ভারতে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চালু

0
24

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে টানা দুই মাস বন্ধ থাকার পর দিল্লি, মহারাষ্ট্রসহ ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে ফের চালু হয়েছে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচল। তবে পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও অন্ধ্র প্রদেশে এ পরিষেবা চালু হবে আরও কিছুদিন পর।

করোনার সংক্রমণ রোধে গত ২৫ মার্চ থেকে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছিল ভারত। একগুচ্ছ নতুন নিয়ম নিয়ে অবশেষে ২৫ মে থেকে ফের চালু হচ্ছে এসব ফ্লাইট।

রোববার স্থানীয় বিমান সংস্থা ও রাজ্য প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ভারতের বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদ্বীপ পুরী। এরপরেই টুইটারে তিনি জানান, অনেক চেষ্টার পর বিমান চলাচল শুরু করতে রাজি হয়েছে রাজ্যগুলো। সোমবার থেকেই শুরু হচ্ছে এ কার্যক্রম।

বিমান চলাচল চালু করায় মূলত আপত্তি ছিল ভারতে করোনা সংক্রমণের হটস্পট মহারাষ্ট্র, আম্ফান-বিধ্বস্ত পশ্চিমবঙ্গ ও অন্ধ্র প্রদেশের। নানাভাবে বোঝানোর পর অবশেষে রাজি হয়েছে মহারাষ্ট্র। অন্ধ্রে এ সেবা শুরু হবে আগামীকাল থেকে।

পশ্চিমবঙ্গে আগামী ২৮ মে থেকে বিমান চলাচল করবে কলকাতা ও বাগডোগরা থেকে। ত্রিপুরা জানিয়েছে, যেহেতু তাদের সব বিমানই কলকাতার সঙ্গে যুক্ত, তাই সেখানে না শুরু হওয়া পর্যন্ত তারা এটি চালু করতে পারছে না।

এদিকে, দেশটির বিভিন্ন রাজ্যে ভিন্ন ভিন্ন কোয়ারেন্টাইন নীতির কারণে দেখা দিয়েছে জটিলতা। যেমন- আসাম-উত্তর প্রদেশ জানিয়েছে, রাজ্যগুলোতে পৌঁছালেই যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। পাঞ্জাব ও কর্ণাটকে বিভিন্ন মাত্রায় কোয়ারেন্টাইন চলছে। তবে দিল্লি জানিয়েছে, তারা উপসর্গবিহীন কাউকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠাবে না।

এদিকে আক্রান্তের দিক থেকে শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় একন ভারত। আমেরিকা, ব্রাজিল, রাশিয়া, ব্রিটেন, স্পেন, ইটালি, ফ্রান্স, জার্মানি এবং তুরস্কের পরই এখন ভারত।

দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে সোমবার আনন্দবাজার জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ছয় হাজার ৯৭৭ জন। এই বৃদ্ধির জেরে আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ৩৮ হাজার ৮৪৫ জনে দাঁড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা সব থেকে বেশি মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, গুজরাট ও দিল্লিতে।

অপরদিকে, একই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ১৫৪ জনের। এই নিয়ে দেশে করোনারাঘাতে মৃত্যু হয়েছে চার হাজার ২১ জনের।