বিকাল ৫:৫৪ সোমবার ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

শেকড় পাকিস্তান বলে সোনমকে আক্রমন | মিন্নির জামিন শুনানি মুলতবি, মামলার বৃত্তান্ত চেয়েছেন হাইকোর্ট | সিরাজদিখানে ২ কোটি ২৬ লাখ টাকার রাস্তার কাজে অনিয়ম | ঈশ্বরদীতে মাদকসেবী স্বামীর বিরুদ্ধে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ | মোহনপুরে প্রতিবন্ধিদের সাথে গণমাধ্যম ও সমাজ ভিত্তিক সংগঠনের মতবিনিময় | কিশোরগঞ্জ শহরের বিনোদন ও সংস্কৃতিচর্চার প্রাণকেন্দ্র গুরুদয়াল সরকারি কলেজ লেক | ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের জরিমানা এবং সিপিডি’র ব্যাখ্যা | শ্রীনগরে মাদক কারবারী শাহিন ইয়াবাসহ গ্রেফতার | বীরগঞ্জে গ্রাম উন্নয়নের জন্য স্লাব বিতরণ | খুলনার দৌলতপুরে রেলওয়ের জায়গা অবৈধ দখলে |

শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ১৬, ২০১৭ , ৪:১৫ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়,নির্বাচিত
পোস্টটি শেয়ার করুন

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ। ২০০৭ সালের এই দিনে (১৬ জুলাই) তিনি গ্রেফতার হন।

এদিন ভোরে র‌্যাব, পুলিশ এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা শেখ হাসিনার ধানমন্ডির বাসভবন সুধা সদনে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। সেনা সমর্থিত তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুর্নীতি বিরোধী অভিযান চলাকালে দুর্নীতির অভিযোগে বঙ্গবন্ধু কন্যা এবং তৎকালীন সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাকে  নিম্ন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়।

আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়ার পর পরই শেখ হাসিনাকে সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে বন্দি রাখা হয়।

গ্রেফতারের আগে তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি দুর্নীতির মামলা করা হয়। ওইসব মামলায় দীর্ঘ ১১ মাস তাকে কারাগারে আটক রাখা হয়। ওই বিশেষ কারাগারের পাশেই সংসদ ভবন চত্বরে অস্থায়ী আদালত স্থাপন করে তার বিচার প্রক্রিয়াও শুরু হয়।

এদিকে কারাবন্দি অবস্থায় শেখ হাসিনা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন। কারাগারের মধ্যেই তার চোখ, কানসহ বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা চলতে থাকে।

গ্রেফতার হওয়ার প্রাক্কালে শেখ হাসিনা দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, বর্ষীয়ান রাজনীতিক সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানকে আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দেন।

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমানের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা শেখ হাসিনার মুক্তি এবং নির্বাচনের দাবিতে সংগঠিত হতে থাকে। সরকার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করলেও জিল্লুর রহমানের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় সংগঠিত, প্রতিবাদ ও ধীরে ধীরে আন্দোলন গড়ে তোলে। দলের সভাপতির অনুপস্থিতি ও প্রতিকূল পরিবেশ-পরিস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত

সভাপতি জিল্লুর রহমান নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রাখেন এবং নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান।

আবার কারাবন্দি অবস্থায় শেখ হাসিনা নিজেও বার বার দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান। তার আইনজীবী ও চিকিৎসকরা তার সঙ্গে দেখা করতে গেলে তাদের মাধ্যমে তিনি দলকে এ ব্যাপারে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে নেতাদের কাছে বার্তা পাঠান।

অনেক ক্ষেত্রে বন্দি সভাপতি শেখ হাসিনার পরামর্শ নিয়েই দল পরিচালনা ও বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ সময় কারা অভ্যন্তরে শেখ হাসিনার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য জরুরি অবস্থার মধ্যে আওয়ামী লীগ ও এর সব সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও শ্রেণি-পেশার মানুষের পক্ষ থেকে তাকে বিদেশে পাঠানোর দাবি ওঠে।

এক পর্যায়ে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনে ২০০৮ সালের ১১ জুন ৮ সপ্তাহের জামিনে মুক্তি দেয়া হয় শেখ হাসিনাকে। মুক্তি পেয়েই শেখ হাসিনা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যান।

Comments

comments