স্বাস্থ্য

রেমডিসিভিরের কার্যকারিতা নিয়ে ‘সংশয়’


‘কভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় রেমডিসিভির কার্যকারী’ এমন দাবি করার এক মাস পর গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করলেন আমেরিকার সরকারি চিকিৎসকেরা। তবে দেশের চিকিৎসকদের এসব তথ্য সরবরাহ করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।যুক্তরাষ্ট্রে মুমূর্ষু রোগীর জন্য জরুরিভাবে ব্যবহারের প্রাথমিক অনুমতি পাওয়া ইনজেকশনটি বাংলাদেশেও সম্প্রতি তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে একাধিক কোম্পানি সরকারের কাছে এটি সরবরাহও করেছে।

নিউইয়র্ক টাইমসের অনলাইন সংস্করণে জিনা কোলাটা লিখেছেন, ইবোলা-হেপাটাইটিস প্রতিরোধে ব্যর্থ হওয়া ওষুধটি নিয়ে অনেক চিকিৎসকের প্রশ্ন আছে।নিউইয়র্ক টাইমস এর ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, আমেরিকার জাতীয় অ্যালার্জি এবং সংক্রামক রোগ বিষয়ক ইন্সটিটিউট পরিচালিত বহুল প্রতীক্ষিত গবেষণাটি শুক্রবার সন্ধ্যায় দ্য নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশ করা হয়।

সেই গবেষণায় মার্কিন সরকারের আগের দাবির সত্যতা নিশ্চিত করে বলা হয়েছে, ‘হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের সুস্থ হওয়ার সময় কমিয়ে এনেছে রেমডিসিভির। কিন্তু অবাক করার বিষয় হলো ফলাফল প্রকাশ করা হলেও পূর্ণাঙ্গ ডেটা বিশ্লেষণ অন্য চিকিৎসকদের দেয়া হচ্ছে না।’

নিউ ইংল্যান্ড জার্নালে বলা হয়েছে, ১ হাজার ৬৩ জন গুরুতর অসুস্থ রোগীর একটি দলকে রেমডিসিভির দেওয়া হয়, আরেক দলকে দেওয়া হয় বিকল্প ওষুধ (প্ল্যাসেবো)।ট্রায়ালের দাবি, ‘যারা রেমডিসিভির নিয়েছেন অন্যদের তুলনায় তারা শুধু দ্রুত সুস্থই হননি, উপসর্গের তীব্রতাও কম ছিল।’

এই ট্রায়ালকে আন্তর্জাতিক বলা হলেও অধিকাংশ হাসপাতাল ছিল আমেরিকার। একটি মনিটরিং বোর্ড নির্দিষ্ট বিরতিতে ডেটা বিশ্লেষণ করতে থাকে। যখন তারা ‘পরিষ্কার উপকারিতা’ পান, তখন ট্রায়াল শেষ ঘোষণা করেন।

গবেষণার এমন ফলাফলে অবশ্য খুশি হতে পারছেন না ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিনের সহকারী গবেষক জুডিথ ফিনবার্গ। তিনি নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন, ‘সৃষ্টিকর্তার দোহাই, এটা একটা মহামারী-আমাদের কিছু ডেটা দরকার।’

টাইমসের প্রতিবেদনে আবার বলা হয়েছে, এই ফলাফল চিকিৎসকদের কিছুটা চিন্তামুক্ত করছে। গুরুতর অসুস্থ রোগীদের ওষুধটি দেওয়া হবে, নাকি কম অসুস্থ রোগীদের দেয়া হবে, এটি নিয়ে তারা এতদিন দ্বিধায় ছিলেন।

ট্রায়ালের সঙ্গে যুক্ত চিকিৎসক আন্দ্রে কালিল বলছেন, ‘গুরুতর অসুস্থ রোগীর পাশাপাশি অন্যদেরও দেওয়া যায়। নারী-পুরুষ, শ্বেতাঙ্গ-কৃষ্ণাঙ্গ সবার ক্ষেত্রে একই ফলাফল দেখা গেছে।

ইতিবাচক ফলাফল পাওয়ার পাশাপাশি গবেষকেরা সতর্কতার কথাও উল্লেখ করেছেন, ‘রেমডিসিভির দেওয়ার পরও মৃত্যুহার বেশি দেখা গেছে। তাই এটা পরিষ্কার যে শুধুমাত্র অ্যান্টিভাইরাল ওষুধে কভিড-১৯ রোগের চিকিৎসা হয় না ।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button