ট্যুরিজম

স্যার জেসি বোস কমপ্লেক্স পিকনিক কর্নার

  • 22
    Shares

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: ব্রিটিশ শাসিত ভারতীয় উপমহাদেশে এক বাঙ্গালী সন্তান একশরও বেশি আশ্চর্যজনক যন্ত্র আবিস্কার করে সারা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করেন। বিক্রমপুরের কৃতি সন্তান মহামনীষা বিশ^বিখ্যাত বৈজ্ঞানীক স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু।

স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু গ্রামের বাড়ী ঐতিহ্যবাহী বিক্রমপুরের মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার রাঢ়ি খালে তার পৈতিক ভিটায় নির্মিত হয়েছে তার নামে “স্যার জেসি বোস কমপ্লেক্স”। কমপ্লেক্সটি দর্শণার্থীদের কাছে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বিশাল জায়গা জুড়ে নিরিবিলি পরিবেশে এই কমপ্লেক্সটির অবস্থান।

শ্রীনগর-দোহার আন্ত:সড়কের সামান্য উত্তর দিকে অবস্থিত স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন ও কলেজ। তার পাশেই স্যার জেসি বোস কমপ্লেক্সের অবস্থান। পর্যটকদের উপভোগের জন্য রয়েছে যাদুঘর, পিকনিক কর্নার ও বিনোদন কেন্দ্র, লেকব্রিজ, কৃত্রিম পাহাড়, বিভিন্ন জীব জানোয়ারের ভাস্কর্য ও বাগান বাড়ি, পাকা ঘাটলাসহ বড়বড় পুকুর।

স্থানীয় ও দূরদুরান্ত থেকে অনেক পর্যটকের আগমন ঘটে এখানে। বিশেষ করে বিকেলের দিকে অত্র এলাকাবাসীর কাছে কমপ্লেক্সটি একমাত্র বিনোদনের মাধ্যম এটি। শিশুদের কাছেও বিনোদনের প্রিয় কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠছে পিকনিক কর্নারটি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জেসি বোস কমপ্লেক্সে প্রবেশ ফি ২০ মাত্র টাকা। টিকেট কাউন্টারের দায়িত্বে মোবারক হোসেন নামে এক ব্যক্তি সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য কমপ্লেক্সটি খোলা রাখেন। কমপ্লেক্সটির পরিস্কার পরিচ্ছন্নতায় কয়েজন কর্মী আছে এখানে। ভিতরটা কোলাহলমুক্ত সবুজ ছাঁয়ায় ঘেরা। পাকা ঘাটলার পুকুর ও লেকের পাশে পর্যটকরা বসে গল্প করছেন।

লেকের ওপর তৈরী করা হয়েছে কাঠের ব্রিজ। বসার সাউনী। এছাড়াও কৃত্রিম উপায়ে তৈরী করা হয়ে পাহাড়/টিলা, বিভিন্ন জীব জানোয়নের ভাস্কর্য ও কমপ্লেক্সের একটি কক্ষে রয়েছে অস্থায়ী জাদুঘর ও রয়েছে পিকনিক কর্নার। এছাড়াও সংস্কারকৃত যাদু ঘরের সামনে তৈরী করা হয়েছে জগদীস চন্দ্র বসুর মুর‌্যাল। শীত ও গ্রীষ্মকালীন ছুটি ছাড়াও বছর জুড়েই বিজ্ঞানী স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর পৈতিক বাড়িটি দেখতে দেশ-বিদেশ থেকে দর্শণার্থীর আগমন ঘটে এখানে। এসময় ঘুরতে আসা বেশ কয়েকজন পর্যটক সূত্রে জানা যায়, প্রায়ই সময়েই বেড়াতে আসেন তারা।

কোলাহলমুক্ত পরিবেশে গল্প করে সময় পার করছেন জানান তারা। এখাকার সৌন্দর্য আরো দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে করে পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে কমপ্লেক্স পিকনিক কর্নার। কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা মোবারক হোসেন বলেন, করোনাকালীন সময়ে পর্যটকদের সংখ্যা কিছুটা কমেছে। কারণ হিসেবে বলেন এখন স্কুল কলেজ বন্ধ। শিক্ষা সফরে আসা পর্যটকের সংখ্যা কমেছে। পিকনিকের জন্য কোন দল আসলে কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে আসেন।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, ১৯২১ সালে এখানে স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন নামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি স্থাপিত হয়। পরে ১৯৯৪ সালে উক্ত প্রতিষ্ঠানটি কলেজ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এর ২০ বিছর পর অর্থাৎ ২০১৪ সালে স্থাপিত হয় “স্যার জেসি বোস কমপ্লেক্স”। বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুর এই পৈতিক বাড়িতে তার নামে কমপ্লেক্সটি ঘিরে রয়েছে জগদীশ চন্দ্র বসুর নানা স্মৃতি। গত নভেম্বর মাসে তার ১৬৩তম জন্মজয়ন্তী পালন উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করেন প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টরা।


  • 22
    Shares

Related Articles