এই দেশে গার্মেন্টস শ্রমিক কি মানুষ না?

0
16

বিজি এমইএ সভাপতি রুবানা হক বলেন, করোনার কারণে ৫৫ শতাংশ সক্ষমতা নিয়ে উৎপাদন চালাতে হলে কারখানাগুলোর পক্ষে শ্রমিক ছাঁটাই ছাড়া উপায় থাকবে না। এটি অনাকাঙ্ক্ষিত বাস্তবতা, কিন্তু করার কিছু নেই।

শ্রমিক যদি না বাঁচে তো বিজিএমই এর কাজ কি,,তাহলে আপনারও থাকার দরকার নেই আপনি নিজেই পদত্যাগ করুন।

সরকার অন্য কোন খাতে ভুর্তকী দেয়নি শুধু গার্মেন্টসে বেতন(এপ্রিল, মে এবং জুন) বাবদ ৫০০০ কোটি টাকা প্রনোদনা দেয়া হয়েছে, তারপরও কর্মী ছাটাই করাটা দুঃখজনক। শ্রমিক যদি ছাঁটাই করা হবে তাহলে কেন এই শ্রমিকগুলোকে টানাহেঁচড়া করে এনে করোনা আক্রান্তের ষোলকলা পূর্ণ করা হইল? এই দেশে নিম্ন আয়ের মানুষগুলো কি মানুষ না? আর তাদের মাধ্যমে যে করোনা ভাইরাসকে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া হল এর জবাবদিহি কে করবে?এই সেক্টরে অস্বাভাবিক দুর্নীতি।

এই দেশের শিক্ষিত বেকার যুবকদের/যুবতীদের নামকাওয়াস্তে মুজুরী দিয়ে নিজেরা টাকার পাহাড় বানাচ্ছে। একটা গার্মেন্টস থেকে রাতারাতি কয়েকটি গার্মেন্ট এর মালিক হয়ে যাচ্ছে। দেশে বিদেশে বাড়ি বানাচ্ছে, টাকা পাচার করে নিয়ে যাচ্ছে ব্যাংক লোন নিয়ে। তার পড়েও এরা সরকারের প্রনোদনা ছাড়া চলতে পারে না।