দেশজুড়ে

শ্রীনগরে অমিত গ্রুপের হামলায় আহত ৭

  • 369
    Shares

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগরে অমিত গ্রুপের হামলায় একই পরিবারের ৪ জনসহ মোট ৭ জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার কুকুটিয়া এলাকার টুনিয়ামান্দ্রা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ওই গ্রামের শুকুর বেপারীর পরিবারের ওপর প্রথম হামলা চালায় একই গ্রামের লুৎফর রহমান খানের পুত্র অমিত খান (৩০) ও তার সহযোগিরা। এতে করে হাজী শুকুর বেপারী (৭০), তার পুত্র শাহিন (৪০), মঈন (৩৫), রুহুল আমিন (৩২) সহ প্রতিবেশী আসাদ (৪০), জাহাঙ্গীর (৪৫) ও শফিক (৪০) আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় মঈনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরন করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, প্রায় মাস খানেক আগে টুনিয়ামান্দ্রা খেলার মাঠ সংলগ্ন শুকুর বেপারীর বাগান বাড়িতে অমিতের নেতৃত্বে কয়েকটি গাছ কর্তন হয়। এনিয়ে অমিত গ্রুপের সাথে শুকুর বেপারীসহ তার ছেলেদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। পরে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সালিশ বৈঠকে বসলে অমিত গ্রুপ ক্ষিপ্ত হয়ে চলে যায়। টুনিয়ামান্দ্রা গ্রামের রানা, শফিক, মনিরুলসহ অনেকেই বলেন, ওই ঘটনার জের ধরেই মঙ্গলাবার অমিতের নেতৃত্বে তার ভাই জুনায়েত (২৫) সহযোগি ইলিয়াস (২৪), লিয়ন (২২), লিয়াকত (২৬), রিফাত (২৩), সোয়াদ (২০), তাজল (২৭), অয়ন (২৫) সহ বেশ কয়েজন প্রথম মঈনের ওপর হামলা চালায়। মঈনকে বাচাতে তার পরিবারের লোকজনসহ প্রতিবেশীরা এগিয়ে গেলে তাদের ওপরেও হামলা চালায়। অমিত গ্রুপের হামলায় ৭ জন আহত হয়। তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। এই হামলার ঘটনায় ভোক্তভোগীরা অপরাধিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।

কুকুটিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল কাইয়ুম মিন্টু বলেন, হামলার কিছুক্ষন পরেই শ্রীনগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে পুলিশের উপস্থিতিতেই অমিত গ্রুপ পুনরায় হামলা চালানোর চেষ্টা চালায়। এসময় এলাকাবাসীর সাথে অমিত গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হতে দেখা গেছে। পরে শ্রীনগর থানার অপারেশন ওসি সাব অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ৯নং ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. মোকশেদুর রহমান মোকশেদ বলেন, গাছ কর্তনের ঘটনায় গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেছিলাম। অমিত গ্রুপ তা মানেনি। বিষয়টি এলাকার সবাই অবগত আছেন। আজকের হামলার ঘটনাটি অতি দুঃখজনক।

এছাড়াও এলাকায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, অমিত খান সাউথ আফ্রিকা প্রবাসী। গত কয়েক মাস যাবত সে ছুটিতে বাড়িতে এসে এলাকায় একটি বাহিনী গড়ে তুলেছে। তার নেতৃত্বে বাহিনীটি এলাকায় মোটর সাইকেল মোহড়া ও সেখানে সেখানে আড্ডা দিয়ে বেড়ায়। ২৬ ও ২৭ রোজায় করোনা রোধে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে মাওয়া গামী বিভিন্ন যানবাহন পুলিশের বাঁধায় ঘুড়িয়ে দেওয়া হলেও যানবাহনগুলো বিকল্প পথ বাড়ৈগাঁও-বিবন্দী সড়ক ব্যবহার করে মাওয়ার দিকে যেতে শুরু করে। এই সুযোগে অমিত গ্রুপ টুনিয়ামান্দ্রায় রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে বিভিন্ন যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করে। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের তোপের মুখে অমিত গ্রুপের লোকজন সটকে পরে। এছাড়াও অমিত গ্রুপের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। অমিত খানের সাথে এবিষয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এব্যাপারে শ্রীনগর থানার ওসি অপারেশন মো. কামরুজ্জামন বলেন, পরিস্থিতি এখন শান্ত আছে। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।


  • 369
    Shares

Related Articles