রংপুর

“রাজপুর ইউনিয়নে নদীভাঙ্গন রোধে ৩কিঃমিঃ বাঁধ নির্মান করা হবে” ইঞ্জিঃ সাঈদ দুলাল এমপি

আসাদুল ইসলাম সবুজ, লালমনিরহাট ॥
লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের বন্যা ও নদী ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী সমস্যা সমাধানে খুব তারাতারি এখানে একটি ৩ কিলোমিটার বাঁধ নির্মান করা হবে। শনিবার সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের তিস্তার ভাটি অঞ্চলের বসবাসকারী বন্যা কবলিত ও নদী ভাঙ্গন এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার খোঁজ খবর পরিদর্শন শেষে এক মতবিনিময় সভায় লালমনিরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিঃ আবু সালেহ মো. সাঈদ দুলাল এমপি এসব কথা বলেন। বন্যা কবলিত ও নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন শেষে রাতে রাজপুর ইউনিয়নের মারাইরহাট বাজারের সততা ফেডারেশন মাঠে এক মতবিনিময় সভায় রাজপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আবুল কাশেমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ইঞ্জিঃ আবু সালেহ মো. সাঈদ দুলাল এমপি।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন মোফা, গোকুন্ডা ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা স্বপন, গোকুন্ডা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক খোরশেদ আলম মজনু প্রমূখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইঞ্জিঃ আবু সালেহ মো. সাঈদ দুলাল এমপি বলেন, রাজপুর ইউনিয়নের প্রধান শত্রু হলো এই রাক্ষুসী তিস্তা। বর্ষা এলেই এই ইউনিয়নের বেশীরভাগ মানুষেই বন্যা কবলিত ও নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়। ইউনিয়নবাসীর দাবী বন্যা ও নদী ভাঙ্গন রোধে এখানে ৩কিলোমিটার একটি বাঁধ নির্মান। তাদের দাবী আমি সংসদ অধিবেশনে পেশ করে এই অর্থ বছরেই এখানে ৩ কিলোমিটার বাঁধটি নির্মান করার ব্যবস্থা করা হবে।

রাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন মোফা উদ্দেশ্যে করে বলেন, এই ইউনিয়নে বন্যা কবলিত ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সংখ্যা ৪ হাজার। অথচ তাদের জন্য মাত্র ৫০ প্যাকেট শুকনা খাবার ও ৫মে.টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা এই ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের জন্য পর্যাপ্ত নয়। তিনি তার ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোর জন্য আরও বেশী বেশী বরাদ্দ ও রাজপুর ইউনিয়ন রক্ষার্থে ৩ কিলোমিটার বাঁধটি নির্মানের আশ্বাসদেন।

Comments

comments

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.