১ হাজার ৪৪১ জনের দেহে। আর সুস্থ হয়েছেন ৮৩৪ জন।

সোমবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ হাজার ৬৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে শনাক্ত হন ১ হাজার ৪৪১ জন। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত হলেন ৭ লাখ ৯০ হাজার ৫২১ জন।

এদিকে নতুন ২৫ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৪০১ জনে।

নতুন সুস্থ হওয়াদের নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ৩১ হাজার ৫৩১ জন।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ২১ জন পুরুষ এবং ৪ জন নারী। এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে মোট মারা যাওয়া ১২ হাজার ৩৭৬ জনের মধ্যে পুরুষ ৮ হাজার ৯৬৯ জন এবং নারী ৩ হাজার ৪৩২ জন।

বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ১৩ জনেরই বয়স ৬০ বছরের বেশি। এছাড়া ৫১ থেকে ৬০ বছরের ৭ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের ৪ জন এবং ২১ থেকে ৩০ বছরের একজন রয়েছেন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেয়। পরে তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। দেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়। তারপর ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত বছরের শেষ দিকে এসে সংক্রমণ কমতে থাকে।

চলতি বছরের মার্চ থেকে করোনা সংক্রমণ আবার বেড়ে যায়। মার্চের প্রথমার্ধেই দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের ওপরে চলে যায়। বাড়তে থাকে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত ১৬ এপ্রিল মৃত্যু একশো ছাড়ায়। সেদিন ও তার পরদিন ১৭ এপ্রিল ১০১ করে মৃত্যু হয় করোনায়। ১৮ এপ্রিল ১০২ জন ও ১৯ এপ্রিল ১১২ জন মারা যান, যা একদিনে সর্বোচ্চ।

করোনার সংক্রমণ ও এতে মৃত্যু বাড়তে থাকায় ৫ এপ্রিল থেকে দেশে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়, যা এখনো বহাল। এই বিধিনিষেধে পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। ধীরে ধীরে সংক্রমণ ও দৈনিক মৃত্যু কমলেও আবার সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন