মুক্তমত

দিনে হইচই করে কাটাই, রাত হলে……..

বিতর্কিত ও নারী বাদী লেখিকা তাসলিমা নাসরিন।   বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিত হয়ে ভারতে আছেন তিনি।    সেখানেই জীবনে নানান সময়ে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন কথা ও ভবিষ্যত নিয়ে একটি সাক্ষাৎকার দেন টাইমস ওয়ার্ল্ডকে।  বিডি ২৪ রিপোর্ট পাঠকদের জন্য সেই সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হল:

প্রশ্নঃ আপনার কাছে একটা প্রশ্ন।  এই যে লেখালেখি করলেন, এর মূল উদ্দেশ্য কি ছিল, দেহের স্বাধীনতা না চিন্তার স্বাধীনতা?

তসলিমাঃ প্রশ্নটা আপেক্ষিক।  আসলে আমিতো পেশায় ছিলাম চিকিত্সক।  আমার বাবা চেয়েছিলেন তার মতো হতে।  আমিও অধ্যাপক ডা. রজব আলীর মতো একজন খ্যাতিমান চিকিৎসক হই।  শৈশবে, কৈশোর এবং যৌবনে আমি অনুভব করি, নারীরা আমাদের সমাজে ক্রীতদাসীর মতো।  পুরুষরা তাদের ভোগ্যপণ্যের মতো ব্যবহার করে।  এ কারণেই বিষয়গুলো নিয়ে প্রথমে লেখালেখির কথা ভাবি।

প্রশ্নঃ স্বাধীনতার দাবিতে কি আপনার এই লড়াই?

তাসলিমাঃ আমি প্রথমত নারীর জরায়ুর স্বাধীনতার দাবি তুলি।  একজন পুরুষ যখন চাইবে, তখনই তার মনোস্কামনা পূর্ণ করতে ছুটে যেতে হবে।  এটা তো হতে পারে না।  অথচ তখন ছুটে না গেলে জীবনের সব পূণ্য নাকি শেষ হয়ে যাবে।  চিন্তার স্বাধীনতা না থাকলে ভালো লেখক হওয়া যায় না।  দেহের স্বাধীনতার বিষয়টা গৌণ।  তবে একেবারে ফেলনা নয়।  পুরুষই একচেটিয়া মজা লুটবে, নারী শুধু ভোগবাদীদের কাছে পুতুলের মতো হয়ে থাকবে, এটা মেনে নিতে পারিনি।

প্রশ্নঃ এখন আপনি কী চান?

তাসলিমাঃ অনেক কিছু।  আমার হারিয়ে যাওয়া জীবন, যৌবন, ভোগ-উপভোগ, স্বামী-সন্তান, পরিবার-পরিজন।  কিন্তু দিতে পারবেন কি? আজ আমি নিজ দেশের কাউকে দেখলে কুণ্ঠিত ও লজ্জিত হই।  খ্যাতি, অর্থ, পুরস্কার সবই আছে, তবুও মনে হয় আমি ভীষণ পরাজিত।  দিনে হইচই করে কাটাই, রাত হলে একাকিত্ব পেয়ে বসে।  আগের মতো পুরুষদের নিয়ে রাতকে উপভোগ করার মতো শরীর মন কোনোটাই নেই।

প্রশ্নঃ এখন কেমন পুরুষ বন্ধু আছে?

তাসলিমাঃ এক সময় অনেক ব্যক্তিত্ববানদের পেছনে আমি ঘুরেছি।  ব্যক্তিত্বহীনরা আমার পেছনে পেছনে ঘুরেছে।  আজকাল আর সুখের পায়রাদের দেখি না।  মনে হয় নিজেই নিজেকে নষ্ট করেছি।  পরিচিত হয়েছি নষ্ট নারী, নষ্টা চরিত্রের মেয়ে হিসেবে।  লেখালেখি করে তাই এসব পুরুষদের উপর আমার রাগ, ঘৃণা ও অবহেলাকে প্রকাশ করেছি।  যৌনতার রানী হিসেবে প্রকাশিত হলাম, অথচ এই রানীর কোনো রাজাও নেই প্রজাও নেই।  এই জন্য আজ হতাশায় নিমজ্জিত আমি।

প্রশ্নঃ ধর্ম-কর্ম করেন?

তাসলিমাঃ মাঝেমধ্যে মনে হয় সব ছেড়ে নামাজ-রোজা করি, তাওবা করে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করি।  কম্যুনিস্টরাও তো এক সময় বদলে যায়।  আমার জন্ম ১২ই রবিউল আউয়াল, রাসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জন্মদিনে।  নানী বলেছিলেন, আমার নাতনী হবে পরহেজগার।  সেই আমি হলাম বহু পুরুষভোগ্য একজন ধর্মকর্মহীন নারী।  বলা তো যায় না, মানুষ আর কত দিন বাঁচে।  আমার মা ছিলেন একজন হাক্কানি পীরের মুরীদ।  আমিও হয়ত একদিন বদলে যাবো।

প্রশ্নঃ বিয়ে-টিয়ে করবার ইচ্ছে আছে কি?

তাসলিমাঃ এখন বিয়ে করে কি করবো? পুরুষটিই বা আমার মধ্যে কি পাবে? সবই পড়ন্ত বেলায়।  যে বিয়ে করবে, সে যদি আমার মধ্যে যৌন সুখ না চায়, সন্তান না চায়, এমন মানব পেলে হয়ত একজনকে সঙ্গী করার কথা ভাবতেও পারি।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.