দেশজুড়ে

উলিপুরে করোনা যুদ্ধে সার্বক্ষনিক মাঠে থেকে লড়াই করছেন সহকারী কমিশনার

  • 200
    Shares

হাফিজুর রহমান সেলিম, উলিপুর (কুড়িগ্রাম): করোনা ভাইরাস সংক্রমন ঝুঁকি প্রতিরোধে উলিপুরের সাহসী যোদ্ধা সহকারী কমিশনার ভূমি। কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলা ভূমি অফিসের ফেসবুক পেজে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। লিখেছেন, ‘আজ সকালে আব্বার সাথে মোবাইলে কথা বলার সময় আব্বাকে বললাম যে মুক্তিযুদ্ধ করিনি কিন্তু একটি যুদ্ধ করছি, করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছি। আব্বা বললেন, এই যুদ্ধিটিও বড় যুদ্ধ, কারন আমরা যার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছি সে এক অদৃশ্য শক্তি। কথাটি শুনে মন ভরে উঠল, কারন মুক্তিযুদ্ধ করতে পারিনি বলে আক্ষেপ ছিল, কারন তখন আমার জন্ম হয়নি। বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণে বলেছিলেন “প্রত্যেক ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোল”। তাঁর কথার সাথে তাল মিলিয়ে বলতে চাই প্রত্যেক ঘরে ঘরে আশ্রয়স্থল গড়ে তোল। উল্লেখ্য যে আমার আব্বাও একজন মুক্তিযোদ্ধা। সকল মুক্তিযোদ্ধার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি আমার লিখাটিতে আঘাত পেয়ে থাকলে। আপনাদের অবদান অতুলনীয়’।

জানা গেছে, সরকারের স্বাস্থ্য নির্দেশনা না মানায় উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারের প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির বিরুদ্ধে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ প্রায় অর্ধশতাধিক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ১ লাখ ১১ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন। মাঠ পর্যায়ে সরকারের এই কর্মকর্তা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শুরু থেকেই নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এ উপজেলার মানুষের শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন তিনি। পৌর শহরের পাইকারী ও খুচরা কাঁচা বাজার হ্যালিপ্যাড এবং উলিপুর শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম মাঠে স্থানান্তার করেছেন। প্রতিদিন সকালে বেড়িয়ে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দোকানপাট বন্ধ করনসহ জনসমাগম রোধ করতে কাজ করে যাচ্ছেন। এই কঠিন সময়ে আন্তরিক ভাবে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় জনগনের পাশে থাকার ব্রত নিয়েছেন তিনি।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের আহবায়ক ফিরোজ আলম মন্ডল বলেন, সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ একজন সৎ সরকারি কর্মকর্তা হিসাবে সবার কাছে পরিচিত। তিনি উলিপুর উপজেলায় যোগদান করেই ভূমি অফিসে ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধ করাসহ ভূমি অফিস দালাল মুক্ত করেছেন। এছাড়াও বাল্য বিবাহ বন্ধ, অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ব্যবহৃত ড্রেজার মেশিন জব্দ করা, দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে দখলে থাকা উলিপুরের আলোচিত পাট হাটির সরকারি জমি উদ্ধার করেছেন তিনি। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের নির্দিষ্টস্থানে দোকান ঘর নির্মানে সহায়তা করে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখেছেন এই কর্মকর্তা। তিনি আরও বলেন, উনার পিতা একজন মুক্তিযোদ্ধা, পিতার আর্দশে অনুপ্রানিত হয়ে করোনা ভাইরাসের অদৃশ্য শত্রুর বিরুদ্ধে এক সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে কাজ করছেন তিনি।

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের উপজেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সার্বক্ষনিক মাঠে থেকে লড়াই করছেন সহকারী কমিশনার ভূমি। করোনা ভাইরাস সংক্রমন ঝুঁকি প্রতিরোধে দিন রাত এক করে সাধারন মানুষদের সচেতনতা বৃদ্ধি ও নিরাপদ রাখার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন এই কর্মকর্তা। দেশের এই দুঃসময়ে সরকারি দায়িত্বের পাশাপাশি দিন বা রাতে উপজেলার যে কোন প্রান্ত থেকেই মোবাইলে কল আসলেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সহায়তার জন্য ছুটে যান তিনি। করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়া উপজেলার অনেক পরিবার খাদ্য সংকটে পড়ে তার ফোন নাম্বারে কল করে সহযোগিতা চাইলে তিনি নিজেই ছুটে যান খাদ্য সামগ্রি নিয়ে। এভাবে উপজেলার দূর্গাপুর, তবকপুর, ধামশ্রেনী, গুনাইগাছ ইউনিয়নের অনেক অসহায় পরিবারকে সাহায্য করেছেন তিনি। এছাড়া ক্ষুদ্র চায়ের দোকানি, নর সুন্দর সম্প্রদায়ের লোকজন ও সোনার দোকানের কর্মচারীসহ অনেকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রি পৌছে দিয়েছেন এই কর্মকর্তা। একই সঙ্গে উপজেলা বাসীর সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য করোনা ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় দেশের বিভিন্নস্থান থেকে এলাকায় ফেরা মানুষজনদের বাড়ি লকডাউনসহ হোম কোয়ারিন্টেন নিশ্চিতে কাজ করছেন তিনি।

উলিপুর বণিক সমিতির সভাপতি সৌমেন্দ্র প্রসাদ পান্ডে গবা বলেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ একজন সৎ ও নির্ভিক অফিসার। করোনার শুরু থেকে অদ্যবধি উনাকে আমরা প্রতিদিন বাজারে শারীরিক দূরত্ব ও জনসমাগম রোধে দায়িত্ব পালনে সক্রিয় ভাবে দেখতে পেয়েছি। উলিপুরের ব্যবসায়ীদের উনি করোনার এই দূর্যোগে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করেছেন। আমরাও সাধ্যমত চেষ্টা করেছি উনার পাশে থাকতে। এই দুঃসময়ে উনার দায়িত্ববোধ প্রশংসনীয়।


  • 200
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button