ফেসবুকে চেয়ারম্যানকে কটুক্তি করায় থানায় অভিযোগ

0
11

সফিকুল ইসলাম শিল্পী, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈলে সরকারি গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে এক ইউনিয়ন চেয়ারম্যানকে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে কটুক্তি করায় থানায় অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঐ চেয়ারম্যান।

ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নন্দুয়ার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জমিরুল ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করতে মুনিষগাঁও গ্রামের হবিবুর রহমানের ছেলে আজাদ আলী মাসখানেক যাবত গণযোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন রকম অপপ্রচার চালিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ করেন উপজেলার ৮ নং নন্দুয়ার চেয়ারম্যান জমিরুল।

এ ঘটনায় চেয়ারম্যান বলেন, রাণীশংকৈল থানায় ২৮ মে বৃহস্পতিবার রাতে একটি অভিযোগ করেছি।

চেয়ারম্যান এর অভিযোগে জানাযায় , ‘মুনিষগাঁও গ্রামের আজাদ আলী মাস খানেক ধরেই জমিরুল চেয়ারম্যানেরর বিরুদ্ধে গনযোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মানহানিকর মিথ্যা, বানোয়াট, রাজাকার উপাধি দিয়ে অপপ্রচার করে । এতে জনপ্রতিনিধি হিসেবে সাধারণ মানুষের কাছে সম্মান ক্ষুন্ন হয়েছে মর্মে তিনি ফেসবুকধারী আজাদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক শাস্তি দাবি করেন।

ঘটনার জের এখানেই থেমে নেই।আবারও নতুন এক ঘটনা ঘটিয়ে বসে মুনিষগাঁয়ের আজাদ আলী।

গত বুধবার সকালে সরকারি গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের রমজান আলী নামে এক ব্যক্তি আজাদ আলীর বিরুদ্ধে প্রায় দুইশত কাঁঠালসহ একটি গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ তোলেন আজাদ আলীর বিরুদ্ধে। এমনকি গাছ কাটার অপরাধে আজাদসহ বেশ ক’জনের নামে অভিযোগ দেন ঐ গ্রামের রমজান আলী নামো এক ব্যক্তি।

রমজান আলী তার অভিযোগে বলেন, বাড়ির ঘরের সাথেই রাস্তারলোক পাশে তিনি দীর্ঘদিন একটি কাঁঠাল গাছ লালনপালন করেন। আর কাঠালও খেয়ে আসছেন প্রায় পনের- বিশবছর ধরে।

গাছটি রাস্তার সাথে থাকায় সরকারের দখলে চলে যাওয়ার গুর্জর ওঠে, কিন্তু রীতিমত কাঁঠাল ভোগ করে আসছিলেন রমজান আলী।

জানা যায়, রমজান আলী মাঠে কাজ করতে গেলে আজাদ আলীর চাচা ইউনিয়ন সদস্যের সহযোগিতায় রাস্তায় চলচলের সমস্যা দেখিয়ে ২৭ মে বুধবার সকাল সাতটায় কাঁঠাল গাছটি কেটে ফেলেন আজাদ আলীসহবেশ কয়েকজন এমন অভিযোগ রমজান আলীর।

কাঁঠাল গাছ কেটে নেওয়ার খবর পেয়ে রমজান আলী ইউ এনও এবং সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান কে বিষয়টি অবহিত করেন।

পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী আফরিদা’র নির্দেশে সেদিনই ঘটনাস্থল তদন্ত করেন উপজেলা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা হর্ষবর্ধন। এবং গাছটি আটক করে নিয়ে আসেন উপজেলায় প্রশাসের আওতায়।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী রমজান আলী জানান, বাড়ির সাথে রাস্তায় পরে যাওয়া গাছটি আজাদ আলী তার চাচা মকবুল হোসেন কেটে নিয়েছেন।

মুনিষগার বাসিন্দা আজাদ আলী জানায়, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গাছটি কাটার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে চেয়ারম্যান জমিরুল ইসলাম বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তবে আজাদ আলী ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে বিষয়টিতে আমাকে দায়ী করেছেন যা সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর, মিথ্যা, বানোয়াট !আমাকে রাজাকার হিসেবও কটুক্তি করেছে ফেসবুকে।

মুনিষগাঁও গ্রামের রাস্তার সরকারি গাছ কাটার সুষ্ঠ বিচার দাবী করেন চেয়ারম্যান জমিরুল ।