মোংলার জনগনের কাছে হিরো হয়ে উঠেছেন যিনি

0
17

মোংলা প্রতিনিধিঃ মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে সারাদেশে কর্মহীন হয়ে পড়েছে লাখো মানুষ। ঘরে নেই দুবেলার দুমুঠো খাবার এমন সংকটময় সময়ে ফোন কল বা এসএমএস করলেই ঘরে বাজার পৌছে দিয়ে আসে বর্তমান সময়ের মোংলার অতি আলোচিত এক মুখ। শুধুমাত্র করোনাকালীন সময়ে নয় দেশের বিভিন্ন দূর্যোগকালীন সময়ে সাধারন মানুষের সুখ-দুঃখের বন্ধু হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘূর্নিঝড় “আম্পান” এর সময়ে রাতভোর বিভিন্ন এলাকায় এবং আশ্রয়কেন্দ্র ছুটে যায় তিনি, শুনতে চায় খেটে খাওয়া মানুষগুলোর দুঃখ-দূর্দশার কথা, বাড়িয়ে দেয় সাহায্যের হাত।

জনসাধারনের মুখে মুখে তারই নাম। দিন নেই, রাত নেই অবিরাম ছুটে চলেছেন একের পর এক সামাজিক কাজ হাতে তুলে। ঝড় বন্যা সব উপেক্ষা করে নিজ জীবনের তোয়াক্কা না করে জনগনের পাশে গিয়ে দাড়িয়েছেন বারবার শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এবং পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিম।

কখনও রং এর পাত্র হাতে সড়ক দূর্ঘটনা রোধে রাস্তার স্পিড ব্রেকারে রং লাগাতে, কখনও বল ব্যাট হাতে তরুন যুবকদের সাথে খেলার মাঠে, কখনোও বা বাজারের ব্যাগ হাতে অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার পৌছে দিয়ে আসতে আবার কখনও শক্তহাতে মাদকের বিরুদ্ধে লড়াই করতে দেখা গেছে তাকে। প্রানঘাতি করোনাকালীন সময়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে শহরের রাস্তা, দোকানপাট ও ব্যাংক এর সামনে রং দিয়ে গোল চিহ্ন আঁকতে ও হ্যান্ড মাইক নিয়ে জনসচেতনা মূলক বার্তা পৌছে দিতে ছুটে চলছে এপার থেকে ওপার ।
মোংলা থানা পুলিশের সাথে মিলে তৈরি করেছেন “মানবতার দেয়াল” যেখানে অসহায় দুস্থ্য মানুষ যারা নতুন পোশাক কিনতে পারে না তাদের জন্য রেখে দেওয়া হয় প্রয়োজনীয় পোশাক।

রক্তের অভাবে যাতে আর কেউ মারা না যায় সে কারনে গঠন করেছেন “শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশন” নামক একটি সংগঠন যেখানে রক্তদান করা হয় অসুস্থ্য রোগীদের। এছাড়াও এ সংগঠনটি হাতে তুলে নেয় নানান সামাজিক কার্যক্রম। শহরে জীবানুনাশক স্প্রে ছিটানো, ময়লা আর্বজনা মুক্তকরন, রাস্তার স্প্রিড ব্রেকারে রং করা, অসহায় মানুষের সাহায্য করা, বিভিন্ন সংকটকালীন সময়ে মাইকিং করা ইত্যাদী কাজ করে থাকে এই সংগঠন।

মাদক মুক্ত দেশ গড়ার দৃঢ় প্রদয়ে গঠন করেছেন “মাদক মুক্ত দেশ গড়ি” নামক সংগঠন। যেখানে মাদক মুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে মাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কার্যক্রম করা হয়। এ বিষয়ে জনসাধারনদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, আলহাজ্ব শেখ কামরুজ্জামান জসিম তিনি এক কথায় মাটির মানুষ, আমাদের সকল বিপদে আপদে সবসময় কাছে পেয়েছি তাকে। করোনার এসন সংকটকালীন সময় সে নানা ধরনের সামাজিক কার্যক্রম করে এসেছে তা ছাড়াও অনান্য সময় সে মানুষের খোঁজ খবর নিয়েছে এবং পাশে দাড়িয়েছেন।

শেখ কামরুজ্জামান জসিম বলেন, আমি মাননীয় উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এর নির্দেশে এবং মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেশের এমন সংকটকালীন সময়ে মোংলাবাসীর পাশে দাড়িয়েছি। ঘরে ঘরে খাদ্য সহযোগীতা পৌছে দেওয়ার চেষ্টা করেছি এমনকি যারা কাউকে বলতে লজ্জা পায় তাদের জন্য কল সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছি। আমার নাম্বারে কল বা এসএমএস দিলেই গোপনে তার বাসায় খাদ্য উপহার পৌছে দিয়ে আসি। এছাড়াও আমি মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর ডাক্তার দের সুরক্ষার জন্য পিপিই প্রদান এবং স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র স্থাপন করেছি। পোশাক কিনতে না পারা অসহায় মানুষের জন্য মোংলা থানা পুলিশের পরিচালনায় এবং শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশন এর সহযোগীতায় “মানবতার দেয়াল” স্থাপন করেছি, যেখানে গরীব মানুষের মাঝে পোশাক বিতরন করা হয় । এছাড়াও শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে নানা সামাজিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি।

তিনি আরও বলেন, এমন দূর্যোগময় সময়ে যারা অসহায় মানুষের পাশে এসে দাড়াচ্ছেন তাদের আমি সাধুবাদ জানাই।

এবিষয়ে, “সার্ভিস বাংলাদেশ” এর সভাপতি মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মিলন বলেন, “সার্ভিস বাংলাদেশ’র সম্মানিত উপদেষ্ঠা শেখ কামরুজ্জামান জসিম যিনি পারিবারিক ভাবেই সব সময়ে মোংলার মানুষের আপনজন হিসাবে কাজ করে আসছেন। তরুণ সমাজের অভিভাবক হিসাবে তিনি সব সময় মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে ক্রীড়াকে প্রধান্য দিয়ে যুব সমাজের অহংকার হিসাবে অবস্থান নিয়েছেন। করোনার মহাযুদ্ধের সময় বিপদগ্রস্থ পরিবারগুলোর বাসায় গিয়ে খাদ্যদ্রব্য উপহার দিয়ে এসেছেন। রাজনৈতিক নেতা হয়েও তিনি হয়েছে মোংলাবাসীর নেতা।