শ্রীনগরে নৌকা তৈরির ধুম

0
12

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুরের সভ্যতার প্রতীক কোষা নৌকা তৈরিতেতে কাঠ মিস্ত্রিদের ব্যস্ততা বেড়েছে। আসন্ন বর্ষায় গ্রাম অঞ্চলে নৌকার বিকল্প নেই। বছরের আষাঢ় থেকে কার্তিক পর্যন্ত প্রত্যন্ত গ্রাম কিংবা বিল পাড়ের মানুষের যাতায়াতে অন্যতম বাহন এই নৌকা। তাই এখানকার মানুষের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন হাটে বাজারে কোষা নৌকা বিক্রি হয়ে থাকে।

ছোট বড় বিভিন্ন সাইজের নৌকা তৈরীতে নৌকার কারিগররা এখন সবাই ব্যস্ত। এই অঞ্চলের তৈরি নৌকাগুলো জেলার গোয়ালীমান্দ্রা, দেউলভোগ, নওপাড়া হাট, বাড়ৈখালীসহ বিভিন্ন নামিদামি হাটে বিক্রি হয়ে থাকে। লক্ষ্য করা গেছে শ্রীনগর উপজেলার দেওলভোগ, রানা, জুরাসার হাঁসাড়া এলাকায় কাঠ মিস্ত্রিরা রেডিমেট ভাবে বিভিন্ন আকারের নৌকা তৈরি করছেন। এখানে ছোট ছোট ডিঙ্গি, বিভিন্ন আকারের কোষা নৌকা বানানো হচ্ছে। এগুলো আকার ও কাঠের মানের ওপর দামদর হয়। বিশেষ করে এখানে কড়ই ও চামবল কাঠের নৌকা বেশী তৈরি হচ্ছে। সর্বনিম্ন ২০০০-৫০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত প্রতিটি নৌকার মূল্য ধরা হচ্ছে। তৈরি নৌকাগুলো জেলার বিভিন্ন হাট বাজারে নিয়ে বিক্রি করা হয়। এর মধ্যে গোয়ালীমান্দ্রায় তাদের বানানো কোষা নৌকা বেশী বিক্রি হয়ে থাকে বলে জানা যায়।

এসময় নৌকার কারিগর, বলরাম বাড়ৈ, মাধব, শশী নাথসহ অনেকেই বলেন, এই শিল্পে আগের মত ব্যস্ততা নেই। এখন নৌকা চলাচলের জায়গা কই? সব ভরাট হয়ে যাচ্ছে। নৌকা চলাচলের সীমানা ধীরে ধীরে ছোট হয়ে আসছে। তারপরেও বর্ষার সিজনকে সামনে রেখে কিছু নৌকা বানিয়ে রাখছি। অনেকই বিশেষ প্রয়োজনে নৌকায় চলাচল করেন। আমাদের এখানে বিভিন্ন সাইজের নৌকা বানানো আছে। এগুলো অনেকেই স্থানীয়ভাবেও এখান থেকেই কিনে নিয়ে যান। আবার স্থানীয় সাপ্তাহিক হাট বাজার গুলোতেও এই নৌকা বিক্রি করতে যাই।

এ সময় নৌকা কিনতে আসা মো. রিপন হাওলাদার বলেন, আমি একজন কৃষক বিভিন্ন কাজেকর্মে বিলে যেতে হয়। গরুর ঘাস আনতে নৌকার কোনও বিকল্প নেই। তিনি বলেন, তার গৃহস্থালী কাজের জন্য ১০-১২ হাতের একটি কোষা নৌকা প্রয়োজন। তার পছন্দের নৌকাটি দাম হাকানো হচ্ছে ৫০০০ হাজার টাকা। আলম মিয়া, জালাল হোসেন বলেন, তারা এখানে ছোট ডিঙ্গি নৌকা নিতে আসছেন। তারা প্রতিটি কোষা নৌকা ২০০০ হাজার টাকায় নিয়েছেন। বর্ষার সিজনটি এই কোষা নৌকা দিয়েই পার করবেন তারা।