দেশজুড়ে

জরার্জীণ মাটির বাড়িতে অসহায় রেনুর বসবাস, জুটেনি বিধবা ভাতা


চারঘাট (রাজশাহী)প্রতিনিধি : রাজশাহী চারঘাট উপজেলায় এক মধ্য বয়সের নারী রেনু বেগম অসহায়াত্তে জীবন যাপন করছে। স্বামী পরিত্যক্তা এই নারী দীর্ঘ ২৪ বছর ৩ মাস অতিবাহিত হলেও জুটেনি তার বিধবা ভাতা। কপালে জুটেনি উপজেলা পরিষদ এবং পৌরসভার সহযোগিতা।

গত ৬ মাস ধরে জরার্জীণ মাটির তৈরী ভাঙ্গা বাড়িতেই জীবনের ঝুকি নিয়ে বসবাস করছে ওই নারী। চারঘাট পৌরসভার ৬ নং ওর্য়াডের মিস্ত্রীপাড়ার মৃত মাহাতাবের স্ত্রী রেনু বেগম। বর্তমান তিনি ২ ছেলে ও ৪ কণ্যার জননী। স্বামী প্রয়াত হবার পর থেকেই খুব কষ্টে জীবন যাপন করছে। স্বামীর ভীটা মাটিতে একটি মাটির বাড়ি ছিল, যা এখন পরিত্যাক্ত ও জরার্জীণ অবস্থায় পরে আছে। কাল বৈশাখী ঝড় আর বর্ষা মৌসুমে বসবাস করা তার পক্ষে অনেক কষ্টকর।

রেনুর ছেলে মেয়েদের সংসার আলাদা হয়েছে, তাদেরও নেই তেমন আয় রোজগার। তবে তিন বেলা কোন মতে পার হয়ে যায়। তার ছেলেরা দিন মজুর করে সংসার চালায়। বর্তমান করোনার মধ্যে সকল ধরনের কাজ কর্ম বন্ধ, অভাব এসে দরজায় কড়া নারাচ্ছে। কিন্ত সে কোন ত্রান পাইনি। হত ২৪ বছর অতিবাহিত হলেও তার বিধবা ভাতা হয়নি। সরকারী বরাদ্দকৃত “জমি আছে বাড়ি নেই” সেটি তার কপালে জুটে নি। মৃত স্বামী মাহাতাব মুক্তি যুদ্ধ করেও পাচ্ছে না কোন সুবিধা। মুক্তিযোদ্ধা গোপাল শীল মৃত মাহতাবের মুক্তিযুদ্ধের কথা শিকার করে বলেন, সে ১৯৭১ সালের ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত যুদ্ধ করেছিলেন।

জাতিয় পরিচয় পত্র কার্ড মতে তার বয়স প্রায় ৫৫ বছর। বাস্তবে তার বয়স ৬৫ উর্ধ্বে এবং বিধবার জীবন ২৪ বছর ৩ মাস চলছে। কিন্ত পাইনি কোন সুবিধা। সর্বপরি রেনু তার অসহায়ত্তের বিষয়ে উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভার বিভিন্ন দপ্তরের দারে দারে ঘুরে পাইনি কোন সাহায্য বলে গনমাধ্যমকে জানিয়েছে।

এবিষয়ে পৌর মেয়র জাকিরুল ইসলাম বলেন, ৯টি ওর্য়াডের কাউন্সিলদের মাধ্যমে সঠিক তালিকা প্রনয়ন করা হচ্ছে। এই পৌরসভার জনসংখ্যা অনুযায়ী ত্রানের পরিমান কম হওয়ায় অনেকে বাদ পড়ছে। কিন্ত বরাদ্দ বুঝে অসহায়দের মাঝে ত্রান বিতরণ করা অব্যহত আছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button