সকাল ৮:৩৪ বৃহস্পতিবার ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

একদিনেই সৌদি আরব ছাড়লেন ১ হাজারের বেশি সৌদি নারী! | কিশোরকে অ'পহ'রণ করে ৪০ দিন যৌ'নদা'স হিসেবে ব্যবহার ৩৮ বছরের নারীর | কাতারে নিজেদের বিপদ নিজেরাই ডেকে আনছেন বাংলাদেশিরা | অল্পের জন্য বেঁচে গেলো তিন ক্রিকেটারের! | সরকারি জমি দখলকে ফৌজদারি কার্যবিধির অধীনে বিচারের আইন হচ্ছে: ভূমিমন্ত্রী | ইমরান খানের সঙ্গে দেখা করতে চান বিল গেটস | চীনের সঙ্গে যুদ্ধে কয়েক ঘণ্টায় পরাজিত হবে যুক্তরাষ্ট্র! | ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদম্বরম গ্রেপ্তার | রামপালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের স্বরনে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত | মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপিত হবে শূকরের হার্ট ও কিডনি! |

উত্তরায় ঈদ তাঁত ও বস্ত্র মেলা শেষ হলেও মাঠ ছাড়েনি মেলা কমিটি

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ১৬, ২০১৭ , ১১:২৯ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ঢাকা
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস,এম মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর অভিজাত উত্তরা মডেল টাউনের পশ্চিম থানা এলাকার সোনার গাঁও জনপথ সড়কের উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টর জমজম টাওয়ারের পশ্চিম পাশে পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে মাস ব্যাপী তাঁত ও বস্ত্র মেলা শেষ হলেও এখন পর্যন্ত মাঠ ছাড়েনি প্রভাবশালী মেলা কমিটি। গত প্রায় ২০ দিন যাবত মেলা কমিটি রাজউক,ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও প্রশাসনকে কোন তোয়াক্কা না করে এখনও পর্যন্ত প্রভাবখাটিয়ে সরকারী কোটি কোটি টাকার জায়গা জবর দখলে রেখেছে। মেলা কর্তৃপক্ষ মেলার ভাউন্ডারী টিনের ভেড়া ও মার্কেটটি এখনও পর্যন্ত ভেঙ্গে নেয়নি ।

রাজউক,ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও স্থানীয় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সব কিছু দেখে ও না দেখান বান করে নিরব ভূমিকা পালন করছে। রাজউকের উত্তরা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মহিউদ্দিন আহমেদ,ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা নাকে তৈল দিয়ে ঘুমায়। এ যেন বলতে গেলে অনেকটা মগের মুল্লুক। তাহলে স্থানীয় এলাকাবাসি, ভুক্তভোগী ও সাধারণ মানুষের প্রশ্ন ?

এবিষয়ে উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টরের তাঁত ও বস্ত্র মেলার মাঠ উচেছদের জন্য সমগ্র উত্তরাবাসি ও সচেতন মানুষ বর্তমান সরকারের মাননীয় গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, রাজউক চেয়ারম্যান,গনপূর্ত বিভাগের সচিব, (রাজউক) উত্তরা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মহিউদ্দিন আহমেদ,উত্তরা বিভাগের পুলিশের ডিসি সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের উধর্বতন কর্মকর্তাদের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

স্থানীয় এলাকাবাসিদের প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায়, উত্তরা পশ্চিম থানা এলাকার সোনার গাঁও জনপথ সড়কের উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টর জমজম টাওয়ারের পশ্চিম পাশে প্রতি বছরের ন্যায় পবিত্র ঈদ-উল ফিতরকে পুঁজি করে মাস ব্যাপী তাঁত ও বস্ত্র মেলা ২০১৭ বসানো হয়েছিল। উর্দুভাষী জনগোষ্ঠী (বিহারী) সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: শাকিল আহমেদ এর শেল্ডারে তার সহযোগী ব্যবসায়ী পার্টনার মো: স্বপন মিয়ার নামে প্রতিবছর পুলিশ প্রশাসন ও রাজউকের মাধ্যমে মেলা বসানোর নামমাত্র অনুমতি নিয়ে চলতি বছর এই তাঁত ও বস্ত্র মেলা বসানো হয়েছিল।

