দেশজুড়ে

গর্ভবতী হাতিকে হত্যার ঘটনায় আটক ২

  • 22
    Shares

ভারতের কেরালা রাজ্যে গর্ভবতী হাতিকে আনারসের মধ্যে বাজি পুরে হত্যা করার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দু্ই ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ ও বন দফতরের যৌথ তদন্ত কমিটি। এদের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আরেকজনকে আজকের মধ্যেই গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানা গেছে।

ওই রাজ্যের বনমন্ত্রী কে রাজুর বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যিম হিন্দুস্তান টাইমস।

গ্রেপ্তারকৃত ব্যকিাতর নাম পি উইলসন। তিনি রাজ্যের মশলা ও অর্থকরী ফসল উৎপাদনকারী একটি এস্টেটের কর্মী। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে আটক করা হয়েছে আরও একজনকে। তবে তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। আজ বিকেলের মধ্যে তাকেও গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানিয়েছেন বনমন্ত্রী। এই দুই ব্যক্তি এই মূহূর্তে পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন।

আটককৃতরা পুলিশকে জানিয়েছেন, হাতি নয়, তারা আসলে বুনো শুয়োরকে খেদানোর জন্যেই ওই বাজি ভর্তি আনারস রেখে দিয়েছিল। ওই রাজ্যে বুনো শুয়োররা এসে ফসল ধ্বংস করে থাকে। এজন্য রাজ্যের কৃষকরা এদের নিধন করতে ফলের মধ্যে বাজি ভরে ফেলে রাখে। দীর্ঘদিন ধরে এটি বন্ধ করার দাবি জানিয়ে আসছেন ভারতের পরিবেশ কর্মীরা। কিন্তু এটি বন্ধ হয়নি। যার ফলে মারা গেল এই গর্ভবতী নিরীহ হাতিটি।

গত মাসের ২৭ তারিখের এই ঘটনা একটি ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। হাতিটি বাজি ভর্তি আনারস খেয়ে যন্ত্রনায় ছটফট করতে করতে ভেলিয়ার নদীতে যায়। পরে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে সোচ্চার হয়ে উঠেছে সেখানকার সব শ্রেণি পেশার মানুষ। যদিও ভারতের এ ধরনের পশু হত্যা কোনও নতুন ঘটনা নয়। ্েভোবে শুকর হত্যার কথা তো আগেই বললাম।

এদিকে হাতিটি কোথায় মারা গিয়েছে এই নিয়েও রাজ্যজুড়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। প্রথম দিকে ধারণা করা হয়েছিল সেখানকার মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ জেলা মালাপুরামে এই নির্মম হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এই নিয়ে নানান মুসলিম বিরোধী পোস্টে ছেয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়া। পরে জানা যায়, আসলে হাতিটি মারা গিয়েছে হিন্দু অধ্যুষিত পালাক্কাদ জেলায়।


  • 22
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button