রাত ১০:১৮ রবিবার ১৫ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

উত্তরায় পুলিশের গুলিতে দুই ছিনতাইকারী গুলিবিদ্ব; আহত তিন পুলিশ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ১৪, ২০১৭ , ১:৫১ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : অপরাধ ও দুর্নীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস,এম মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর উত্তরায় ছিনতাই করার সময় পুলিশের গুলিতে আবুল কাশেস (৩৮) ও স্বপন (৩৪) নামে দুইজন ছিনতাইকারী গুলিবিদ্ব হয়ে আহত হয়েছেন। এঘটনায় পুলিশের একজন এসআই সহ ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ব আহত দুই ছিনতাইকারীকে আজ বুধবার দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ধৃত ছিনতাইকারদের নিকট থেকে ২টি চাপাতি,১টি ধারালো ছোরা,১টি রাম চাকু ও সিলভার রংয়ের একটি প্রাইভেটকার উদ্বার করেছে।
উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আলী হোসেন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

(ওসি) মো: আলী হোসেন খান জানান, উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতাল সংলগ্ন কাবার ঘর এর সামনে আজ বুধবার ভোর রাত সাড়ে ৫টার দিকে দুটি প্রাইভেটকারে বেশ কয়েকজন ছিনতাইকারী ছিনতাই করার জন্য অপেক্ষা করছে। এমন সংবাদ পেয়ে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ খবর পেয়ে ছিনতাইকারীদেরকে ধরার জন্য ঝটিকা অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ছিনতাইকারী দলটি উত্তরা আজমপুর বাসস্ট্যান্ড হয়ে আব্দুল্লাহপুর দিয়ে তুরাগের বেরীবাঁধ দিয়ে কামারপাড়া দিকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়।

এসময় উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশের একাধিক টিম রাস্তায় ট্রাক দিয়ে বেরীকেট দেওয়ার চেষ্টা চালায় এবং তাদেরকে গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে ছিনতাইকারী দলের সদস্যরা রাস্তার ওপর তাদের বহনকারী ঢাকা-মেট্রো-গ-২৬-৭৬৩৪ নম্বরের এক্র-ফিল্ডার সিলভার রংয়ের প্রাইভেটকারটি রেখে কৌশলে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদেরকে ধরার জন্য গুলি চালায়। তখন পুলিশের ছোরা গুলি ছিনতাইকারী সদস্য আবুল কাশেস (৩৮) ও স্বপন (৩৪) পায়ে বিদ্ব হলে তারা আহত হয়। তাদেরকে পুলিশ গ্রেফতার করতে গেলে তারা পুলিশের ওপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালালে তিনজন পুলিশ সদস্য আহত হন।

আহতরা হলেন উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই মুসফিকুর রহমান (৩৭),পুলিশ কনস্টেবল আবুল হাসেম (৪০) ও আনসার সদস্য আব্দুল জব্বার (৩৩)। এদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়েছে। এসময় ছিনতাইকারী দলের তিনজন সদস্য টঙ্গী কামার পাড়া এলাকা দিয়ে টঙ্গী তুরাগ নদী সাতরে পার হয়ে পালিয়ে যায়। প্রাথমিক জিঞ্জাসাবাদে আটককৃত ছিনতাইকারী দলের সদস্য স্বপন ও আবুল কাশেস পুলিশকে জানায় যে, তারা একটি সংঘবদ্ব ছিনতাইকারী দলের সাথে জড়িত এবং তারা রাজধানীর উত্তরা সহ বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাই সহ অপরাধমূলক কর্মকান্ড করতো বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। আটক করা ঢাকা-মেট্রো-গ-২৬-৭৬৩৪ নম্বরের এক্র-ফিল্ডার সিলভার রংয়ের প্রাইভেটকারটি তাদের ছিনতাই করা ছিল।

উত্তরা পশ্চিম থানার (ওসি) তদন্ত আব্দুল রাজ্জাক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গুলিবিদ্ব ছিনতাইকারী স্বপনের গ্রামের বাড়ি বরিশাল বরগোনা জেলায় হলে ও বর্তমানে সে পুরানো ঢাকায় বসবাস করত। অপর ছিনতাইকারী সদস্য আবুল কাশেম ঢাকার কদমতলি থানা এলাকায় বসবাস করে। এরা উভয়ের পেশাদার ছিনতাইকারী গ্র“পের সক্রিয় সদস্য।

(ওসি) তদন্ত আব্দুল রাজ্জাক আজ আরও জানান, ছিনতাইকারদের নিকট থেকে ২টি চাপাতি,১টি ধারালো ছোরা,১টি রাম চাকু ও সিলভার রংয়ের একটি প্রাইভেটকার উদ্বার করেছে। এঘটনায় ডাকাতির প্রস্তুতি মামলা ও পুলিশের কর্তব্যকাজে বাধা প্রদান আইনে থানায় দু’টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Comments

comments