রমজানের প্রথম রোজা থেকে শুরু করে চাঁদ রাত পর্যন্ত মেলার অনুমতি ছিল। কিন্তু মেলা শেষ হয়ে গেলেও মেলা কর্তৃপক্ষ গত ২০ দিনে উত্তরা পশ্চিম থানার ১৩ নম্বর সেক্টরের সোনার গাঁও জনপথ সড়কের পশ্চিম পাশে রাজউকের ৩৫,৩৭ ও ৩৯ নম্বর প্রায় ৬০ কাঁঠা সরকারী কোটি কোটি টাকার জমি এখনও পর্যন্ত জবর দখলে আছে। মেলা কর্তৃপক্ষ রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর উত্তরা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মহিউদ্দিন আহমেদ,উত্তরা পশ্চিম থানার কতিপয় পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা,সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তাকে এখনও পর্যন্ত ম্যানেজ করে মালামাল না সরিয়ে ফের জমি দখলে রয়েছে। সেই সাথে লোক দেখানে কিছু দোকানপাট ভেঙ্গে তার মালামাল মেলার মাঠে স্তুপ করে রাখা সহ লোক ও পথচারীদের যাওয়া আসার রাস্তাটি ও মেলার গেইট বন্ধ করে রেখেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উত্তরা ১৩ নম্বর ও ১১ নম্বর সেক্টরে বসবাসরত বাসিন্দাদের অভিযোগ, মেলা শেষ হয়ে গেলে ও মেলার আসবারপত্র,গেইট,টিনের ভেড়া ও অন্যান্য মালামাল ভেঙ্গে নেয়নি মেলা কর্তৃপক্ষ। মিরপুর বেনারসী পল্লী বিহারী নেতা মো: শাকিল আহমেদ এর শেল্ডারে ও তার সহযোগী ব্যবসায়ী পার্টনার পুরানো ঢাকার লালবাগের মো: স্বপন মিয়া এই তাঁত ও বস্ত্র মেলা বসিয়েছে।

হোটেল ব্যবসায়ী মো: নাছির উদ্দিন,গাড়ী ব্যবসায়ী মো: মানিক মিয়া ও চা দোকানদার মো: শাহিন এবং পরিবহন শ্রমিক নেতা বশির আহমেদ অভিযোগ করে জানান, মেলা কর্তৃপক্ষ মেলা শেষ হবার গত ২০ দিনেও তাদের মালামাল সরিয়ে নেয়নি। মানুষের চলাচল করার পথটি মেলা কর্তৃপক্ষ মেলার গেইটটি বন্ধ করে দেওয়ার কারণে চলাচলের ক্ষেত্রে বিঘœ সৃষ্টি করছে। তারা আরও জানান, নতুন করে আবার মেলা কর্তৃপক্ষ এখানে মেলা করার জন্য পায়তারা ও প্রস্তুতি নিচেছ। আমরা এলাকাবাসি ও ভুক্তভোগীরা এই মাঠে আর মেলা বসতে দিব না। যে কোন মূল্যে এটি প্রতিহত করা হবে।

অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর উত্তরা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মহিউদ্দিন আহমেদ ও তার সহযোগীদেরকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে প্রতিবছর রাজউকের উধর্বতন কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে মেলার বসানোর অনুমতি দিয়েছেন এই কর্মকর্তা। বিনিময়ে তিনি মেলা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা কৌশলে হাতিয়ে নিয়ে নিজ পকেট ভারী করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, বিনিময়ে রাজউক,সিটি কর্পোরেশন, হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান,স্থানীয় ইউপি মেম্বার ও উত্তরা ১ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লাখ লাখ টাকার ঘুষ বানিজ্য ও ঈদ বানিজ্য হয়ে থাকে।
একটি সুত্র জানায়,উর্দুভাষী জনগোষ্টী (বিহারী) সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: শাকিল হোসেন দীর্ঘ প্রায় ৬ থেকে ৭ বছর উত্তরার এই মাঠে মেলার বসানোর নামে কয়েকশত ব্যবসায়ী দোকান বরাদ্ব ও মেলায় দোকানপাট দেওয়ার জন্য কৌশলে নামে বেনামে কয়েক লাখ লাখ টাকা লুটপাটের মাধ্যমে নিজে ও তার সহযোগীরা আতœসাৎ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চলতি বছরে মেলা কর্তৃপক্ষ কৌশলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মেলা বাবদ দোকান পাট দেওয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। চলতি বছরের তাঁত ও বস্ত্র মেলা ২০১৭ উত্তরার এই মেলার মাঠে প্রায় ৮০ থেকে ৯০টি দোকান বরাদ্ব দেওয়া হয়। বিনিময়ে এ সমস্ত দোকানদারদের নিকট থেকে গড়ে ৭০ হাজার টাকা করে নিয়েছে মেলা আয়োজক কমিটির প্রধান মো: স্বপন মিয়া ও মো: শাকিল আহমেদ মেলা কর্তৃপক্ষ)।

মেলা আয়োজক কমিটির সদস্য ও ব্যবসায়ী কর্মকর্তা মো: শাকিল আহমেদ এই প্রতিবেদককে জানান, মেলা শেষ হলেও গত ২০ দিনে আমরা মাঠ থেকে আসবারপত্র ও অন্যান্য মালামাল সরিয়ে নিয়ে যেতে পারিনি। তবে,মাঠের কিছু জিসিপত্র খুলে ফেলা হয়েছে এবং বাকী গুলো পর্যায়ক্রমে খুলা হচেছ।

আবার এই মাঠে মেলা বসানো হচেছ কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,অচিরেই এই মাঠে আরও একটি মেলা বসানোর জন্য রাজউক ও প্রশাসনের কাছে একটি আবেদন করা হবে। সে কারণে আমি মেলার মাঠ পরিস্কার, মেলার মাঠ অন্যের দখল হয়ে যাওয়ার ভয়ে মাঠ আমার জবর দখলে রেখেছি।

এব্যাপারে জানতে উত্তরা তাঁত ও বস্ত্র মেলা আয়োজন কমিটির প্রধান মো: স্বপন মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে সে এবিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজী হয়নি।

এবিষয়ে উত্তরা বিভাগের রাজউকের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মহিউদ্দিন আহমেদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে এই প্রতিবেদককে জানান, রাজউক কর্তৃপক্ষ ১৩ নম্বর সেক্টরের সোনার গাঁও জনপথ সড়কের পশ্চিম পাশে রাজউকের ৩৫,৩৭ ও ৩৯ নম্বর প্রায় ৬০ কাঁঠা সরকারী পরিত্যক্ত জমিতে তাঁত ও বস্ত্র মেলা বসানোর জন্য অনুমতি দিয়েছিল। যেহেতু মেলার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, সেহেতু মেলা কর্তৃপক্ষ (স্বপন মিয়া) ও তার পার্টনার শাকিল আহমেদ গংরা তাদের মালামাল মাঠ থেকে সরিয়ে নিয়ে যাবেন।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যদি মেলা কর্তৃপক্ষ তাদের মালামাল অচিরেই সরিয়ে না নিয়ে যায় তাহলে রাজউক কর্তৃপক্ষ সেখানে উচেছদ চালাবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে।

এবিষয়ে জানতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উত্তরা ১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ মো: আফসার উদ্দিন খানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

Comments

comments