দেশজুড়ে

খুলনায় করোনার কারণে ১০টি স্থানে লকডাউন

  • 5
    Shares

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় আশংকাজনকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এ পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৯৫ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১০ জন।

আক্রান্তের দিক থেকে সবচেয়ে বিপদজনক অবস্থানে রয়েছে খুলনা জেলা। এখানে মোট আক্রান্ত দেড় শতাধিক।
করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় ৪ জুন বৃৃৃহস্পতিবার খুলনা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একই সাথে মহানগরীর ১০ টি স্থানে লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। পরবর্তী ঘোষনা না দেওয়া পর্যন্ত ঐসব স্থানে প্রবেশ বা বের হওয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

লকডাউন ঘোষিত স্থানগুলো হচ্ছে – খুলনা মহানগরীর সোনাডাঙ্গা থানার মুজগুন্নি দিঘির পাড়, ৩১/১৭ হাজী ফয়েজ উদ্দিন রোড, ২/১ সিএন্ডবি কলোনী, ছোট বয়রা শান্তিনগর মোড়ে, ৩০/৬ করিম নগর, খুলনা থানার তামিম হাউস, হাজী মহসিন রোড, বেলায়েত হোসেন সড়ক, ইকবাল নগর হাজী মেহের আলী রোড, রূপসা স্ট্যান্ড রোড, দোলখোলা ইসলামপুর বাইলেন, হরিণটানা থানার মোস্তর মোড়, মাতব্বর মার্কেট সংলগ্ন এলাকা।

খুলনা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংক্রামন রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মুল) আইনের ২০১৮ এর ১১ (২) ধারায় এসব স্থানে লকডাউন করা হয়েছে।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন দৌলতপুর থানার কনস্টেবল কালাম হোসেন (৪৩)। তিনি নিয়মিত ডিউটিরত অবস্থায় জ্বর, সর্দি উপসর্গ দেখা দেয়। গত ৩ জুন খুমেক হাসপাতালে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা জমা দেন। ৪ জুন দুপুরে দৌলতপুর থানার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে কালাম করোনা পজিটিভ বলে খুমেক হাসপাতাল হতে রিপোর্ট জানানো হয়। এর ফলে করোনা শংকা ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র থানা জুড়ে। রাত ১০টার দিকে দৌলতপুর থানার অ়ফিসার ইনচার্জ (তদন্ত ) সৈয়দ মোঃ মোশাররফ হোসেনের সিদ্ধান্তে থানার সকল অফিসার ও সঙ্গীয় ফোর্সকে সাময়িক হোম কোয়ারেনটাইনে রাখার জন্য সরকারি দৌলতপুর মুহসিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত করা হয়। গতকাল সকালে কালামের ব্যারাকে অবস্থানরত ২১ জন কনস্টেবলকে নমুনা পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

দৌলতপুর থানার সেকেন্ড অফিসার মোঃ কামরুজ্জামান জানান, দৌলতপুর থানার পুলিশ কনেষ্টবল কামাল হোসেন করোনা লক্ষ্মন দেখা দিলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা করে বৃহস্পতিবার রিপোট পজিটিভ আসে। তিনি বর্তমানে করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্সসহ ৮৩ জন পুলিশ সদস্য দৌলতপুর সরকারী মুহসীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আছেন। তাদের সকলকে করোনা পরীক্ষা করার পর পরবর্তিতে সিদান্ত নেয়া হবে। বর্তমানে নগরীর খালিশপুর থানার ৩০ জন পুলিশ সদস্য ও দৌলতপুর ট্রেট ফাড়ির পুলিশ সদস্যরা দৌলতপুর থানা এলাকার সার্বিক দায়িত্ব পালন করছেন।

দৌলতপুর থানা ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) সৈয়দ মোঃ মোশাররফ হোসেন জানান, তিনিসহ ৮৩ জন পুলিশের সদস্য সরকারী দৌলতপুর মুহসীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে তারা সবাই এসেছেন। গতকাল ২১ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য জমা দেয়া হয়েছে। বাকীদের নমুনা পরীক্ষার জন্য ধারাবাহিকভাবে সরবরাহ করা হবে। বর্তমানে নগরীর খালিশপুর থানার ৩০ জন পুলিশ সদস্য ও দৌলতপুর ট্রেড ফাড়ির ১৯ জন পুলিশ সদস্য দৌলতপুর থানা এলাকার সার্বিক দায়িত্ব পালন করছেন। ওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এসআই এস.এম মনিরুজ্জামান মিলন। খাবার স্কুল প্রাঙ্গণে নিজেরা রান্না করেই খেতে হচ্ছে। স্কুলের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার বলেন, থানার একজন পুলিশ সদস্য করোনা পজিটিভ হওয়ার পর ওসিসহ থানার সকল পুলিশ সদস্য তার স্কুলের বিভিন্ন রুমে রয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে তারা স্কুলে উঠেছেন। করোনা নমুনা পরীক্ষা শেষে তারা তাদের জায়গায় ফিরে যাবেন বলে তিনি জানান।

তবে চিকিৎসকরা বলছেন, এখন শুধুমাত্র বহিরাগত বা তাদের সংস্পর্শে আসা লোকজনই আক্রান্ত হচ্ছে না। বরং বিচ্ছিন্নভাবে সর্বত্র ছড়িয়েছে এ ভাইরাস। ফলে নির্দিষ্ট এলাকা বা বাড়ি লকডাউন করলেই করোনা সংক্রমণ থেকে আর রক্ষা পাওয়া সম্ভব নয়।


  • 5
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button