আম্পানে ঝিনাইদহে ঘর হারানো বৃদ্ধার ঘর মেরামত করে দিলেন বিল্লাল হোসেন

0
16

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ সারা বিশ্ব জুড়ে চলছে মহামারি করোনা ভাইরাস।প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুর মুখে থুবড়ে পড়ছে।সবাই আতংকে আছে, ঠিক এমনই সময় প্রাকৃতিক দূর্যোগ ঘূর্ণিঝড় আম্পান এসে হানা দেয় ঝিনাইদহ সহ আশেপাশের কয়েকটি জেলাতে।ঘূর্ণিঝড়ের থাবায় কেড়ে নিয়েছে কৃষকের মুখের মিষ্টি হাঁসি।সুপার সাইক্লোন আম্পানে ঝিনাইদহ সহ দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলাদেশের ব্যাপক ক্ষয়- ক্ষতির স্বীকার হতে হয়েছে। শুধু ঝিনাইদহ জেলাতেই আড়াই লাখের অধিক কৃষকের ফসল নষ্ট হয়েছে এবং ঘর বাড়ি ভেঙ্গে গেছে অনেক মানুষের।ঠিক এমনই সময় অসহায় মানুষের পাঁশে এসে দাঁড়িয়েছেন বিশিষ্ট সমাজসেবক, ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, ঝিনাইদহ-সদর উপজেলা যুবলীগের সদস্য এবং আগামী ইউপি নির্বাচনে ঘোড়শাল ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী জনাব বিল্লাল হোসেন।

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ঘর হারানো ঝিনাইদহ-সদর উপজেলার ঘোড়শাল ইউনিয়নের দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামের দ্রুপদী বিশ্বাসের ঘর মেরামত করে দিলেন সমাজসেবক বিল্লাল হোসেন।

জানা গেছে, বৃদ্ধা দ্রুপদী বিশ্বাস একই গ্রামের মৃত বনোমালী বিশ্বাসের স্ত্রী। তিন মেয়ের মধ্যে দুই মেয়ের বিবাহ হয়েছে।এক প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে সরকারি জমিতে কোন রকমের একটি মাটির খুপড়ি বেঁধে থাকে।পরিবারের নেই আয় রোজগারের মানুষ।অসহায় এই মহিলার ঘর সর্বনাশা আম্পান লন্ডভন্ড করে দেয়।নতুন ডেউটিন কিনে ও মিস্ত্রি দিয়ে ঘর দাঁড় করাবার আর্থিক ক্ষমতা তার নাই।এই সংবাদ জানতে পেরে, এই অসহায় বৃদ্ধার পাশে এসে দাঁড়ায় ঘোড়শাল ইউনিয়নের মাটি ও মানুষের নয়নের মধ্যেমণি এবং বিশিষ্ট সমাজসেবক জনাব বিল্লাল হোসেন।

বিল্লাল হোসেন দৈনিক তরঙ্গ নিউজ পত্রিকার সাংবাদিক কে জানান, ঘূর্ণিঝড় আম্পানে আমাদের এলাকার কৃষকদের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।ঘরবাড়ি ভেঙ্গে গেছে অনেক মানুষের।অনেকেরই ঘরবাড়ি মেরামতের আর্থিক সক্ষমতা নাই।আমি সংবাদ পায় দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামের বৃদ্ধা দ্রুপদী বিশ্বাসের একমাত্র থাকার ঘরটির চাল উড়ে গেছে।মাটির দেওয়াল ভেঙ্গে গেছে।আমি তাক্ষণিক ভাবে মিস্ত্রি ঠিক করে বাড়তি ডেউটিন কিনে তার ঘর মেরামতের ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

দ্রুপদী বিশ্বাস জানাই, খাওয়ার জোগাড় করতে পারি না ঘর ঠিক করবো কেমন করে।আমি সৃষ্টিকর্তার কাছে আশির্বাদ করি।আমার ছেলে নেই, এক মেয়ে মানসিক প্রতিবন্ধী। সরকারি জমিতে থাকি।ভিক্ষা করে খায়।এই বিল্লাল কাকা আমার ছেলের মত কাজ করেছে।

বিল্লাল হোসেন করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যে ইউনিয়নের প্রতিটা মসজিদ এবং মাদ্রাসায় সাবান, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ সহ খাদ্য সহায়তা দিয়ে পাশে আছে ঘোড়শাল ইউনিয়নের অসহায় মানুষের।