দেশজুড়ে

খুলনায় করোনার মধ্যেও চলছে রমরমা মাদক ব্যবসা

  • 19
    Shares

খুলনা প্রতিনিধি : ভয়াবহ করোনার মধ্যেও খুলনায় মাদক কারবারীদের রমরমা ব্যবসা অব্যাহত রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশেষ করে মহিলা ও যুবকদের বিরুদ্ধে ব্যাপকভাবে ইয়াবা সহ বিভিন্ন ধরনের মাদক কেনাবেচার অভিযোগ রয়েছে।

মাদকের বিরুদ্ধে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি)’র গোয়েন্দা বিভাগ কঠোর অবস্থান নিয়েছে। মাদক সেবন ও মাদক পাচার রোধে একের পর এক অভিযান অব্যাহত রেখেছে গোয়েন্দা বাহিনী। আইনের চোখকে ফাঁকি দিতে মাদক বিক্রেতারা ভিন্ন কৌশলে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

কেএমপি’র গোয়েন্দা বিভাগের তালিকা অনুযায়ী ৮ থানায় পুরুষ-মহিলা মিলে ৬৮৭ জন মাদক বিক্রেতা রয়েছেন। এদের মধ্যে অধিকাংশ মাদক ব্যবসায়ীকেই মাদকসহ আটক করা হয় । কিন্তু পরবর্তীতে জামিনে বেরিয়ে এসে এই ব্যবসায় তারা জড়িয়ে পড়ে । আবার অনেকে গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে । বিভিন্ন স্থানে গোয়েন্দা বিভাগ মাদকবিরোধী অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেন। এ সময় ইয়াবা, ফেনসিডিল, মদ ও গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

কেএমপি’র গোয়েন্দা বিভাগের উর্ধতন একজন কর্মকর্তা বলেন, বতর্মান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। সেই যুদ্ধে আমরা মাঠে রয়েছি। মাদক চোরাকারবারীরা যতই কৌশল অবলম্বন করুক না কেনো আমাদের জালে তারা ধরা পড়বেই। তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে অব্যাহত অভিযান থাকায় ইয়াবা ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছে । পেটের ভেতরে বিশেষ কৌশলে ইয়াবা ঢুকিয়ে পাচার করা হচ্ছে। কখনও পলিথিনে পেঁচিয়ে মুখ দিয়ে, কখনও বিশেষ কায়দায় পায়ুপথ দিয়ে ইয়াবা ঢোকানো হয় পেটের ভেতর। পরে নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছে তা বের করা হয় মলত্যাগের মাধ্যমে।

ইয়াবা ব্যবসায়ীরা সাধারণ বহনকারীদের অর্থের লোভ দেখিয়ে প্রাণঘাতি এই কৌশলে ইয়াবা বহনে বাধ্য করাচ্ছে। নগরীতে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের মাদকসহ আটক করা হচ্ছে।

সমাজ গড়া আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর একার পক্ষে সম্ভব না উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের এগিয়ে আসতে হবে।

কেএমপি গোয়েন্দা বিভাগের সূত্র মতে, তাদের তালিকা অনুযায়ী নগরীর ৮টি থানায় ৬৭৮ জন মাদক বিক্রেতা রয়েছেন। এর মধ্যে দৌলতপুর থানাধীন এলাকায় ১০০ জন, সদর থানাধীন এলাকায় ১২০ জন, সোনাডাঙ্গা মডেল থানাধীন এলাকায় ৯০ জন, খালিশপুর থানাধীন এলাকায় ২০৫ জন, খানজাহান আলী থানাধীন এলাকায় ৪০ জন, আড়ংঘাটা থানাধীন এলাকায় ৪০ জন, লবণচরা থানাধীন এলাকায় ৭৮ জন ও হরিণটানা থানাধীন এলাকায় ২৫ জন মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ইয়াবার ক্ষেত্রে চোরাকারবারীরা পলিথিনে পেঁচিয়ে টিউবের মতো তৈরি করে থাকে। একেকটি টিউবে ৪০০ থেকে ৫০০ ইয়াবা ট্যাবলেট থাকে। এগুলো কখনও কলার ভেতরে ঢুকিয়ে মুখ দিয়ে গিলে খাওয়া হয়। আবার কখনও বিশেষ কৌশলে মলদ্বার দিয়ে পেটের ভেতরে ঢোকানো হয়। ২০-২৫টি টিউব একসঙ্গে পেটের ভেতরে ঢুকিয়ে বহনকারীরা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাত্রা শুরু করে। পথে তারা তল্লাশির মুখোমুখি হলেও তাদের ধরা যায় না।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন ডাক্তার বলেন , ‘এটা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ একটা বিষয়। পেটের ভেতরে ইয়াবা ঢোকানো হলে যেকোনও সময় মৃত্যু হতে পারে। বিশেষ করে পলিথিনে পেঁচিয়ে ইয়াবা পেটে ঢোকানো বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ যেকোনও সময় পলিথিন ফেটে বা লিক হয়ে ইয়াবা পাকস্থলীতে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন উক্ত ডাক্তার ।

খুলনা মহানগরীর ৮ থানার সর্বত্রই বিভিন্ন অলিগলিতে মাদকের অবাধ বিকিকিনি চলার কারণে সচেতন মহল উদ্বেগ উৎকন্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে ।


  • 19
    Shares

Related Articles