অবস্থার অবনতি, ভেন্টিলেশনে নাসিম

0
10

সফল অস্ত্রোপচারের একদিনের মাথায় হঠাৎ অবস্থার অবনতি হয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের। হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। তার পরিবার দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন। নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত মোহাম্মদ নাসিম রাজধানীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গতকাল শুক্রবার ( ৫ জুন) ভোরে তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ (ব্রেইন স্ট্রোক) হয়। কালই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. রাজিউল হকের নেতৃত্বে তার মস্তিষ্কে অস্ত্রপচার করা হয়।

চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে। তার অবস্থা স্থিতিশীল বলেও জানানো হয়েছিল। মোহাম্মদ নাসিমের বড় ছেলে তানভির শাকিল জয়ও চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে অস্ত্রোপচার সফল হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন গণমাধ্যমকে। চিকিৎসকরা তার বাবাকে ৪৮ ঘণ্টা বিশেষ পর্যবেক্ষণে রেখেছেন বলে জানিয়েছিলেন তখন।

আজ গণমাধ্যমকে তানভীর শাকিল জয় জানিয়েছেন, চিকিৎসকরা মোহাম্মদ নাসিমকে ৭২ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরপর তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। তিনি অবশ্য জানিয়েছেন, তার বাবার অবস্থা স্থিতিশীল আছে।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, আব্বার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছিল। আজকে ও আগামীকাল এই দুইটা দিন উনার জন্য খুবই ভার্নারেবল। আব্বাকে ওরা ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দিয়ে রাখছে। তবে আব্বার ভেন্টিলেটরের দরকার নাই। যেহেতু উনার এত বড় একটা অপারেশন হয়েছে তাই উনি যেন সম্পূর্ণ অচেতন থাকেন এজন্য ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে।

জয় আরো বলেন, এখন মূল বিষয় হলো আব্বার ব্লাড প্রেশার আর হার্টরেট যে নরমাল থাকে এই জন্য তারা চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এভাবে যদি আর দুই দিন কেটে যায় তারপরে হয়তো আব্বা রিকভারি করতে পারবে। সবার কাছে একটু দোয়া চাই। দেশবাসীর কাছে আব্বার জন্য দোয়া চাই।

গত ১ জুন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম করোনার উপসর্গ নিয়ে রাজধানীর শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হসপিটালে ভর্তি হন। সেদিন রাতেই তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ আসে। অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকাকালে অবস্থার উন্নতি হওয়ায় গতকালই তাকে কেবিনে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। এর মধ্যেই ভোরে তার স্ট্রোক হয়। আরও ভালো চিকিৎসার জন্য তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। গতকাল সকালে সিএমএইচের অ্যাম্বুলেন্সও এসেছিল তাকে নিয়ে যেতে। কিন্তু শরীরের অবস্থা বেশি খারাপ হয়ে যাওয়ায় সেটি সম্ভব হয়নি।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিহত জাতীয় চার নেতার একজন এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিম কয়েক দশক ধরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা।১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভায় মোহাম্মদ নাসিম কয়েকটি মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন। সে সময় তিনি স্বরাষ্ট্র, ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়া বিগত সরকারের তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে টানা পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান মোহাম্মদ নাসিম। তার মেয়াদেই দেশের স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনা চরম আকার ধারণ করে বলে অভিযোগ আছে। ওই ধারাবাহিকতা এখনো চলছে। তাতে দেশের স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা অনেকটাই ভেঙ্গে পড়েছে, বিশেষ করে সরকারি হাসপাতালগুলোতে কিছু ভৌত অবকাঠামো ছাড়া চিকিৎসা সেবা বলতে সেখানে তেমন আর কিছু নেই। গণহারে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের অনুমোদন দেওয়া হয়। ব্যাঙের ছাতার মত ছড়িয়ে পড়া এসব মেডিক্যাল কলেজের বড় অংশেই ন্যুনতম শিক্ষার পরিবেশ ও মান নেই। ফলে অনেক মেডিক্যাল কলেজ থেকে চিকিৎসকের নামে এমন সব তরুণ-তরুণী বের হয়ে আসছেন যারা চিকিৎসা ব্যবস্থায় উল্টো ঝুঁকি বাড়িয়েছে।