জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের এক সদস্য ৫ দিনের রিমান্ডে

0
10

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের অন্যতম সদস্য আব্দুল্লাহ আকাশ (২৫)কে গ্রেফতারের পর আজ রোববার মুন্সিগঞ্জে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হলে শুনানী শেষে বিঞ্জ আদালত ৫ দিনের মঞ্জুর করেছেন। তাকে আদালত থেকে ঢাকা র‌্যাব-২ এর কার্যালয়ে আনা হচেছ।

শনিবার সন্ধ্যায় পাবনার বিসিক শিল্প এলাকা সংলগ্ন কলাবাগান মাঠপাড়া থেকে পলাতক জঙ্গি সদস্য আব্দুল্লাহ আকাশ (২৫)কে গ্রেফতার করে (র‌্যাব-২) এর একটি দল।

এলিট ফোর্স র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী আজ রোববার এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, গ্রেফতারের পর জঙ্গি সদস্য আব্দুল্লাহ আকাশের বাসা থেকে ইমপ্রোভাইজড বোমা তৈরি সরঞ্জাম যেমন- মোটর, ১৫টি সার্কিট, ট্রান্সমিটার, তামার তার, অ্যাডাপটার, কাটার মেশিন, হেক্সো ব্লেড, স্কেল, ড্রিল মেশিন, গ্র্যান্ডিং মেশিন, পাইপ, স্কচটেপ, বৈদ্যুতিক তার, তারকাঁটা উদ্ধার করা হয়। বিভিন্ন শিরোনামে ১৫ সেট উগ্র জঙ্গিবাদী বই, পিডিএফ ডকুমেন্টস ও মোবাইলফোন উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, গত ২৯ মে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে আনসার আল ইসলামের তিন সদস্যকে বিস্ফোরকদ্রব্য ও উগ্র জঙ্গিবাদী বইসহ গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার ও পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে মুন্সিগঞ্জ সদর থানায় মামলা হয়। মামলা নম্বর ৬৬। র‌্যাব-২ মামলাটির তদন্তভার গ্রহণের পর আরও চারজন গ্রেফতার হয়।
এসপি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে সংগঠনটির সাতজন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এলক্ষে শনিবার পাবনার বিসিক শিল্প এলাকা সংলগ্ন কলাবাগান মাঠপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে আব্দুল্লাহ আকাশকে গ্রেফতার করা হয়।

এলিট ফোর্স র‌্যাবের দাবি, মুসলিম ভিলেজ প্রতিষ্ঠা করতে গেলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গ্রেফতারের আশঙ্কা থেকে সশস্ত্র প্রতিরোধের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারা। এজন্য অস্ত্র, বিস্ফোরক সংগ্রহ করে নিজেদের সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টাও করছিলেন জঙ্গিরা সদস্যরা।

পুলিশ সুপার (এসপি) মহিউদ্দিন ফারুকী জানান, বাংলাদেশে ‘মুসলিম ভিলেজ’ নামে একটি গ্রাম থেকে ওই জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা তাদের কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করছিলেন। আনসার আল ইসলামে যোগদানের ক্ষেত্রে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের কোমলমতি যুবকদের টার্গেট করে উদ্বুদ্ধ করে আসছিলেন জঙ্গিরা।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশে ‘মুসলিম ভিলেজ’ নামে একটি গ্রাম থেকে ওই জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা তাদের কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করছিলেন। মুসলিম ভিলেজের কসেপ্ট হলো- সেখানে আল্লাহর আইন হবে, মনুষ্য কোনো নীতিতে গ্রাম চলবে না, কেউ সরকারকে কোনো কর দেবে না।