রাজধানী

গোপালগঞ্জ পৌরবাসী জলাবদ্ধতার শিকার : ভোগান্তিতে হাজার হাজার মানুষ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : বৃষ্টির দিন আসলেই গোপালগঞ্জ পৌর সভার বেশ কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতা শুরু হয়ে ভোগান্তির শেষ থাকে না এলাকাবাসীর। প্রথম শ্রেনীর পৌরসভার বাসিন্দা হয়েও ৫/৭ হাজার পৌরবাসী প্রতি বছরই বছরের অন্তত তিন মাস পানি বন্দি অবস্থায় থাকেন। পৌর কর্তৃপক্ষকে বার বার জানিয়েও কোন ফল পাননি এখানকার অধিবাসিরা। তবে পৌর মেয়র আশ্বাস দিলেন দ্রুতই এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবার। ছবি দেখে কেউ বলতেই পারবেনা এটা কোন বিলাঞ্চলের ছবি, নাকি একটি প্রথম শ্রেনীর পৌরসভার ভিতরকার ছবি। এ চিত্র দীর্ঘ দিনের, দীর্ঘ বছরের। ভোগান্তিও বছরের পর বছর বয়ে বেড়াচ্ছেন এখানে বসবাসকারী ৫/৭ হাজার অধিবাসি।

গোপালগঞ্জ প্রথম শ্রেনী পৌরসভার ২, ৩, ৪ ও ৬ নং ওয়ার্ডের মিয়াপাড়া, পূর্ব মিয়াপাড়া, নিচু পাড়া, চেচানিয়া কান্দি, মান্দারতলা, বেদগ্রাম এলাকার। বৃস্টির দিন শুরু হলেই ভোগান্তির শুরু এখানকার অধিবাসীদের। এ যেন তাদের নিয়তি। পৌর কর্তৃপক্ষকে সব ধরনের ট্যাক্স পরিশোধ করেও তারা নাগরিক সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। রাস্তা-ঘাট বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় এখানকার জনগনকে পানি মাড়িয়ে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করতে হয়। শিক্ষার্থীদেরকে পড়তে হয় আরো সমস্যায়।ড্রেনেজ ব্যবস্থা এখনো গড়ে না ওঠায় পানি অন্যত্র সরে যেতে না পেরে এসব এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। শহরে বাস করেও যেন মনে হয় কোন বিলাঞ্চলে বসবাস করছেন তারা।

মিয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা মুজিবুল হক মিন্টুসহ ওই এলাকার বাসিন্দারা জানান, এ অবস্থায় তাদেরকে যে কত অসুবিধা পোহাতে হয় তা বলা মুসকিল। শিক্ষার্থীরা ঠিক মত স্কুলে যেতে পারেনা। অসুস্থ রোগী নিয়ে হাসপাতালে যাওয়াও কষ্টকর হয়ে পড়ে। শহরে বাস করেও বাঁশের সাকো দিয়ে চলাচল করতে হয়। কোথাও কোথাও নৌকা না হলেও চলে না।

পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী ওই সকল এলাকার বাসিন্দাদের দুরবস্থার কথা শিকার করে বলেন, তাদের সমস্যা দীর্ঘ দিনের। এটি দ্রুত সমাধান সম্ভব নয়। তবে পৌরসভার এই জলাবদ্ধতা দূর করতে তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রযেছে এবং যতদ্রুত সম্ভব তার পক্ষ থেকে সব ধরনের পদক্ষেপ নেবেন বলে আশ্বাস দেন তিনি।

জলাবদ্ধতার শিকার হাজার হাজার পৌরবাসী শুধু আশ্বাস নয়, তারা চায় তাদের সমস্যার দ্রুত সমাধান।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.