দেশজুড়ে

টাঙ্গাইলের যৌনপল্লীতে নেই ঈদ আনন্দ

  • 22
    Shares

আশিকুর রহমান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : ছদ্মনাম হাসি। তার নয় মাসের শিশুটি পাঁচদিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত। টাকার অভাবে নূন্যতম চিকিৎসাও করাতে পারছেননা তিনি। যেখানে শিশু খাদ্যে ও পথ্যের যোগান অলিক স্বপ্ন,সেখানে ঈদের কথা মনে করতেই পারছেননা।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন যাবত লকডাউনে আটকা পড়ে আমাদের একমাত্র আয়ের উৎস বন্ধ। শেষ হয়েগেছে জমানো অর্থ। শিশু বাচ্ছা নিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে। ঈদে ছেলেকে কিনে দিতে পারেননি কোন জামা-কাপড়,নিজেও নিতে পারেননি কিছু। এদিকে লকডাউনের সময় প্রশাসন থেকে ৩০ কেজি চাল ও পরে আরোও ১০ কেজি চাল সহায়তা দেয়া হয়েছে। আর ঈদ উপলক্ষে প্রশাসন থেকে মাত্র ৫০০টাকা সহায়তা দেয়া হয়েছে।

তিনি বলছেন,অনেকদিন যাবত ঘরে নেই বাচ্ছার জন্য কোন খাদ্য। এদিকে আজ ঈদ। এই টাকা দিয়ে শিশু খাদ্য কিনলে ছেলেকে কিনে দিতে পারবেননা কোন জামা। আর জামা কিনলে কিনতে পারবেননা শিশু খাদ্য। এই ৫০০টাকা দিয়ে কি কিনবেন ভেবে পাচ্ছেননা ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দুই মাস ধরে লকডাউনে অবরুদ্ধ টাঙ্গাইলের যৌনপল্লী। বিচ্ছিন্ন এই পল্লীতে আয়ের উৎস বন্ধ থাকায় দেখা দিয়েছে মানবিক বিপর্যয়। সংক্রমণ রোধ ও মানবিক বিপর্যয় ঠেকাতে সরকারের বিশেষ সুবিধা চান তারা।

যৌনকর্মীরা বলেন, প্রায় সাড়ে পাঁচশ কর্মী ও তাদের পরিবার পরিজনের আবাসস্থলের এই যে দৃশ্য তা চিরচেনা দৃশ্য নয়। এখন যা খাখা বিরানভূমি তা করোনাকালের আগে ছিলো মানুষে মানুষে সরগরম। এখন সেই মানুষে মানুষে মেলামেশা বন্ধ থাকায় তার প্রভাব পড়েছে তাদের জীবন ও ঈদে।

তারা বলছেন, অন্য ঈদে তারা নিজেরাই অসহায়-দরিদ্র মানুষকে সাহায্য করেছে। আর এবার আমাদের মাঝে ঈদ বলতে কিছু নাই।বাচ্ছারা নতুন জামার জন্য কান্না করছে।কিন্তু তাদের কিছুই দিতে পারছিনা।

নারী মুক্তি সংঘের কার্যকরী সদস্য বেবী আক্তার বলেন, বিগত দুই মাসে মাত্র ৪০ কেজী চাল ও নগদ ৫০০ টাকা পেয়েছেন তারা। আগামীতে নিয়মিত অর্থ সহায়তা না পেলে তাদের আটকে রাখা যাবেনা । তাই তিনি প্রতি মাসে জনপ্রতি দুই থেকে তিন হাজার টাকার দাবি জানিয়েছেন সরকারের কাছে।

এবিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো.শহিদুল ইসলাম বলেন, ঈদ উপলক্ষে তাদেরকে নগদ সহায়তা দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে তাদের জন্য নগদ সহায়তার বিষয়টি সরকারের বিবেচনায় রয়েছে বলে জানান তিনি ।

গেল মার্চের বিশ তারিখ থেকে তিন দশমিক এক একর জায়গার এই যৌনপল্লীতে ২ হাজার মানুষ লকডাউনে বন্দী জীবনযাপন করছে। সরকারি সহায়তা না পেলে তাদের সারা দেশেই ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।


  • 22
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button