বিকাল ৫:২৫ বৃহস্পতিবার ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ক্ষমা চাইলেন তাপস পাল

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৮ , ১১:৪৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিনোদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

‘ভুল করেছি, অন্যায় হয়ে গিয়েছে। গোটা দেশবাসীর কাছে কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।’ জামিনে মুক্তি পেয়েছেন তিনদিন হল। রবিবার ওড়িষা ভুবনেশ্বরের হাসপাতাল থেকে কলকাতার উদ্দেশ্যে যাওয়ার আগে সংবাদমাধ্যমের কাছে কার্যত ভেঙে পড়লেন সাংসদ-অভিনেতা তাপস পাল।২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর রোজভ্যালি কাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়ার ১৩ মাস পর গত ১ ফেব্রুয়ারি তার জামিন মঞ্জুর করে কটকের আদালত। ১ কোটি টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন পান তিনি। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে হাজতবাসের বেশিরভাগ সময়টাই তার কাটে ভুবনেশ্বরের হাসপাতালের বেডে।

শনিবার হাসপাতালে তার রিলিজ অর্ডার পৌঁছায়। তারপর এদিন তিনি হাসপাতাল থেকে বেরোন। তখনই সংবাদমাধ্যমের সামনে নিজের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেন তাপস পাল। রাজনীতি ও অভিনয় থেকে ১৩ মাস দূরে। অসুস্থতার কারণে দীর্ঘদিন হাসপাতালের বেডই সর্বক্ষণের সঙ্গী। এমতাবস্থায় মানসিকভাবে বিপর্যস্ত তিনি।

দীর্ঘদিন পর মুক্তির আস্বাদ পেতেই অতীতের যাবতীয় ভুলের জন্য প্রায়শ্চিত্ত করা ছাড়া গতি নেই তাপস পালের। তাই এদিন ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে নেন তিনি। একইসঙ্গে দ্রুত সুস্থ হয়ে অভিনয় ও রাজনীতির জগতে ফেরার কথাও দিয়েছেন তিনি। বলেন, ‘শরীর ভাল নেই। কলকাতায় ফিরে বিশ্রাম নেব। তবে দ্রুত সুস্থ ফের অভিনয় ও রাজনীতিতে ফিরতে চাই। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী পদক্ষেপ নেব।’

প্রসঙ্গত, ২০০০ সালে রাজনীতির জগতে পা রেখেছিলেন টলিপাড়ার ডাকসাইটে অভিনেতা তাপস পাল। তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিটে বউবাজার ও আলিপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে ২ বার বিধায়ক নির্বাচিত হন তিনি। ২০০৯ সালে কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রে তাপসকে প্রার্থী করে তৃণমূল কংগ্রেস। সাংসদ নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৪ সালেও একই কেন্দ্র থেকে ফের জয়ী হন। কিন্তু, ২০১৬ সালে রোজভ্যালি কাণ্ডে নাম জড়ায় তাপস পালেরও।

ওই বছরের গ্রেপ্তার হন বাংলা ছবির একদা জনপ্রিয় নায়ক। তাকে ভুবনেশ্বরে নিয়ে যায় সিবিআই। প্রায় একই সময়ে রোজভ্যালি কাণ্ডে উত্তর কলকাতার তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কেও গ্রেপ্তার করেছিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল ভুবনেশ্বরে। কিন্তু, কয়েক মাস পর সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় জামিন পেলেও, ভুবনেশ্বরে বন্দি জীবন কাটাচ্ছিলেন তাপস পাল। বেশ কয়েকবার তার জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছিল আদালত।

Comments

comments