অর্থনীতি

করোনায় সংকটে এনবিআর, রাজস্ব ঘাটতি ৫৬ হাজার কোটি টাকা


করোনার কারণে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে স্থবিরতার মেয়াদ বাড়ছে। করোনার ভয়াল থাবার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে রাজস্ব আদায়ে। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ থাকায় কর দিতে আগ্রহী নন অনেকে। যার কারণে দিনে দিনে বেড়েই চলেছে বাজেট ঘাটতি। যদিও বছরের শুরু থেকে রাজস্ব আদায়ের একটা শ্লথ গতি ছিল। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে মার্চ পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ২১ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। এই সময়ে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ রাজস্ব ঘাটতি ৫৬ হাজার ১৩৮ কোটি টাকা। এ সময়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। করোনার কারণে সংকটে পড়েছে এনবিআর। গত মার্চে রাজস্ব আদায়ে ধস নামে এবং চলতি মাসে রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ছিল ঋণাত্মক।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাজস্ব আদায়ের ধারাবাহিকতা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। তবে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সীমিত পরিসরে এনবিআরের আওতাধীন সব অফিস খুলে দেওয়া হয়েছে। কাজ শুরু করেছে সব শুল্ক স্টেশন। তবে এই সংকট উত্তরণে এনবিআর নতুন উপায় খুঁজছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংকের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, সামনের সময়ে বাজেট ঘাটতি বাড়বে। তাই ঘাটতি মেটাতে সরকারের অর্থায়নের বিকল্প চিন্তা করা উচিত। ভর্তুকি বাজেটে সরকার সাশ্রয় করতে পারে। কারণ ইতিমধ্যে এক্সপোর্ট নেগেটিভে চলে আসছে। তাই ভর্তুকির অর্থ সরকারের সাশ্রয় হবে। এছাড়া বিদেশি ঋণের সুদ এক বছর স্থগিত রাখতে পারে, তবে সেক্ষেত্রে আবেদন করতে হবে। এছাড়া বিদ্যুৎ খাতের যে ক্যাপাসিটি চার্জ দেওয়া হয় তা আপাতত আন্তর্জাতিক আইন মেনে স্থগিত করতে পারে।

সূত্র আরও জানায়, শুধু মার্চ মাসে রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে প্রায় ১১ হাজার ৯৫৫ কোটি টাকা। যেখানে ৩১ হাজার ৩২৩ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছে ১৯ হাজার ৩৬৮ কোটি টাকা। বর্তমানে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের গড় প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৭ শতাংশের বেশি। জুলাই থেকে মার্চ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ২০ হাজার ২৬০ কোটি টাকা ঘাটতি হয়েছে আমদানি শুল্কে।

এ সময়ে ৬৮ হাজার ২৪৬ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আয় হয়েছে ৪৭ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। ভ্যাটে ৮১ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় ৬৪ হাজার ১১১ কোটি টাকা। ঘাটতি ১৭ হাজার ৪২২ কোটি টাকা। ভ্রমণসহ আয়কর ৭১ হাজার ৩২৬ কোটি টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ৫২ হাজার ৯১১ কোটি টাকা।

এদিকে চলতি বছরও কমানো হয়েছে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা। চলতি অর্থবছরের বাজেটে রাজস্ব আদায়ের মোট লক্ষ্যমাত্রা তিন লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তিন লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। আর এনবিআর-বহির্ভূত করব্যবস্থা থেকে আসবে ১৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা এবং বিভিন্ন সেবামূলক থেকে ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্য ঠিক করে রাখা হয়েছে।

চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে মূলত এনবিআরের লক্ষ্যমাত্রা কমানো হয়েছে। এ খাত থেকে ২৫ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে নতুন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তিন লাখ ৬০০ কোটি টাকা। তবে এনবিআর থেকে প্রাপ্তি কমলেও আট হাজার কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে এনবিআর-বহির্ভূত আয়ের লক্ষ্যমাত্রা। সব মিলিয়ে মূল সংশোধিত রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৬০ হাজার ৮১০ কোটি টাকা।

গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে কাটছাঁট করা হয়েছিল ১৬ হাজার ২১০ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত অর্থবছর থেকে চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা আট হাজার ৭৯০ কোটি টাকা বেশি কাটছাঁট করা হয়েছে। অবশ্য গত অর্থবছরের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রাও চলতি অর্থবছরের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা থেকে কম ছিল।

তবে বাজেট বিশ্লেষণে দেখা যায়, প্রতি অর্থবছর রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা সংশোধন করলেও তা কাজে আসছে না। ঘাটতি থাকছেই। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটে ১৬ হাজার ২১০ কোটি টাকা কাটছাঁট করলেও অর্থবছর শেষে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা থেকে ৫৪ হাজার ৮১ কোটি টাকা কম অর্জন হয়েছে। আর মূল লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭০ হাজার ২৮২ কোটি টাকা কম অর্জিত হয়। সংশোধিত বাজেটে তা কাটছাঁট করে দুই লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়। কিন্তু অর্থবছর শেষে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৮ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা কম অর্জিত হয়।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

আরও পড়ুন
Close
Back to top button