সন্ধ্যা ৭:২৫ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

যশোরের বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় | কাঠালিয়ায় মাদকদ্রব্য উদ্ধারে সহায়তা করায় গ্রাম পুলিশকে পুরুস্কৃত করলেন ওসি | পলাশবাড়ীতে ৬৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মহিলা আটক | বীরগঞ্জে সাপের কামড়ে কিশোরের মৃত্যু | মির্জাপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু | বীরগঞ্জে ছিনতাইকারী ডলার চক্রের প্রতারক ওসি পরিচয়দানকারী গ্রেফতার | পরিচ্ছন্নকর্মীর জন্য গাবতলী সিটি পল্লীতে আবাসনের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে: মেয়র আতিকুল | বাজারে এলো ৫ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারিযুক্ত ‘অপো এ৯ ২০২০’ | ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন করলো ইসলামী ব্যাংক | প্রিমিয়ার ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর |

সমর্থকদের মানবপ্রাচীরে প্রাণে রক্ষা আইভীর

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জানুয়ারি ১৬, ২০১৮ , ১১:৩৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ঢাকা
পোস্টটি শেয়ার করুন

নারায়ণগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে জীবনের ঝুঁকিতে পড়েছিলেন মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। এর মধ্যে ইটের টুকরো আঘাতে তিনি সড়কে লুটিয়েও পড়েছিলেন। কিন্তু এরপর তার অনুসারীরা চারদিকে ঘিরে ধরে রক্ষা করে মেয়রকে।

নারায়ণগঞ্জ শহর থেকে ডিসেম্বরের শেষ দিকে হকার উচ্ছেদ করেছিল সিটি করপোরেশন এবং পুলিশ। ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান পক্ষ নিয়েছিলেন হকারদের। আর আজ মঙ্গলবার বিকাল চারটার মধ্যে তাদেরকে আগের জায়গা বসতে দেয়ার জন্য আল্টিমেটাম বেঁধে দেন তিনি।

তবে মেয়র আইভী তার সিদ্ধান্তে ছিলেন অনড়। সকাল থেকে নেতা-কর্মীদেরকে নিয়ে শক্তি প্রদর্শনে প্রস্তুত হচ্ছিলেন তিনি। আর বিকালে তাদেরকে নিয়ে মিছিল করে নগরের চাষাঢ়া এলাকার দিকে আসতে থাকেন তিনি।

অপর দিকে হকার এবং শামীম ওসমানের অনুসারীরা ছিলেন চাষাঢ়া শহীদ মিনার এলাকায়। আইভী সমর্থকদের মতো সেখানেও ছিল কয়েক হাজার মানুষ।

আর আইভী মিছিল নিয়ে চাষাঢ়ায় আসার পথে সায়াম প্লাজার সামনে বাধা দেয় শামীম ওসমানের অনুসারীরা। বেঁধে যায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষও। এ সময় ইটপাটকেল নিক্ষেপের পাশপাশি শোনা যায় গুলির শব্দও।

হঠাৎ ইটের টুকরোর আঘাত লাগলে আইভীকে সড়কে লুটিয়ে পড়েন। আর প্রথমে দেখতে না পেরে দৌড়াদৌড়ি করা নেতা-কর্মীদের পায়েও পিষ্ট হন তিনি।

কিন্তু এরপরই বিষয়টি চোখে পড়ে অন্যদের। সঙ্গে সঙ্গে ১০ থেকে ১২ জন নেতা-কর্মী তাকে ঘিরে ধরে।

এ সময়ও শামীম ওসমান সমর্থকরা ইটপাটকেল ছোড়া অব্যাহত রেখেছিল। কিন্তু আইভীকে ঘিরে ধরা নেতা-কর্মীদের বদৌলতে বেঁচে যান আইভী। তাদের উপর ইটপাটকেল লাগলেও তারা আইভীকে নিরাপদ রাখতে সক্ষম হয়।

এরপর পুলিশ দুই পক্ষের মাঝে দাঁড়িয়ে কাঁদানে গ্যাস ও শর্টগানের গুলি ছুড়ে সবাইকে পিছু হটতে বাধ্য করে। আর এর মধ্যে আইভীকে নিরাপদে সরিয়ে নেয় নেতা-কর্মীরা। আইভীর গায়ের আঘাত গুরুতর নয় বলে বলে জানিয়েছেন তার সমর্থকরা।

এখান থেকে মেয়রকে নেতা-কর্মীরা নিয়ে যান নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের দিকে। সেখানে আইভী কথা বলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে।

আইভী বলেন, ‘আপনারা সবাই দেখেছেন। আমার ওপর হামলা করা হয়েছে। প্রশাসনের সহযোগিতায় এই হামলা হয়েছে। আমার শরীরেরও বিভিন্ন জায়গায় আঘাত লেগেছে। তবে আমাকে বাঁচিয়েছে নেতা-কর্মীরাই।’

বিকাল পাঁচটা বাজার কিছুক্ষণ আগে আইভী ঘটনাস্থল ত্যাগ করে দেওভোগ এলাকায় বাসায় ফিরে যান।

এই সংঘর্ষের বিষয়ে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরফুদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘মেয়র সমর্থকদের সঙ্গে হকারদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। তবে কয়জন এবং কারা আহত হয়েছে, সে তথ্য আমাদের জানা নেই।’

Comments

comments